মামুন শেখ
আপডেট
০৫-১০-২০১৯, ১৭:৩২

‘লায়ন কিং’ ইমরান খান

‘লায়ন কিং’ ইমরান খান
‘আমার মনে আছে, যখনই আমি কোনো ম্যাচে ভালো করতাম বা ম্যান অব দ্যা ম্যাচ হতাম। সফর থেকে ফিরে সবার আগে আমার মায়ের কাছে যেতাম। কারণ, আমি তার অত্যন্ত আদরের ছিলাম। মা আমাকে সব সময় একটা কথাই বলতেন, ‘কখনো অহংকার করো না। আল্লাহ অহংকার পছন্দ করেন না। অহংকার মানুষের সবচেয়ে খারাপ গুণ।’ কিন্তু মানুষ আমাকে ভুল বুঝতো। আসলে আমি ছিলাম লাজুক। আমি অনেক ছোট পরিবেশে বড় হয়েছি। ওখান থেকে উঠে আমি ইংল্যান্ড চলে যাই। আমি মানুষের মধ্যে কমফোর্টেবল ছিলাম না। রেস্টুরেন্টে মানুষ আমাকে চিনে ফেললে আমি লজ্জা পেয়ে যেতাম। কিন্তু মানুষ সেটাকে মনে করতো অহংকার।’ এটা পাকিস্তানের জীবন্ত কিংবদন্তী ইমরান খানের নিজের বয়ান।

প্রথম জীবনের লাজুক ইমরান খান তার ক্যারিয়ারের সোনালী সময়ে লাখো তরুণীর হৃৎস্পন্দন ছিলেন। যে ইমরান একটা সময় তার একাদশের বাকি দশ সদস্যের সামনে নির্দেশনা দিতে লজ্জা পেতেন, তিনিই এখন জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে আগুনঝরা ভাষণ দিয়ে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে। তার কথায় বিমোহিত হয়ে পাকিস্তানিরা তাকে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর মর্যাদা।

কে এই ইমরান খান?

১৯৫২ সালের আজকের দিনে (০৫ অক্টোবর) লাহোরের এক ধনী পরিবারে জন্মগ্রহণ করন ইমরান খান। বাবা ইকরামুল্লাহ খান নিয়াজি ছিলেন সিভিল ইঞ্জিনিয়ার। মায়ের নাম শওকত খানম। চার বোনের একমাত্র আদরের ভাই ছিলেন ইমরান খান। তার বাবা পশতুন নিয়াজি গোত্রের। আর মা পশতুন বুরকি গোত্রের। ইমরান খানের নানার গোত্র জাভেদ বুরকি এবং মাজিদ খানের মতো বেশ কয়েকজন নাম করা ক্রিকেটার দিয়েছে।



সচ্ছল পরিবারে জন্ম নেয়া ইমরান খান বড় হয়েছেন বোন এবং পরিবারের অন্য সদস্যের আদরে। পড়াশুনা করেছেন নামিদামি স্কুলে। পরে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে রাজনীতি এবং অর্থনীতি বিষয়ে পড়াশোনা করেন। মেধাবী ছাত্র হলেও তার আগ্রহ ছিল মূলত খেলাধুলায়।

ইমরান খানের কিংবদন্তী ক্রিকেট ক্যারিয়ার এবং রঙিন ব্যক্তিগত জীবন তাকে সব সময় লাইমলাইটে রেখেছে। একই সঙ্গে তিনি কোটি কোটি ভক্তের ভালোবাসা এবং আকর্ষণ অর্জন করেছেন। তবে তিনি শুধুমাত্র একজন হেয়ালি ক্রিকেট তারকার চেয়ে অনেক বড় কিছু।

বৈবাহিক জীবন:

ইমরান খানের প্রোফাইল অপূর্ণই থেকে যাবে যদি তার বৈবাহিক জীবনের দিকে না তাকানো হয়। ক্রিকেট মাঠে পেস বোলার ইমরান খানের রান আপের সময় তার ঝাঁকড়া চুলে ফিদা হননি ওই সময় এমন তরুণী সারা পৃথিবীতে কম ছিল। তারপরেও জীবনের ৪২টি বছর তিনি ব্যাচেলর হিসেবে কাটিয়েছেন। কিন্তু তার পরের ২৪ বছরে তিন তিনটি বিয়ে করেছেন। তার প্রথম স্ত্রী জ্যামাইমা গোল্ডস্মিথ। যিনি ছিলেন ইহুদী বিলিয়নিয়ারের মেয়ে। যদিও ইমরানকে বিয়ে করার জন্য নিজের ধর্ম ছেড়ে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছিলেন জ্যামাইমা। পরে তাদের বিচ্ছেদ হয়ে যায়।



