মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
হোমশিখা দত্ত
আপডেট
৩১-০৩-২০২০, ১৮:১৩

করোনার প্রাদুর্ভাব: বেতাল জনজীবন

করোনার প্রাদুর্ভাব: বেতাল জনজীবন
করোনা ভাইরাসের আগমনের পর থেকে তার ব্যাপারে লোকজনকে সচেতন করার কাজ চলছে। তবে, সে আসার আগ থেকেই তো বাক্যবাগীশ বাংলাদেশী কম বেশী বাজারের মোড়ের চায়ের টং, অফিস-কাছাড়ি, ফেসবুক, টিভি স্ক্রিন, মুঠোফোনে বকে বকে নিজের দুইমাত্র কানসহ উত্তপ্ত করে তুলছিলো।

নতুন অতিথি করোনা নিয়ে উতোরচাপান কম হয়নি এতদিন। এখন যখন করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ করার নিয়মগুলো মানতেই হবে --- এমন দিন এসেই গেলো, তখন তাদের ওই হৈ-হল্লা গেলো কই? কেন এখন মিলিটারিসুদ্ধ নামাতে হচ্ছে রাস্তায়? কেন জল-কামান নিয়ে এসে জল ছুঁড়ে ছুঁড়ে তাদের বাসায় পাঠাতে হচ্ছে? যেখানে নিজে সচেতন থেকে নিয়ম মানলে স্বজন, পাড়াপড়শি, দেশ বাঁচবে, সেখানে এতো কথা কেন বলতে হচ্ছে সে নিয়ম মানাতে? অবস্থা এতো খারাপ যে, মহান স্বাধীনতা যুদ্ধ, ১৯৭১ সালের বীর বাঙালীর আত্মত্যাগের কথা মনে করিয়ে করিয়ে এ যুগের উচ্ছৃঙ্খল, মহাবুঝদার, স্বঘোষিত বীর বঙ্গসন্তানকে পোষ মানিয়ে খাঁচায় ঢোকাতে হচ্ছে। এর মধ্যে সমাজে শিক্ষাগত যোগ্যতায়, পোশাকে, পেশায়, বাসস্থানে --- উঁচু থেকে নীচু সবাই অন্তর্ভুক্ত।

কেন এই অবস্থা? এর উত্তর খোঁজার জন্য আগে মনে করি এ দেশের সমাজ ব্যবস্থায় কী কী অপরাধ সংঘটিত হতে পারে। যে কয়টা মনে পড়লো, লিস্ট করে লিখলাম। দেখা যাক, লিস্ট কী বলে ---

১) যেখানে সেখানে কফথুথু, পানের পিক, সর্দি, চুইংগাম ফেলা।
২) যেকোনো ধরনের জিনিসপত্র ব্যবহারের পর নির্দিষ্ট জায়গায় না ফেলে যেখানে সেখানে ফেলে দেওয়া।
৩) পাবলিক টয়লেট ব্যবহার না করে যেখানে সেখানে হিসু-হাগু করা। রাস্তা ঘাটে, যেকোনো জলাশয়ে দৈনন্দিন বা খেলাচ্ছলে স্নান করতে নেমে সেখানে হিসু করা।
৪) পরিবেশের বিভিন্নভাবে ক্ষতি করা। প্রকৃতি ও প্রাকৃতিক সম্পদ নষ্ট করা, পরিবেশ দূষণ করা।
৫) দেশের সম্পদের অপচয় করা। পানি, গ্যাস, ইলেক্ট্রিসিটি বাজে খরচ করা।
৬) ট্রাফিক আইন অমান্য করা।
৭) দেশের বা পৃথিবীর যেকোনো ধরনের বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ জায়গা নানাভাবে ময়লা ও নষ্ট করা, অসম্মান করা।
৮) দেশ ও ভাষার অবমাননা করা।
৯) অশ্লীল ভাষায় কথা বলা ও কিছু লেখা।
১০) শিশুদের মৌলিক অধিকার থেকে বঞ্চিত করা, কুশিক্ষা অশিক্ষা প্রদান করা, শারীরিক মানসিকভাবে হেনস্তা করা, শিশুশ্রমে বাধ্য করা।
১১) যেকোনো জায়গায় যেকোনো মেয়ের সাথে যথেচ্ছ আচরণ করা। শারীরিক মানসিকভাবে লাঞ্চিত করা, নির্যাতন করা, ইভটিজিং করা, ধর্ষণ করা।
১২) অপরাধ করা - চুরি, ডাকাতি, ছিনতাই, খুন, মাদক সেবন বা ব্যবসা, আইন অমান্য বা অপব্যবহার করা।
১৩) নারী হোক বা পুরুষ হোক, অপেক্ষাকৃত শারীরিক, আর্থিক, সামাজিকভাবে ক্ষমতাশীল হওয়ার সুযোগের অব্যবহার করা। অপেক্ষাকৃত কম ক্ষমতাশীল বা ক্ষমতাহীন যেকোনো বয়স ও লিঙ্গের ব্যক্তির সাথে অন্যায় করা।


