জাহিদুল ইসলাম রিফাত
আপডেট
১৭-০৩-২০১৮, ১৫:২০

‘সাফল্য অর্জনে শর্টকাট নেই’

‘সাফল্য অর্জনে শর্টকাট নেই’
সফলতা কোনো বস্তু বিশেষ নয়। একে ধরা বা ছোঁয়া যায় না। অনেক কাজের যোগফলেই আসে সফলতা। আমরা সফল হতে চাই। কিন্তু কষ্ট করতে চাই না। দেরিও সহ্য হয় না। বিশেষত বর্তমান প্রজন্মের কোনকিছুর প্রতিই যেন আগ্রহ নেই। জানার কৌতূহল এবং শেখার তীব্র আকাঙ্ক্ষাও কমে যাচ্ছে। আমাদের সঠিক জ্ঞান না থাকা সত্ত্বেও বুদ্ধিমান হিসেবে উপস্থাপনের চেষ্টা করে যাই। রাখঢাক করে সত্যকে মিথ্যা হিসেবে অভিহিত করি। কোনরকমে শিক্ষাজীবন শেষ করে, জ্ঞান অর্জনের ইতি টেনে, দ্রুত অর্থবিত্ত লাভের প্রতিযোগিতায় নেমে যাই।

সাফল্য মানে আনন্দ। সবচেয়ে বড় আনন্দ সৃষ্টির মাধ্যমে আনন্দ। যিনি সৃষ্টি করেন, তিনিই এই আনন্দ অনুভব করতে পারেন। আমরা জন্মলাভ করি সৃষ্টির মাধ্যমে। বৈধভাবে এই সৃষ্টির জন্য দরকার বিবাহিত জীবন এবং নারী-পুরুষের শারীরিক মিলনের আনন্দ। এই আনন্দ লাভের জন্য তো আমরা কখনো শর্টকাট খুঁজি না! বরং কিভাবে দীর্ঘ সময় এই আনন্দ উপভোগ করা যায়, তার অনুসন্ধান করি। দরকার হলে, পর্যাপ্ত অর্থব্যয় করতেও কার্পণ্য করি না!

বর্তমান বাস্তবতা:

পেশাজীবী, শিক্ষিত বেকার এবং তরুণ প্রজন্মের বেশিরভাগই প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা শেষে, আর কোনকিছু পড়ার দরকার আছে বলে মনেই করি না। এমনকি প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষাক্রমের বইগুলোও পরিপূর্ণভাবে পড়ি না। পাস করার এবং সার্টিফিকেটের জন্য বিশেষ বিশেষ অংশ কোনমতে পড়ি। পড়াশোনার গভীরে যাই না। বর্তমানে এসব বিষয় চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দেয়ার, বলার, জানানোর এবং শেখানোর মানুষের অভাব। অথবা প্রয়োজনই মনে করছি না। শিক্ষকরাও শিক্ষার্থীদের সাজেশন নামের (পড়াশোনার সারাংশ) বস্তুটি নিজ হাতে ধরিয়ে দেন। যে শিক্ষকের সাজেশন থেকে পরীক্ষার প্রশ্নপত্রে বেশি আসে, সেই শিক্ষকের দাম ও সুনাম তত বেশি! আয় রোজগারও বেশি। আবার অনেকেই শিক্ষাক্রমের বাইরে কোনো বই পড়ি না। তাই পারিপার্শ্বিক জীবন-জগতকে জানতে পারি না। অর্থাৎ সর্বস্তরে পাঠাভ্যাস ক্রমাগত কমছে। অথচ বই-ই একমাত্র সঙ্গী যা কখনো ঠকায় না। বই আমাদের থেকে নেয় না, দেয়। একই সঙ্গে আমাদেরকে বিকশিত করে। যার মাধ্যমে আমরা নানা ধরনের জ্ঞান ও অভিজ্ঞতা অর্জন করি।