ওই ঘরে ইমরান খানের দুই ছেলে এখন তাদের মায়ের সঙ্গে থাকেন।



এরপর বিয়ে করেন রেহাম খানকে। যিনি একজন সাংবাদিক এবং চলচ্চিত্র প্রযোজক। তাদের সংসারও ছিল অল্প দিনের। আর বর্তমানে তিনি সংসার করছেন বুশরা মানেকার সঙ্গে। এই নারীকে আধ্যাত্মিক উপদেষ্টা হিসেবে নিজেই বর্ণনা করেছিলেন ইমরান খান। ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারিতে বিয়ে করেন তারা।

ক্রিকেটে ‘ডাবল পিএইচডি’ অধিনায়ক:

তার শুরুটাও হয়েছিল তেমনই, যেমনটি অন্য সব গ্রেটদের হয়। একেবারে ছোটবেলা থেকেই ক্রিকেট শুরু করেছিলেন ইমরান খান; প্রথমে পাকিস্তানে এবং পরে ইংল্যান্ডে। এমনকি আজো, অবসরের ২৫ বছর পরেও তাকে সর্বকালের সেরা ক্রিকেটারদের একজন বিবেচনা করা হয়। তিনিই পাকিস্তানকে তাদের একমাত্র বিশ্বকাপটি জিতিয়েছিলেন; ১৯৯২ সালে।



১৩ বছর বয়সে ক্রিকেটের হাতেখড়ি হওয়া ইমরান জাতীয় দলের হয়ে খেলেন ১৮ বছর বয়সে; ১৯৭১ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে। এরপর অক্সফোর্ডে পড়াশোনার পাঠ চুকিয়ে দেশের মাটিতে তার অভিষেক হয় ১৯৭৬ সালে। ১৯৯২ সালে বিশ্বকাপ জয়ের পর ক্রিকেটকে যখন বিদায় বলেন তখন তার নামের পাশে ৮৮ টেস্টে ৩৬২ উইকেট এবং ৩ হাজার ৮০৭ রান। ১৭৫ ওয়ানডেতে ১৮২ উইকেট এবং ৩ হাজার ৭০৯ রান।



‘আমি যখন প্রথম টেস্ট ম্যাচ খেলি, টেনশনে সারারাত ঘুমাতে পারিনি। আমার টার্গেট ছিল ওই ম্যাচে আমি সেঞ্চুরি করবো এবং ১০ উইকেট নিবো। কিন্তু ম্যাচে খুব খারাপ করি। এরপর আমাকে তারা বাদ দিয়ে দেয়, রসিকতা করতে শুরু করে। আর যখন সফর শেষ হয় তখন সবাই ভাবছিল যে, এবার এর ক্যারিয়ার শেষ। আমি তখন নিজের মনে মনে নোট করি, আমার ভুলগুলো কি কি। আমি সেরা ক্রিকেটারদের দেখি তারা কীভাবে ভালো করছে। তিন বছর লেগেছে আমার টিমে ফিরতে। তখন আমি টার্গেট ঠিক করি। আমার প্রথম টার্গেট ছিল, পাকিস্তান দলের সেরা অলরাউন্ডার হবো এবং সেরা ফাস্ট বোলার হবো। আমি যখন বিশ্ববিদ্যালয় শেষ করি তখন ২২ বছরের ছিলাম। এর এক বছরের মধ্যেই আমি দলের সেরা অলরাউন্ডার বনে যাই। আমার পরের টার্গেট ছিল, আমি পৃথিবীর সেরা অলরাউন্ডার হবো। আমি কঠোর পরিশ্রম শুরু করি। তখন পৃথিবীর সেরা অলরাউন্ডার ছিল চারজন। তাদের সঙ্গে মোকাবেলা শুরু হয়ে যায়।’ এক সাক্ষাৎকারে বলছিলেন ইমরান খান।

তার অধিনায়কত্বে পাকিস্তান ক্রিকেট সোনালী যুগ দেখে; সব জায়গায় সফল হয়।

‘অধিনায়কত্বের সবচেয়ে বড় যে বিষয়টা হওয়া উচিৎ সেটা হলো সামনে থেকে নেতৃত্ব দেয়া, নিজের উদাহরণ দিয়ে দলকে চালানো। যখন একজন অধিনায়ক জান বাজি রেখে শেষ বল পর্যন্ত লড়াই করে তখন পুরো টিম তার সঙ্গে দাঁড়িয়ে যায়।’