মানুষ যদি এসব করার কথা না ভাবতো, অথবা করবে না ঠিক করতো, তাহলে এসব কাজ হতোই না। এর অর্থ দাঁড়ায়, প্রত্যেকটা কাজই মানুষের ইচ্ছাকৃত। এর কোনোটাই করা উচিৎ না, তাও দেশের প্রত্যেকটা মানুষ এগুলোর একটা না একটা করেই। আবার, এসব যে করা উচিৎ না এটাও সবাই জানে, কিন্তু করে। দেশের বিচার ব্যবস্থার কারণে বড় বড় অপরাধেরই অনেক সময় শেষমেশ সঠিক বিচার হয়ে উঠতে পারে না। যেখানে বড় অপরাধের বিচার হয় না, সেখানে আপাত ছোটখাটো, কিন্তু পরোক্ষভাবে খুবই ক্ষতিকর অপরাধগুলো কেউ অপরাধ বলেই গণ্য করে না। বাংলাদেশের মানুষের মাথায় সেভাবেই সেট হয়ে গেছে।

খামোখা চুলা জ্বালিয়ে রাখা যে অপরাধ সেটা কারো মনে পড়ে? মুখ ধোয়ার পর কল ভালো করে বন্ধ না করায় ফোঁটায় ফোঁটায় পানি পড়ে যাচ্ছে, এটা যে অপরাধ কারো মাথায় আসে? যদি কিছু বলি, উত্তর হবে, তাতে কী হয়েছে যে? কয়েক ফোঁটা পানি পড়লে কী হয়?
এখন বলি, কী হয়। সারা বিশ্বের সব কল ঠিক মতো বন্ধ না করায় নষ্ট হওয়া পানির ফোঁটা যদি একত্র হয়, সে আর ফোঁটা ফোঁটা পানি থাকবে না। সে সমুদ্র হয়ে এসে আমাদের তাতে ডুবিয়ে দেবে।

এভাবে প্রত্যেক খারাপ কাজ, যেটা নাগরিক হিসাবে আমাদের করা উচিৎ না, সেটার একটা না একটা ক্ষতি আছে। সেই ক্ষতি সাধন করেও যেহেতু আমরা দণ্ডপ্রাপ্ত হই না, সেহেতু আমাদের মাথার ভিতর একটা ড্যাম কেয়ার ভাব জন্মায়। এই মানসিকতা প্রজন্ম থেকে প্রজন্মে বয়ে যাচ্ছে। এটা আমাদের জিনগত। এতোটাই যে, ব্যাপারটা আলাদা করে ভাবিই না।


ধরি, কেউ একজন। কথাবার্তায়, পোশাকে, চলাফেরায় ফিটফাট। সে আড়ালে বা প্রকাশ্যে মাদক সেবন বা ব্যবসা করে, জমি-জিরাত, সম্পত্তি, টাকাপয়সার জন্য মারামারি, খুনখারাবি করে, শিশুদের সাথে যা তা আচরণ করে, যেকোনো বয়সী নারী দেখে প্যান্টের জিপার ঠিক করার ভান করে, কারো স্বামী/স্ত্রীর সাথে অনৈতিক কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে কারো সাংসারিক জীবন বিষিয়ে দেয়, গণপরিবহনে নারীদের যৌন হেনস্তা করে বা চেষ্টা করে, ট্রাফিক আইন অমান্য করে, দেশমাতৃকার অবমাননা করে, কাউকে বুলিং করে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত করে ফেলে... এমন ইত্যাদি ইত্যাদি অপরাধ করে যায়। সেক্ষেত্রে সে নারী হোক কি পুরুষ হোক, তার জেল-জরিমানা হলেও হতে পারে। শাস্তি সে পেতেও পারে। এভাবে বললাম, কারণ, অনেক অপরাধীই আইনের ফাঁক গলে কিংবা অসহায় বিচারব্যবস্থার অক্ষমতার সুযোগ নিয়ে বুক ফুলিয়ে হাসতে হাসতে বের হয়ে আসে। আর, অন্যদিকে যে ক্ষতিগ্রস্ত সে হতাশ হয়ে চুপ করে যায় অথবা লড়েই যায় লড়েই যায়, তারপর শেষমেশ একদিন তার জীবনের লড়াইয়েই হেরে গিয়ে বিদায় নেয় পৃথিবী থেকে। এটা তো আর নতুন কিছু না।

কিন্তু সে-ই একই ব্যক্তি যদি চলন্ত যান থেকে ব্যবহৃত টিস্যু, চিপসের প্যাকেট, বাদামের খোসা, ঠোঙা, থুথু, পিক, চুইংগাম রাস্তার মধ্যে ফেলে দেয়, চুলা, পানির কল পুরোপুরি বন্ধ না করে, বিয়েবাড়ী বা যেকোনো অনুষ্ঠানে থালাভরা খাবার নিয়ে ছড়িয়ে ছিটিয়ে খায়, খাবার নষ্ট করে, বিভিন্নভাবে পরিবেশ দূষণ করে, পরিবেশের ক্ষতি করে, কোনো বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় নাম লিখে, কালি লেপে, পোস্টার সেঁটে, কফ থুথু পিক ফেলে ময়লা করে, পথে চলতে নাক ঝেড়ে ইলেক্ট্রিক পিলারে হাত মুছে ফেলে, ঘরের জানালা, বারান্দা দিয়ে বাসাবাড়ির আবর্জনা ফেলে দেয় অবলীলাক্রমে --- এক্ষেত্রে সে অপরাধ করছে বলে কেউ কি বিবেচনা করবে? সে নিজে কি ভাববে এটা তার অপরাধ হচ্ছে?

করবে না। এসব মনেই হবে না। রাস্তায় বিভিন্নরকম সচেতনতামূলক সাইনবোর্ড থাকে --- বিভিন্ন বিষয়ে কী করা উচিৎ, কী করা উচিৎ না। কেউ খানিক থেমে একবার পড়েও দ্যাখে না। মুখে বলে বুঝাতে চাইলে, হয়তো শোনে আর সে বিষয়ে তার গুরুত্বপূর্ণ মতামত দেয়। কিন্তু পরমূহুর্তে ভুলে যায়। এসবের একটা বড় কারণ, কখনো কেউ এসব কাজের জন্য শাস্তি পায়নি। সেটা বহু বহু ... বহু আগে থেকে। দিনের পর দিন গেছে, যুগের পর যুগ গেছে, প্রজন্মের পর প্রজন্ম গেছে, কেউ এসব কাজের জন্য শাস্তি পায়নি। অনেক মানুষ জানেই না যে, এসব কাজেরও ক্ষতি বলে কিছু থাকতে পারে, এসব কাজও অপরাধ।

এর ফল হিসাবে যেটা হয়েছে, দেশের মানুষের মধ্যে সঠিক নাগরিক বোধটা গড়ে ওঠেনি। একটা সমাজে থাকতে হলে সভ্যতা মানতে হয়। সভ্য আচরণ করতে হয়। সেজেগুজে গুণ্ডাগিরি করলেই শুধু অসভ্যতা হয় না, চিপস খেয়ে অম্লানবদনে পাশেই ফেলে দেওয়াটাও অসভ্যতা। হাঁটতে হাঁটতে ছিপ করে থুথু ফেলাটাও অসভ্যতা। এমনকি খাওয়ার আগে এক মূহুর্ত হাতে পানি লাগিয়ে খাওয়া শুরু করাটাও অসভ্যতা। অনেকেই আছে, জামা গা থেকে খুলে সেই চিপসের প্যাকেটের মতন যেখানে দাঁড়িয়ে আছে সেখানেই ফেলে দেয়। ঘরে ঢুকে দু'পাটি জুতার একটা এখানে আরেকটা ওখানে ছুঁড়ে দেয়। কাঁধের ব্যাগটা উড়ে যায় আরেক দিকে। এসব অসভ্যতাই বলতে হবে। জানি, এই কাজকর্ম আমাদের এতোটা আত্মস্থ হয়ে গেছে যে, অনেক পাঠকই আমার লেখা পড়ে একচোট হেসে বলবেন, এসব পাগলের প্রলাপ। আমরা আজীবন এগুলো শুনেছি, পড়েছি, দেখেছি একটা রোমান্টিক বোহেমিয়ান সেন্টিমেন্ট হিসাবে। কিন্তু সেটা যে চিন্তাভাবনাকে গ্রাস করে উচ্ছৃঙ্খলতা শেখায়, সেটা দৃশ্যত বোঝা যায় অন্তিম পর্যায়ে এসে। শুধু খারাপ আচরণ অসভ্যতার সংজ্ঞা নয়। আচরণে সুস্থতা আর স্বাভাবিকত্ব থাকলে সেটা সভ্য আচরণ হয়।

তো... এখন, আজকের এই ভয়াবহ পরিস্থিতিতে এসে হাড়ে হাড়ে টের পাওয়া যাচ্ছে, দেশের মানুষকে আরো সভ্য করা এখনো কতোটা বাকির খাতায় পড়ে আছে। বিদেশে কী করেছে, কী করেনি এসব অনেকবার লেখা-পড়া-বলা হয়ে গেছে। এখন নিজেদের ভাবতে হবে, আসলেই আমরা নিজেরা কতোটা সচেতন হয়েছি।

২০১৭ সালে একটা খবরে এসেছিলো, বাংলাদেশ ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ বলেছে সেসময় দেশে ইন্টারনেটের পৌনে সাত কোটি গ্রাহকের মধ্যে ফেসবুক ব্যবহারকারী আড়াই কোটি। সেই আড়াই কোটি নিশ্চয়ই বেড়ে তিন/সাড়ে তিন অন্তত হয়েছে এই তিনটা বছরে। ধরলাম তিন কোটি। তিন কোটি মানুষ ফেসবুক থেকে অবশ্যই করোনা নিয়ে কিছু না কিছু ভিডিও, ছবি, লেখা দেখেছে, পড়েছে। আবার পৌনে সাতের বাকিরাও বেড়েছে সংখ্যায়। ফেসবুক ব্যবহারকারীরা তাদের সাথে কিছুই শেয়ার না করুক, তারা পত্রিকা, টেলিভিশন থেকে তো জেনেছে। তাও এখনো কাজেকর্মে এতোটা অসচেতনতা?