পাক-ভারত ক্রিকেট দ্বৈরথেও রং ছড়িয়েছেন ইমরান খান। ১৯৮৬-৮৭ সালে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীর ঘরের মাটিতে গিয়ে নাস্তানাবুদ করে ফেরেন ইমরান খান, যা পাকিস্তান ক্রিকেটের ইতিহাসে আজো ঝলমলে। ওই সিরিজের ইমরান খানের কিছু সিদ্ধান্ত প্রমাণ করে তাকে কেনো ক্রিকেটের ‘ডাবল পিএইচডি’ বলা হয়।

ব্যাঙ্গালোর টেস্টে ভারতকে হারিয়ে সিরিজ জেতে পাকিস্তান। ওই ম্যাচে ইমরান সবাইকে অবাক করে দিয়ে নিজের বন্ধু এবং পছন্দের বোলার আব্দুল কাদেরকে বাদ দেন। ম্যাচের আগের দিন এই সিদ্ধান্তের ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে ইমরান খান বলেন বলেন, ‘আমার মনে হয় এই ম্যাচ খুবই ক্লোজ ম্যাচ হবে এবং অল্প ব্যবধানে দল জিতবে। কাদের যেহেতু লেগব্রেক বোলার তাই রান বেশি দিবে।’

তার জায়গায় ইকবাল কাসিম এবং তৌসিফ আহমেদকে দলে নেন। এ দুজনই দলকে জেতানোয় বড় ভূমিকা পালন করেন। এবং ম্যাচের শেষ দিনে কঠিন লড়াইয়ের পর ১৪ রানের জয় পায় পাকিস্তান।

‘এক একটা প্লেয়ারের তুলনা করলে ভারত আমাদের থেকে ভালো টিম ছিল। ভারতের মাটিতে ভারতকে হারানো..., তার ওপর আবার তারা স্পিন পিচ বানিয়ে দেয়। তো আমি বোলিংয়েও তাদের হারাতে পারবো না। ব্যাটসম্যান হিসেবে আমি ম্যান অব দ্যা সিরিজ হই।’

নিজেদের গ্রেট হিসেবে প্রমাণ করার জন্য নিজে নিজেই একটা মানদণ্ড ঠিক করে রেখেছিলেন ইমরান খান। তিনি ঠিক করে রেখেছিলেন, ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, ভারত এবং সব দলকে তার দেশে গিয়ে হারাবেন।

ইমরান খান বলেন, ‘আমি যদি আমার ক্রিকেট ক্যারিয়ারের মাইলস্টোন দেখি তাহলে ১৯৭৬ সালে অস্ট্রেলিয়া সফর ছিল এবং তারপর ওয়েস্ট ইন্ডিজে যাই। ওই সময় এ দুদল ছিল বিশ্বের সেরা দল। আমি যে সিরিজগুলো খেলেছি তার মধ্যে এই দুই সিরিজ ছিল সবচেয়ে কঠিন। ১৫ বছর পর আমার টিম প্রথম ওয়েস্ট ইন্ডিজের মাটিতে গিয়ে তাদের হারিয়ে আসে। এই দুই সিরিজ আমার ক্রিকেট ক্যারিয়ার উপরে নিয়ে যায়।’

আর অবসর ভেঙে ক্রিকেটে ফিরে ১৯৯২ সালে দেশকে বিশ্বকাপ জিতিয়ে কিংবদন্তী বনে যান ইমরান খান।

বিশ্বকাপ হাতে নিয়ে ইমরান বলেছিলেন, ক্যারিয়ারের গোধূলীলগ্নে বিশ্বকাপ হাতে নিয়ে আমি গর্বিত।

রাজনীতিতে চড়াই উৎরাই:

ক্যারিয়ারের স্বর্ণ-শিখরে থাকা অবস্থায় তিনি ক্রিকেট থেকে অবসরে চলে যান এবং চার বছর পর রাজনীতির মাঠে নেমে পড়েন। গঠন করেন নিজের দল পাকিস্তান তেহরিক-ই ইনসাফ। কিন্তু ক্রিকেটে তার জনপ্রিয়তার পুরোপুরি অনুবাদ হয়নি রাজনীতিতে। অন্তত সঠিক পন্থায় হয়নি। ১৯৯৭ সালে যখন তিনি প্রথম নির্বাচনে অংশ নেন তার দল একটি আসনেও জিততে পারেনি। নিজেও জামানত হারান তিনি।