বাংলাদেশের লোকজন বিদেশ থেকে এসে ঘরে না থেকে বাইরে বাইরে ঘুরঘুর করেছে, বিয়ে করেছে, বিয়ে করতে গিয়ে পুলিশের কাছে ধরা খেয়েছে, মেয়ের বাড়ির লোকের ধাওয়া খেয়েছে, বউসহ কোয়ারেন্টাইনে গেছে। বিদেশফেরত কোয়ারেন্টাইনে থাকা লোককে পাড়া ঝেঁটিয়ে ভীড় করে দেখতে গেছে --- গ্রামেও, শহরেও। এখনো সুস্থ আছে তেমন লোকজন সৈকতে, পিকনিক স্পটে বেড়াতে গেছে। জনসমাগম করে বিয়ে করেছে। কর্তৃপক্ষ শহরে হাত ধোয়ার জন্য বেসিন বসিয়েছে আর নাগরিকেরা সবাই মিলে ঠেলাঠেলি করে হাত ধুচ্ছে। চেংড়া ছেলেপুলের পাল হিরোইজম দেখিয়ে করমর্দন করেছে, কোলাকুলি করেছে। যেটা করতে মানা করা হয়েছে, সেটাই তোকে করতে হবে? কেন? এরকম একটা বিশ্রী প্রবণতা আছে এ দেশের মানুষের।

করোনা ভাইরাস উপলক্ষে সরকার ছুটি ঘোষণা করেছে, আর, সবাইকে বলেছে ভীড় ভাট্টা এড়িয়ে চলতে। ছুটি পাওয়ার ফলস্বরূপ নাগরিকের দল কী করেছে? ছুটি নামক সোনার হরিণ হাতে পেয়েই সব একাট্টা হয়ে বাড়ি গেছে, ঠেলাঠেলি করে টিকেট কেটেছে। কেন? বছরের বাকি দিন-মাসের সব ছুটি কি বাতিল? যাওয়ার পথে আবার দুর্ঘটনাও ঘটেছে। সত্যিকারের ঈদের ছুটিতে উর্ধ্বশ্বাসে বাড়ি যাওয়ার সময় যে পরিমাণ দুর্ঘটনা ঘটে, তেমন না ঘটলেও, ঘটেছে। এটা যে ঈদের ছুটির মতো ছুটি নয় একবারও কেউ ভাবেনি। আমাদের লজ্জা হওয়া উচিৎ। ছুটি পেয়ে একবার অন্তত ভাবা উচিৎ ছিলো, সরকার তো দিলো ছুটি, এরপর নাগরিক হিসাবে আমার, আমাদের, সবার কী কর্তব্য। ভাববে কী করে? সে বোধই তো গড়ে ওঠেনি এ দেশের মানুষের শ্রীঘটের ভিতর। এদিকে আবার করোনা ভাইরাস নিয়ে বিতর্ক বেঁধে মারামারি করে একজন মারাও গেছে। ছিঃ। একটা বার ভাবে না, একটা মানুষের মৃত্যু যে এতো তুচ্ছ কারণে হতে পারে না।

এগুলো সব সিভিক সেন্স-এর অভাব। নাগরিক বোধহীন নাগরিক আমরা। বহুকাল চলে আসা 'নিয়মকানুনের ধার ধারি না' মনোভাবটা সবার শরীরের রন্ধ্রে রন্ধ্রে ঢুকে গেছে। এখন বললেই সব দলে দলে নিয়ম শৃঙ্খলা মানবে, সে আশা করা বোকামী। তাছাড়া, আরেকটা চিন্তাও মিশেছে আমাদের রক্তে, 'কেউ তো করে না, আমি একা কেন করবো, আমি করলেই সব ঠিক হয়ে যাবে?'। যখন একেবারে বিনাশর্তে নিয়ম শৃঙ্খলা মানতেই হবে তেমন একটা পরিস্থিতি তৈরী হয়, তখন ওই চিন্তাটা মনের ভিতর বার্তা পাঠায়, মানি না মানবো না, মানি না মানবো না। হুজুগে-সিলখাওয়া বাঙালীও আর দ্বিতীয়বার ভাবে না। তবে এটা ঠিক, দ্বিতীয়বার দেখলেই কিন্তু আমরা অনেক কিছুই কখনো করতাম না।

ইদানীং লোকজন ঘরে ঢুকেছে এবং প্রায় সাথে সাথে প্রকৃতিতে দেখা যাচ্ছে আশ্চর্য সব পরিবর্তন। প্রজাপতিরা ফিরে এসেছে। সমুদ্র সৈকতে ডলফিনের ঝাঁক খেলা করছে। ব্যাঙ লাফিয়ে লাফিয়ে রাস্তা পার হচ্ছে। তার মানে, মানুষ নামের সর্বশ্রেষ্ঠ প্রাণীটা পৃথিবীর প্রতিটা জায়গায় কী দুঃসহ পরিস্থিতি তৈরী করে রেখেছিলো! স্থির হয়ে বসে একটাবার ভেবে দেখুন তো!