অথচ নিচের দল গড়ার আগের দুই দুই বার তখনকার প্রতিষ্ঠিত রাজনৈতিক দলের কাছ থেকে অফার পেয়েছিলেন ইমরান খান। বিশ্বকাপ জিতে ফেরার পর তখনকার প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ সংবর্ধনা পার্টির আয়োজন করেন। সেখানে অস্ট্রেলিয়ার সাংবাদিক রিচার্ডক ইমরান খানের সামনে নওয়াজকে রসিকতা করে প্রশ্ন করেন, এত জনপ্রিয় একজনকে আপনার দলে টানেন না কেনো? জবাবে নওয়াজ শরীফ ইমরান খানের পিঠ চপড়ে বলেন, আরো দুই বছর আগে আমি তাকে অফার দিয়েছি। কেনো জানি না সে রাজি হয়নি। আমার অফার এখনো আছে। ইমরান নিজের পথ নিজেই বেছে নিয়েছেন। আর দুই দশক পর সেই নওয়াজ শরীফের সবচেয়ে বড় রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বী ইমরান খান।

মধ্য-ডানপন্থী রাজনীতি বেছে নেন ইমরান খান। কিন্তু তার রাজনৈতিক পথ নিয়ে বেশিরভাগ মানুষই দ্বিধার মধ্যে ছিলো। কারণ, তিনি সভা-সমাবেশগুলোতে উপস্থিত শ্রোতাদের বিবেচনা করে  ক্ষণে ক্ষণে তার মত বদলাচ্ছিলেন। তার দল তরুণদের মধ্যে ভালো সাড়া ফেলতে সক্ষম হয়েছিল। এছাড়া শহুরে মধ্যবিত্তদেরও নাড়া দিয়েছিল। তারা তিনটি নির্বাচনে অংশ নিয়ে ধীরে ধীরে মোটামুটি একটি রাজনৈতিক শক্তি হিসেবে আবির্ভূত হয়। সন্ত্রাসবাদ এখনো পাকিস্তানের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ। আর এই সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে ইমরান খান অভিনব পন্থায় নামেন। হাজারো সমালোচনার পরেও তিনি তালেবানের সঙ্গে আলোচনার কথা বলেন। এজন্য তাকে ‘তালেবান খান’ নামেও ডাকতে ছাড়েননি তার বিরোধীরা।

এক সাক্ষাৎকারে ইমরান খান বলছিলেন, আফগানিস্তানে ‘শান্তি’ ফিরলে পাকিস্তানের লাভ। এখন আমরা কীভাবে শান্তি আনতে পারি। আমার মত হয়- যুক্তরাষ্ট্র যা করেছে তা একেবারেই ভুল। তারা শুধুই মিলিটারি ফোর্স ব্যবহারের পলিসি নিয়েছে।

খায়বার পাখতুন খাওয়া প্রদেশে তার দল সরকার গঠনের পর প্রতিশ্রুতির অনেক কিছুই পূরণ করতে পারেনি। কিন্তু শিক্ষা এবং স্বাস্থ্য ব্যবস্থায় দৃশ্যমান সংস্কার হয়েছিল।

ক্রিকেটার ইমান খানের ক্রেজ তখন শুধু পাকিস্তানই নয়, ছিল পুরো বিশ্বে। বিশ্বকাপ নিয়ে দেশে ফেরার পর লাখ লাখ পাকিস্তানি বিমানবন্দরে তাকে রিসিভ করতে যান। ২০১৮ সালে এক নির্বাচনী জনসভায় ইমরান খান বলেছিলেন, বিশ্বকাপ জিতে আসার পর জনগণের ভালোবাসা দেখে আমি চিন্তা করেছিলাম, এই ভালোবাসার প্রতিদান দিতে হবে। এই ভালোবাসার বিপরীতে একটা বিশ্বকাপ কিছুই না। এজন্যই আমি রাজনীতিতে এসেছি। মানুষের জন্য কিছু করার জন্য।’

ওই ভাষণে তিনি আরো বলেছিলেন, আমি ছোট বেলায় মায়ের সঙ্গে স্কুলে যাওয়ার সময় দেয়ালে তারকা ক্রিকেটারদের ছবি দেখে ভাবতাম একদিন বিশ্বসেরা ক্রিকেটার হবো। আমি পরিশ্রম করেছি এবং আল্লাহর কাছে চেয়েছি। আল্লাহ আমাকে বিশ্বসেরা ক্রিকেটার বানিয়েছেন। আমার মা ক্যান্সারে মারা যাওয়ার পর আমি দেশের সেরা ক্যান্সার হসপিটাল বানাতে চেয়েছি। আমার কাছে অত অর্থ ছিল না। আল্লাহর রহমতে আমি সেটাও করেছি। আমি পাকিস্তানের জন্য কিছু করার জন্য প্রধানমন্ত্রী হতে চেয়েছি। এজন্য পরিশ্রম করছি। আল্লাহ নিশ্চয়ই আমার চাওয়া পূরণ করবেন।’