জানি, বাংলা নামের দেশটা অনেক ঝড়-ঝঞ্ঝা সয়ে উঠে দাঁড়িয়েছে। এখনো অনেক সমস্যা সহ্য করে যাচ্ছে, প্রাকৃতিক, সামাজিক, অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক --- অনেক সমস্যা। অনেক দৈন্যতা সয়ে সামনে এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছে এই দেশ। তারপরও, আমরা ভুলে গেলে চলবে না, দিন শেষে দেশটা আমাদেরই, এর ভালো-মন্দ সবেতেই আমাদের দায় থেকে যায়।

তবে, হঠাৎ হঠাৎ কোথা থেকে জানি এতো এতো অলম্বুষ মাথামোটার মাঝেও সত্যিকারের মানুষের মতো মানুষেরা পথে এসে দাঁড়ায়। বিপদে একে অন্যের জন্য বাড়িয়ে দেয় ভরসার হাত। তারা রাস্তায় অন্যের ফেলে যাওয়া ময়লা কুড়িয়ে ডাস্টবিনে ফেলে। সেন্টমার্টিন দ্বীপ থেকে টন কে টন আবর্জনা কুড়িয়ে নিয়ে আসে, পরিবেশ দূষণ মুক্ত করার জন্য। বয়স যতোই হোক না কেন রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে পথচারীদের পারাপারের নিয়ম শেখাতে চেষ্টা করে। সহায়হীন দরিদ্র মানুষের মুখে খাবার তুলে দেওয়ার জন্য স্বেচ্ছাশ্রম দেয়।

সেই মানুষগুলোই আজ করোনা দুগর্ত সময়ে সরকার আর বড় বড় প্রতিষ্ঠানের মুখ চেয়ে বসে থাকেনি। নিজেদের যা আছে, তা-ই নিয়ে যুদ্ধে অবতীর্ণ হয়েছে। তারা এখন রাস্তার পাশে বসে সময়োপযোগী দামে মাস্ক বিক্রি করছে। মঠে বসে মাস্ক তৈরী করছে। খেটে-খাওয়া মানুষকে বসিয়ে খাবার দিচ্ছে। এক জোট হয়ে হ্যান্ড স্যানিটাইজার বানাচ্ছে। পিপিই-এর মতো নিরাপত্তা সামগ্রী তৈরী করার চেষ্টা করেছ। আসলে, এই মানুষগুলোই আমাদের আশাবাদী হতে শেখায়। এরাই ভরসা জোগায় তাদের কাজ দিয়ে। আমাদের ভাবতে সাহস দেয়, একদিন অন্ধকার কেটে যাবেই, পূর্বদিগন্ত রাঙিয়ে আবার উঠবে রক্তলাল সূর্য।

লেখক: হোমশিখা দত্ত, এনজিও কর্মী

 

*** প্রকাশিত মতামত লেখকের নিজস্ব। সময় সংবাদের সম্পাদকীয় নীতি বা মতের সঙ্গে লেখকের মতামতের অমিল থাকতে পারে। লেখকের কলামের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে আইনগত বা অন্য কোনও ধরনের কোনও দায় সময় সংবাদ নেবে না।