পাকিস্তানে আগে থেকেই রাজনৈতিক দলগুলো প্রতিষ্ঠিত ছিল। আর তাই জনগণের মধ্যে নতুন করে জায়গা করে নেয়া সহজ ছিলো না। প্রথম নির্বাচনে অংশ নিয়ে ইমরান খান বিষয়টি হাড়ে হাড়ে টের পান।

‘১৪ বছর পর আমার মনে হতে লাগলো, জনগণ আমার কথা শুনতে শুরু করেছে। মানুষের আমাদের সমাবেশে আসতে শুরু করে। আমার দল বড় হতে থাকে। শুধু লোক জড়ো করলেই তো হয় না। আমার বানাতে হচ্ছিলো নির্বাচনে জেতার মতো একটা দল।’ বলছিলেন ইমরান খান।

এজন্য ইমরান খানের মোক্ষম অস্ত্র হয়ে দাঁড়ায় পাকিস্তানের রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে জলের মতো ছড়িয়ে পড়া দুর্নীতি। তিনি এই দুর্নীতির বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেন। যা মধ্যবিত্তের মধ্যে দারুণ জনপ্রিয়তা পায়।

সরকার পরিচালনা এবং কূটনীতিতে তিনি খুব একটা অভিজ্ঞ নন। কিন্তু নিজের পথে তিনি অত্যন্ত আত্মবিশ্বাসী। তিনি বলেন, পাকিস্তান থেকে দুর্নীতি ধুয়ে মুছে দিবেন, বিদেশি বিনিয়োগ আনবেন এবং তরুণদের জন্য চাকরির ভালো সুযোগ তৈরি করবেন। এছাড়া কৃষি এবং শিক্ষা ব্যবস্থায় বদলে দেয়ার প্রতিশ্রুতিও দিয়েছেন ইমরান খান। ট্যাক্স আদায়ের খাত আরো বিস্তৃত করতে চান।

ইমরান খানের দলের নির্বাচনী ইশতেহারে অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তার বিষয়টিও গুরুত্ব পেয়েছে। সংখ্যালঘুদের বিরুদ্ধে বিদ্বেষমূলক বক্তব্য এবং সহিংসতার বিরুদ্ধে কাজ করা এবং তাদের সাংবিধানিক অধিকার নিশ্চিতের কথা বলা আছে এতে।

২০১৭ সালে দুর্নীতির দায়ে পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী এবং পাকিস্তান পিপলস পার্টির দেশটির সবচেয়ে জনপ্রিয় নেতা প্রধান নওয়াজ শরীফের রাজনীতির মাঠ হাতছাড়া হয়ে যায়। এতে তিনি দশ বছরের শাস্তি ভোগ করছেন। যা তখনকার বিরোধী নেতা ইমরান খানকে শক্তিশালী অবস্থানে নিয়ে আসে। নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্ঠ আসনে জয়লাভ করে তার দল। ২২ গজের অধিনায়ক রাজনীতি শুরু ২২ বছর পর পাকিস্তানের ২২তম প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন।

পাকিস্তানের কোনো রকস্টার নেই। তবে তাদের আছে ইমরান খান। তারকা ক্রিকেটার, প্লেবয় এবং রোল মডেল। বর্তমানে প্রধানমন্ত্রী। সন্ত্রাসে জর্জরিত দেশটির অর্থনীতি খাদের কিনারে। নিরাপত্তার অভাবে বিদেশি বিনিয়োগ আসছে না। রাষ্ট্রীয় ঋণের বোঝা বেড়েই চলেছে। দ্রব্যমূল্যের দাম আকাশ ছুঁতে চলেছে। জনগণের মধ্যে হতাশা বাড়ছে। তারপরেও আশা একটাই- ইমরান খান। হার না মানা লায়ন কিংয়ের ভরসায় দেশটির জনগণ।



DMCA.com Protection Status

এই বিভাগের সকল সংবাদ
করোনা ভাইরাস লাইভ আপডেট
আক্রান্ত চিকিৎসাধীন সুস্থ মৃত্যু
৩৯৭৫০৭ ৭৮১৬৪ ৩১৩৫৬৩ ৫৭৮০
বিস্তারিত
স্টোকস ঝড়ে উড়ে গেল মুম্বাই ঢাকার যেসব স্থানে সোমবার যাবেন না ইতিহাসের এই দিনে মসজিদে বিস্ফোরণ: দুর্ঘটনায় দায় এড়াতে পারে না তিতাস স্পেনে ফের কারফিউ-জরুরি অবস্থা প্রেমের প্রস্তাবে রাজি না হলে ঢাবি শিক্ষার্থীদের ধর্ষণের হুমকি বিশ্বব্যাপী করোনার তাণ্ডবে মৃত্যু ছাড়াল ১১ লাখ ৫৯ হাজার টিভিতে আজকের খেলা বৃশ্চিকের রহস্যজনক কাজে অগ্রগতির দিনে চাকরির সুযোগ মেষের সারাদেশে প্রাথমিক শিক্ষকদের বদলি বন্ধ সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের শারীরিক অবস্থার আরও অবনতি তথ্যগত বিভ্রান্তির কারণে সংবাদটি প্রত্যাহার করা হয়েছে কানাডায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে উদযাপিত হয়েছে দূর্গা উৎসব তরুণদের পারফরম্যান্সে মুগ্ধ মুশফিক-মাহমুদউল্লাহ সফলভাবে প্রেসিডেন্টস কাপ শেষে স্বস্তিতে বিসিবি সভাপতি প্রথমবারের মতো ভারোত্তলনে অংশ নিবে ইরানের মেয়েরা মুন্সিগঞ্জের ফুটবল ঐতিহ্য ফেরাতে ক্ষুদে ফুটবলারদের চেষ্টা বাংলাদেশ-নেপাল ফুটবল ম্যাচ দেখার সুযোগ পাবেন দর্শকরা প্রেসিডেন্স কাপের ফাইনাল দেখতে ক্রিকেটপ্রেমীদের ভিড় টুর্নামেন্টে তরুণদের পাশাপাশি বোর্ডের নজর কেড়েছে পেসাররাও পরমাণু অস্ত্রমুক্ত হবার পথে বিশ্বে ‘নতুন অধ্যায়’ শুরু হচ্ছে কোন দেশের কাছে কত পরমাণু অস্ত্র রয়েছে? কুমিল্লায় ধর্ষণে প্রতিবন্ধী কিশোরী অন্তঃসত্ত্বা, মামলা দায়ের ধর্ষণের অভিযোগ থেকে বাঁচতে ভুয়া বিয়ে, গ্রেফতার ৩ ধোনির সঙ্গে পারলেন না কোহলি অনুদানের সিনেমা নিয়ে অনিয়ম, নির্মাতা গ্রেফতার ফিটনেসের লড়াইয়ে ফুটবলাররা প্রেসিডেন্টস কাপের সেরা যারা বিশ্বব্যাপী প্রতি ৪ জনে একজন স্ট্রোকের ঝুঁকিতে ‘বাংলাদেশের মানুষের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা অনেক বেশি’ ‘বিহারী লাল শিকদার’ নৌকাবাইচ ৪ নভেম্বর চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা নিয়ে উপাচার্য ও রেজিস্ট্রারের ভিন্ন বক্তব্য রোহিঙ্গা ইস্যুতে গাম্বিয়াকে সহযোগিতা করতে মিশরের প্রতি আহবান এবার এরদোয়ানের ছবি ব্যঙ্গ, কড়া জবাব তুরস্কের জায়েদ খানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিল প্রযোজক সমিতি ব্যাংক হিসাব থেকে বিকাশে টাকা নিলে ‘উপহার’ প্রেসিডেন্টস কাপের ‘প্রেসিডেন্ট’ মাহমুদুল্লাহ সরাসরি ভর্তি পরীক্ষা নেবে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ফ্রান্সের বিরুদ্ধে কড়া বক্তব্য বাবুনগরীর ইউরোপের চার দেশ থেকে ব্যবসা গুটিয়ে নিচ্ছে গ্যাপ সাইবার নিরাপত্তা নিশ্চিতে আ.