DMCA.com Protection Status

এই বিভাগের সকল সংবাদ
করোনা ভাইরাস লাইভ আপডেট
আক্রান্ত চিকিৎসাধীন সুস্থ মৃত্যু কোয়া:
৬০৩৯১ ৩৪৬২৩ ১২৮০৪ ৮১১ ৪২৫২৯
বিস্তারিত
এরশাদ-পুত্র সাদ ও মেয়র মোস্তফার দ্বন্দ্বে টালমাটাল রংপুর জাতীয় পার্টি আইসিডিডিআর,বি’র বক্তব্য বিকৃত করেছে 'দ্য ইকোনোমিস্ট' ওষুধ বিক্রিতে চরম নৈরাজ্য চট্টগ্রামে আনুশকার বিরুদ্ধে অশ্লীলতার মামলা গতি বেড়েছে করোনার, প্রতিদিন লাখের উপরে সংক্রমণ! বিশ্বজুড়ে করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা চার লাখ ছাড়াল কুমিল্লা মেডিকেলে শুধু কাজ শিখতে গিয়েই করোনার ৮শ’ কিট নষ্ট! ঢাকার লেডিকিলার নাটোরের লালপুর থেকে গ্রেফতার হিলিতে ভারত থেকে ট্রেনে করে আসলো পেঁয়াজের ৩য় চালান করোনা সংকটে আর্থিক ঝুঁকিতে প্রায় ২ লাখ সমবায় প্রতিষ্ঠান আজ ঐতিহাসিক ছয় দফা দিবস ফুটপাতের দোকানে দেদারছে বিকোচ্ছে ভেজাল নিরাপত্তা সামগ্রী লকডাউন তুলে নেয়া হলেও ঘরোয়া টুর্নামেন্ট শুরুর পরিকল্পনা নেই অ্যাথলেটিক্স-হ্যান্ডবল ফেডারেশনের মাঠে ফেরার দিন-তারিখ চূড়ান্ত হয়েছে বাংলাদেশ ফুটবল দলের গ্যালারি ভর্তি দর্শক নিয়েই মাঠে ফিরেছে ভিয়েতনামের ফুটবল টুর্নামেন্ট 'ভি লিগ' অ্যামাজনের বিতরণ কেন্দ্রে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড ফুটবল-ক্রিকেটের পর এবার মাঠে ফিরছে অন্য খেলাগুলোও ইউরোপের ক্লাব ফুটবলের দলবদলের নীরব প্রতিযোগিতা পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রী বীর বাহাদুর করোনায় আক্রান্ত আর্থিক ক্ষতি পুষিয়ে নিতে ফিফা’র ‘ফিন্যান্সিয়াল রিলিফ প্ল্যান’ বাঙালির ফুটবল বিপ্লবে উনিশ শতকের শেষভাগ ছিলো খুবই গুরুত্বপূর্ণ আবুল হোসেনের দ্বিতীয় গরুটিরও একই দশা করলো দুর্বৃত্তরা ড. ক্লেমেনস’র মূল বক্তব্যের সঙ্গে ইকোনমিস্টের প্রতিবেদন সামঞ্জস্যপূর্ণ নয় ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলম করোনায় আক্রান্ত বিয়ের দাবিতে যুবকের বাড়িতে গৃহবধূর অনশন ঠাকুরগাঁওয়ে সড়ক দুর্ঘটনায় শ্রমিক নেতা নিহত সময় টিভির নাম ব্যবহার করে তথ্যমন্ত্রীকে নিয়ে ভুয়া পোস্ট খুলনায় করোনা আক্রান্ত আরেকজনের মৃত্যু মুকসুদপুরে করোনায় আক্রান্ত এক ব্যক্তির মৃত্যু পূর্বধলায় দ্রুতগামী ট্রাক চাপায় পথচারী নিহত কাজ থেকে বাদ দেয়ায় ক্ষুব্ধ হয়ে গৃহকর্ত্রীর শিশুকে পানিতে ডুবিয়ে হত্যা কুড়িগ্রামে করোনা আক্রান্তদের অধিকাংশই সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন সিলেটে কফিন হাতে প্রতিবাদ টর্নেডোয় ক্ষতিগ্রস্তদের প্রতি মোকতাদির চৌধুরীর সমবেদনা মাস্ক না পরায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ৬৫ জনকে জরিমানা খেলতে গিয়ে পুকুরে ডুবে ২ স্কুলছাত্রীর মৃত্যু পাটক্ষেতে নিয়ে ‘শিশুকে ধর্ষণচেষ্টা’, কিশোর গ্রেফতার ভর্তি নিলো না হাসপাতাল, করোনায় বলিউড প্রযোজকের মৃত্যু হাসপাতালের বেড চেয়ে কোর্টে আবেদন, রায়ের আগেই চলে গেলেন তিনি ৭২ ঘণ্টা পর নাসিমের বিষয়ে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেবেন চিকিৎসকরা কলাবাগানে নিয়ে গৃহবধূকে ‘পালাক্রমে ধর্ষণ’ করোনা ভেবে মাকে রাস্তায় ফেলে গেলেন সন্তান ললিপপ অর্ডার করে চাকরি হারালেন মাদাগাস্কারের মন্ত্রী এবারের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ পেছানো উচিত: মাহমুদউল্লাহ করোনা নিয়ে দুঃসংবাদ শোনালেন ইরানের