লীগের ওয়েবিনার ২৮ অক্টোবর ফ্রান্সের ইসলামবিরোধী কর্মকাণ্ডে ‍মুসলিমবিশ্বে প্রতিবাদের ঝড় বন্ধ হচ্ছে অবৈধ মোবাইল হ্যান্ডসেট কোম্যানের মূল সমস্যা এখন মেসি! মোহনগঞ্জে গৃহবধূকে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা, গ্রেফতার ১ মৃত ৯১ শ্রমিকের পরিবারকে ১ কোটি ৮২ হাজার টাকা সহায়তা ২০২১ সালের সরকারি ছুটির তালিকা চূড়ান্ত ৪৫ লাখ টাকা ছিনতাই করে কক্সবাজার ভ্রমণ, পুলিশ ধরল যেভাবে ঢাকা থেকে তিন রুটে বিমানের ফ্লাইট চালু হচ্ছে ভুলেও যেসব অ্যাপ ইনস্টল করবেন না মিঠামইনে সিলিন্ডার বিস্ফোরণ: ৪ সদস্যের তদন্ত কমিটি গাছের সঙ্গে ধাক্কা লেগে ভ্যানচালক নিহত মহানবী (স.) কে কটূক্তি: ফ্রান্সের ওয়েবসাইটে বাংলাদেশি হ্যাকারদের হামলা রামপাল বিএনপির মতবিনিময় সভা কঙ্গনার সঙ্গে অশোভন আচরণ করায় ৯ সাংবাদিক নিষিদ্ধ ফ্রান্সের বিরুদ্ধে মুখ খুললেন ইমরান খান ফেসবুকে সেনা প্রধানের কোনো আইডি নেই রংপুরে ৩০ টাকা কেজি দামে আলু বিক্রি শুরু হাত-পা-মুখ বাঁধা সেই কিশোরীকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়: র‍্যাব ২ হাজার কোটি টাকা খরচ করেও গোলের দেখা নেই! ‘অভিনয়’ নিয়ে আসছেন নোবেল ধামরাইয়ে বাঁশঝাড়ে কৃষকের রক্তাক্ত মরদেহ চট্টগ্রাম সেনাবাহিনীর কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠিত দেখতে দেখতে বিদায়ের ক্ষণ উপস্থিত ঢাবি অধ্যাপক জিয়ার রহমানের বিরুদ্ধে মামলা রংপুরের অযোদ্ধাপুরে পরকীয়ার জেরে খুন মেঘনায় জেলেদের হামলায় ২০ নৌ-পুলিশ আহত মুন্সীগঞ্জে মাদক কারবারি ৭ রোহিঙ্গাসহ গ্রেফতার ৮ অবশেষে সাংবাদিকদের সামনে কথা বললেন রাবি উপাচার্য পরকীয়ায় মাকে বিয়ে, খুন কুমিল্লায়, লাশ চট্টগ্রামে শিগগিরই ওমানের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিকের চুক্তি: ইসরাইল ল্যাপটপ-প্রিন্টার পাচ্ছেন এমপিরা গাঁজাসহ অভিনেত্রী গ্রেফতার রায়হান হত্যা: পুলিশ কনস্টেবল টিটু আবার রিমান্ডে আবারও সরকারবিরোধী বিক্ষোভে উত্তাল ইরাক (ভিডিও) ‘সরকার সাংবাদিকদের কোনো ধরনের বাধা দেয় না’ দেশে ফিরেছে নৌবাহিনীর যুদ্ধজাহাজ ‘বিজয়’ এফএটিএফ-এর নজরদারিতে পাকিস্তান আল কায়েদার জ্যেষ্ঠ নেতা আবু মুহসিন আফগানিস্তানে নিহত এবার ফ্রান্সের বন্দরের গুদামে ভয়াবহ আগুন নতুন ৪৩ পণ্যকে মান সনদের আওতাভুক্ত করল বিএসটিআই দিরিলিসের অজানা ১০ বিস্ময়কর তথ্য খাবিব: পুরো ক্যারিয়ারে একবারও হারেননি যিনি রাজশাহীর পাঁচ জেলায় নতুন ২৬ জনের করোনা শনাক্ত স্যামসাং-এর চেয়ারম্যান মারা গেছেন অনশন প্রত্যাহার করলেন রায়হানের মা নোয়াখালীতে চুরিতে বাধা দেয়ায় ব্লেড দিয়ে মাদ্রাসাছাত্রকে নির্যাতন মার্কিন নির্বাচনে প্রচারণায় ব্যস্ত প্রবাসী বাংলাদেশিরা দুর্গার ফেরার সময় ঘনিয়ে আসায় বিষাদের সুর মাস্ক না পরলে সকল প্রতিষ্ঠানে সেবা বন্ধের নির্দেশ মর্ডানা-ফাইজার দুটি ভ্যাকসিনই নিরাপদ, আশা গবেষকদের ‘মিল মালিক, পাইকার ও ফড়িয়ারা নানা রকম ষড়যন্ত্রে লিপ্ত’ শক্তির জানান দিল ইরান (ভিডিও) সেন্টমার্টিন থেকে ফিরেছে ২ শতাধিক পর্যটক চীনকে রুখতে সীমান্তে ৪৭টি সেনা ঘাঁটি ভারতের বৃদ্ধাকে পাঁচ টুকরো: তিন আসামি রিমান্ডে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের খসড়ার চূড়ান্ত অনুমোদন ইসরাইলের সঙ্গে চুক্তি: সুদানে নতুন যুদ্ধের শঙ্কা নাটোরে ৭০ কেজি জাটকা জব্দ জার্মানির দুর্গাপূজায় করোনামুক্তির প্রার্থনা