প্রেসিডেন্ট দেখা হবে বাংলাদেশ, আমি আসছি... মাওয়া-আরিচায় ফেরি, লঞ্চ ও স্পিডবোটে যাত্রীদের গাদাগাদি গাইবান্ধায় শিশু ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে মামলা রাজধানীতে নির্মাণাধীন ভবনের ছাদে নারীর হাত-পা-মুখ বাঁধা লাশ হেলিকপ্টারে যশোর থেকে ঢাকা আনা হল অসুস্থ চিকিৎসককে করোনা সংক্রমণে ৪ নম্বরে কক্সবাজার ঘুরে ঘুরে হাসপাতাল মনিটরিং করছেন ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা ইতালির করোনা পরিস্থিতির উন্নতির রশিতে ফের টান হাতির পর ভারতে একই কাণ্ড ঘটলো গরুর সঙ্গেও! হাসপাতাল থেকে রোগী ফেরত দেয়া মানবতাবিরোধী কাজ: তথ্যমন্ত্রী অনলাইনে 'ব্লকচেইন' প্রযুক্তির ওপর প্রশিক্ষণ পোড়া হাতে লিখেই জিপিএ-৫, প্রকৌশলী হতে চায় সুপন বজ্রপাতে একদিনেই ৮ জনের মৃত্যু ২৫ হাজার বর্গ মাইল নতুন ভূমি যুক্ত হতে পারে বাংলাদেশে মুন্সিগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় গ্রামপুলিশ নিহত খুলে দেয়া হল বান্দরবানের হোটেল-মোটেল-রিসোর্ট হবিগঞ্জে আ্যাম্বুলেন্সে করে গাঁজা পাচার, আটক ৩ হবিগঞ্জে র‍্যাবের অভিযানে ইয়াবাসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক বিয়ের অনুষ্ঠান থেকে নতুনভাবে করোনা ছড়াল ইরানে রাহুল দ্রাবিড়ের প্রশংসায় পঞ্চমুখ রশিদ লতিফ ৬ দফা দিবস উপলক্ষে বিশেষ আলোচনা ও কুইজ প্রতিযোগিতা চীন-ভারতে করোনা পরীক্ষা ঠিকমতো হলে সংখ্যা বাড়ত: ট্রাম্প আয়ারল্যান্ডে দ্বিতীয় ধাপের লকডাউন শুরু উত্তেজনার মধ্যেই সীমান্তে নতুন জেনারেল নিয়োগ দিল চীন এবার সুস্থ-অসুস্থ সবাইকেই মাস্ক পরতে বললো হু হাসপাতালে সাহারা খাতুন কাতারের ওপর নিষেধাজ্ঞায় সৌদিই বেশি ক্ষতিগ্রস্ত! মাছ ধরতে গিয়ে বজ্রপাতে ৩ জনের মৃত্যু বৃষ্টির মধ্যে সড়কে পাশে নবজাতকের কান্না, ব্যাগের ভেতর ফুটফুটে কন্যা ডোমারে আশ্রয়ন প্রকল্প না করার দাবিতে মানববন্ধন আইনি প্রক্রিয়ায় জিতে ফ্লয়েডের আন্দোলনে অস্ট্রেলিয়ানরা কুড়িগ্রামে অবিরাম বৃষ্টিতে বিপর্যস্ত জনজীবন করোনায় সুইডেনে পর্যটনের ভিন্নচিত্র সামাজিক দূরত্ব, ইচ্ছে করেই কি মানা হয় না? দেশের বাজারে অপোর রেনো থ্রি প্রো মৌলভীবাজারে বজ্রপাতে দুজনের মৃত্যু সাতক্ষীরায় অপহরণের একদিন পর উদ্ধার, ৪ অপহরণকারী গ্রেফতার প্রাইভেট পড়ানোয় শিক্ষকের জরিমানা ভারতে আক্রান্ত ২ লাখ ৩৬ হাজার, তাবলিগিদের ভিসা না দেয়ার সিদ্ধান্ত নড়াইলে খালে মাছ ধরা নিয়ে সংঘর্ষ, নারীসহ আহত ১২ মাস্ক না পরায় ৫১ জনকে জরিমানা করোনায় ‘ভুল গবেষণায়’ নড়বড়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা! কৃষ্ণাঙ্গকর্মী নিয়োগ দিতে নিজের পদ ছাড়লেন রেডিটের সহপ্রতিষ্ঠাতা 'হঠাৎ একটা পাক আইয়া আমার ঘরডারে কই জানি নিয়া গেছে' হাসপাতালে ভর্তি হলেন করোনা আক্রান্ত কামরান মরণব্যাধী কোলন ক্যান্সারের লক্ষণ ও প্রতিকার আকরামের সেরা ব্যাটসম্যানের তালিকায় সবার শেষে টেন্ডুলকার শ্বেতাঙ্গ আধিপত্যবাদী গোষ্ঠীর ২০০ অ্যাকাউন্ট সরাল ফেসবুক এডিস মশা নিধনে ডিএনসিসি'র চিরুনি অভিযান ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ভয়াবহ টর্নেডোতে একজনের মৃত্যু, মুহূর্তেই তছনছ ১০ গ্রাম (ভিডিও) বাগেরহাটে ভ্রাম্যমান মৎস্য ক্লিনিক চালু রোববার থেকেই ঢাকায় জোনভিত্তিক লকডাউন কক্সবাজারে রেডজোনেও নেই কোন স্বাস্থ্যবিধি চাঁদপুরে নমুনা সংগ্রহ করতে গিয়ে ৮ জন আক্রান্ত ক্রিকেট বন্ধ তবুও আয় থেমে নেই