আরও সংবাদ...
দেশে বেড়েছে করোনায় আক্রান্ত, কমেছে মৃত্যু চেতনানাশক খাইয়ে ১৫ দিন ছাত্রকে বলাৎকার, মাদ্রাসাশিক্ষক আটক কমলো পেঁয়াজের দাম শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সাপ্তাহিক ছুটি ২ দিন করোনার ভ্যাকসিন বানাতে প্রাণ যাবে লাখ লাখ হাঙরের নোয়াখালীতে গৃহবধূকে বিবস্ত্র করে নির্যাতন, ভিডিও ভাইরাল বিশ্বে করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা ১১ লাখ ছুঁই ছুঁই ৫২ কেজির ভোলা ভেটকি ধরে রাতারাতি ধনী বৃদ্ধা! ফাঁসির রায়ের পর টাকা চাইলেন রিফাত, হাসলেনও দেশে টিকটক-লাইকি ঘিরে সুইমিং পার্টি, আড়ালে দেহ ব্যবসা (ভিডিও) তিন টাকায় ১ জিবি ইন্টারনেট! চার শিশুর বিরুদ্ধে ধর্ষণের মামলা! বিকাশে ১০০০ টাকা ক্যাশব্যাক পাবেন যেভাবে! ৪০ বছরেও যোগ্য বর না পাওয়ার কষ্টে নায়িকা পপি নামাজরত মাকে কুপিয়ে হত্যা করল ছেলে আবারো বিয়ে করলেন শমী কায়সার যুবকের পেটের ভেতর আস্ত মোবাইল! বখাটেদের পায়ে ধরে ‘বড় ভাই’ ডেকেও রক্ষা পাননি তরুণী (ভিডিও) চেক লেনদেনের নতুন নিয়ম সবচেয়ে কম দামে স্মার্টফোন আনল স্যামসাং কলেজছাত্রীকে ধর্ষণের পর ছবি ফেসবুকে সকল কলেজ ক্যাম্পাসের জন্য নতুন নির্দেশনা জারি শাহরুখকে টপকে গেলেন এরতুগ্রুল! সমুদ্রে জীবিত মিলল দুবছর আগে হারিয়ে যাওয়া নারী (ভিডিও) তিশা-ইরফানসহ ৪ জনকে আইনি নোটিশ রায় শুনে যা করলেন পাপিয়া রোববার গ্যাস থাকবে না যেসব এলাকায় ‘মগজ-খেকো’ প্রাণী ধেয়ে আসছে যুক্তরাষ্ট্রে, ৮ শহরে সতর্কতা শমী কায়সারের স্বামীর পরিচয় ১২টি তালা ভেঙে সন্তানসহ গৃহবধূকে উদ্ধার ওএসডি হলেন সেই ইউএনও ওয়াহিদা, স্বামীকেও বদলি পাক-ভারত সীমান্তে তুমুল লড়াই চলছে বিমানেই প্রসব, ফ্রি যাতায়াতের সুবিধা আজীবন দাঁতে পানের দাগ পড়েছে, মিনিটেই হবে ঝকঝকে ধর্ষণ মামলা: ‘মেয়েটির সঙ্গে মাত্র একবার কথা হয়েছিল’, বললেন ভিপি নুর ধর্ষণ করেন মামুন, সহায়তাকারী নুর: ঢাবি ছাত্রী নর্দমায় আটকে থাকা দৈত্যাকার ইঁদুর উদ্ধার! (ভিডিও) মুমূর্ষু স্বামীর জন্য রক্ত দেয়ার কথা বলে স্ত্রীকে ধর্ষণ এইচএসসি নিয়ে মন্ত্রীর কাছে ১৩ লাখ শিক্ষার্থীর পক্ষে নিবেদন আল্লামা শফীর জানাজার সময় ও স্থান মিন্নির ২১ যুক্তি মা হচ্ছেন পিয়া আনুশকাকে রশিদ খানের স্ত্রী দেখাচ্ছে গুগল! আমার চলচ্চিত্রের ক্যারিয়ার ধ্বংস করেছেন অপু বিশ্বাস: মারুফ অভিনেতা দিলদারের মেয়ের বিয়ের ভিডিও ভাইরাল ধর্ষণের ভিডিও করে জিম্মি: ‘যখন ডাকব তখনই আসতে হবে’ কুটনামি না থাকায় বন্ধ হচ্ছে 'কাদম্বিনী' সিরিয়াল দেশের প্রথম ডিজিটাল রোডক্রস মিরপুরে এবার সুশান্তের বিরুদ্ধেই অভিযোগ তুললেন রিয়া দেশে ভাইরাল বিদেশি যুগলের ছবি
আরও সংবাদ...


মেনে চলি

Contact Address

Nasir Trade Centre, Level-9,
89, Bir Uttam CR Dutta Road, Dhaka 1205, Bangladesh
Email: somoydigitalsomoynews.tv

Find us on

  EnglishLive TV DMCA.com Protection Status
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
উপরে