আরও সংবাদ...
সাধারণ ছুটি আর বাড়ছে না করোনায় আক্রান্ত ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী 'লকডাউনে' যাচ্ছে সূর্য, সতর্কতা জারি নাসার দেশের ৮০ শতাংশ লোকের করোনা হবে: ড. বিজন যে ওষুধে ‘করোনায় সুস্থের হার বাড়ছে’ বাংলাদেশে ভারতকে নেপালের 'হুমকি', সীমান্তে সেনা মোতায়েন অফিস শুরুর তৃতীয় দিনে আক্রান্তের সর্বোচ্চ রেকর্ড, মৃত্যু ৩৭ শনাক্ত মৃত্যুতে নতুন রেকর্ড আজ অফিস খোলার প্রথম দিনেই সর্বোচ্চ মৃত্যু, শনাক্ত আড়াই হাজারের বেশি দেশে প্লাজমা থেরাপিতে একদিনেই বিস্ময়কর সাফল্য রোববার থেকেই ঢাকায় জোনভিত্তিক লকডাউন ৯ বছরের সংসার ভাঙল অভিনেতা অপূর্ব-অদিতির শাশুড়ির জন্য ১৫ বছর পর নাচলেন মিথিলা! (ভিডিও) পরিস্থিতি অনুকূল না হলে এইচএসসি পরীক্ষা নেয়া সম্ভব না: শিক্ষামন্ত্রী ভুল নম্বরে টাকা চলে গেলে ফেরত পাবেন যেভাবে কোনো হাসপাতাল নিল না, কুর্মিটোলায় ভর্তির পর অতিরিক্ত সচিবের মৃত্যু সহকর্মীরাই হত্যা করেন গাজীপুরের সেই প্রকৌশলীকে রাশিয়ায় নদীর পানি রক্তবর্ণ, জরুরি অবস্থা ঘোষণা দেশে নতুন আক্রান্ত ২৬৯৫, মৃত্যু বেড়ে ৭৪৬ দেশে সর্বোচ্চ আক্রান্তের দিনে ১৪ জনের মৃত্যু চারদিনেই সারবে করোনা, গবেষণায় সাফল্যের দাবি বাংলাদেশের সপ্তাহের শেষ কর্মদিবসে শনাক্ত আড়াই হাজার, মৃত্যু ৩৫ জনের সীমিত পরিসরে চলবে গণপরিবহন আজও শনাক্ত সহস্রাধিক, মৃত্যু ২১ জনের শনাক্ত দেড় সহস্রাধিক, মৃত্যু ২২ জনের শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তায় ধাপে ধাপে খোলা হবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান: প্রধানমন্ত্রী মানুষ যাতে খেয়ে-পরে বাঁচতে পারে সেজন্যই এই সিদ্ধান্ত: প্রধানমন্ত্রী শনাক্তের সব রেকর্ড ভাঙল আজ আম্পানের পর আসছে ঘূর্ণিঝড় 'নিসর্গ' দেশে আরও ২২ জনের মৃত্যু, আক্রান্ত ২৩৮১ বিশ্বজুড়ে আবারও ভয়ংকর রূপ নিচ্ছে করোনা একদিনে সর্বোচ্চ আক্রান্ত, মৃত্যু ১৪ জনের আক্রান্ত ছাড়াল ১৮ হাজার, মৃত্যু বেড়ে ২৮৩ রেকর্ড শনাক্তের দিন ২০ জনের মৃত্যু একদিনে আক্রান্ত ৯৬৯, মোট মৃত্যু ২৫০ করোনায় মৃতের সংখ্যা ৩০০ ছাড়াল বাংলাদেশে, নতুন আক্রান্ত ৯৩০ ঢাকায় যেসব মার্কেট খোলা থাকবে কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই চরম আকার ধারণ করবে ঘূর্ণিঝড় ‘আম্পান’ বৃদ্ধকে বিবস্ত্র করে পেটালেন যুবলীগ নেতা ২৫ হাজার বর্গ মাইল নতুন ভূমি যুক্ত হতে পারে বাংলাদেশে সাতদিনেই ১০ হাজার শনাক্ত, পরিস্থিতি যেতে পারে নিয়ন্ত্রণের বাইরে সাধারণ ছুটি আর নয়, হবে এলাকাভিত্তিক লকডাউন কম যাত্রী নিয়ে বাস চালাতে রাজি নয় পরিবহন কর্তৃপক্ষ শনাক্ত দেড় হাজারের বেশি, মৃত্যু ২৮ জনের করোনাজয়ীদের জন্য ‘দুঃসংবাদ’ ৬১ লাশ দাফন করা সেই কাউন্সিলর দিশেহারা হয়ে ছুটছেন স্ত্রীকে নিয়ে শনাক্ত ছাড়াল ৪০ হাজার, নতুন মৃত্যু ১৫ জনের ভ্যাকসিন ট্রায়ালের উদ্যোগ নিল বাংলাদেশ নাসিমের অবস্থা সঙ্কটাপন্ন দেশে আবারো সর্বোচ্চ আক্রান্ত, মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৩৮৬
আরও সংবাদ...


মেনে চলি

Contact Address

Nasir Trade Centre, Level-9,
89, Bir Uttam CR Dutta Road, Dhaka 1205, Bangladesh
Email: somoydigitalsomoynews.tv

Find us on

  Live TVEnglish DMCA.com Protection Status
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
উপরে