আরও আশ্চর্যের ব্যাপার, অনেকেই প্রতিদিন দৈনিক পত্রিকাও পড়ি না। অথচ একটি দৈনিক পত্রিকা প্রতি সপ্তাহে জীবন-জগত ও পৃথিবীর প্রায় সব ধরনের বিষয়বস্তু নিয়ে প্রাথমিকভাবে হলেও ধারণা দেয়। আমাদের ভেতরকে সমৃদ্ধ করে জ্ঞানের আকাঙ্ক্ষাকে জাগিয়ে তোলে। যা আবার বাস্তব জগতেও অনেক কাজে দেয়। সব পেশাতেই উন্নতির জন্য এবং তার ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে আজীবন পড়াশোনার দরকার হয়। কিছু পেশায় (শিক্ষক, আইন, চিকিৎসক ইত্যাদি) আজীবন পড়াশোনা খুবই জরুরি।

শর্টকাটে আর্থিক সাফল্যের প্রচেষ্টা:

বর্তমানে 'মানুষের হাট' থেকে শুরু করে বেশিরভাগ পেশাজীবীরাও সততার সঙ্গে পরিশ্রম করতে চাই না। এমনকি একজন রিকশাঅলা এবং অটোরিকশার চালকও তার শ্রম ও আইন অনুযায়ী ন্যায্য পাওনার অতিরিক্ত অর্থ আশা করেন। বিশেষ সময় বা দিন হলে তো কথাই নেই। চাকরিজীবীদের মধ্যেও অনেকেই নিষ্ঠা ও সততার সঙ্গে কাজ করতে চাই না। দায়সারাভাবে শ্রম ঘণ্টা শেষ করে, মাস শেষে পর্যাপ্ত অর্থ আশা করি। বছর ঘুরে আরো আয়বৃদ্ধির প্রত্যাশা করি।

আবার চাকরিজীবী থেকে শুরু করে সমাজের প্রায় সর্বস্তরে অনেকেই কাজের উপযুক্ত পারিশ্রমিক বাদেই, কৌশলে অতিরিক্ত অর্থ আদায় করে নিই। বেশিরভাগ ব্যবসায়ী আইনসহ সব ধরনের নিয়ম-নীতি ও নৈতিকতা মেনে নিষ্ঠার সঙ্গে ব্যবসা করি না। অধীনস্ত কর্মচারীদের প্রতিও তাদের ধ্যান-ধারণা শত বছর আগের। কিন্তু সর্বস্তরের মানুষই সফল হতে চাই। অর্থবিত্ত চাই। এবং সেটা কত দ্রুততম সময়ে সম্ভব, সেই প্রচেষ্টার সন্ধান করি। নীতি, নৈতিকতা, মূল্যবোধ ঝেড়ে ফেলে আর্থিক সাফল্যের প্রচেষ্টায়, অনেকে শর্টকাট রাস্তাও খুঁজি। এজন্য অনৈতিক পথ বেছে নিতেও দ্বিধা করি না! শিক্ষাজীবন শেষ করে বা কিছুদিন চাকরি-বাকরির পর, অনেকেই মনে করেন, "জানা বা শেখা তো শেষ। যতটুকু জানা দরকার, তারচেয়ে বেশিই তো জানি। কিন্তু সফলতা আসে না কেন?" আসলে তিনি ব্যক্তি হিসেবে নয়, আর্থিকভাবে সফল হতে চান।

সাফল্য অর্জনের গভীরে:

সাফল্য লাভের মূলমন্ত্রই হচ্ছে, আগ্রহের বিষয়ের প্রতি একাগ্রতা ও নিষ্ঠার সঙ্গে লেগে থাকা। একই সেই সঙ্গে দরকার বিশেষ প্রচেষ্টা এবং নিবিড় সাধনা। পাশাপাশি পড়া আর পড়া। যে কাজে আগ্রহ বা আনন্দ নেই, সে কাজে কখনো সাফল্য আসবে না। যে কাজ পছন্দ বা ভালো লাগে, এমন আগ্রহের বিষয় নিজেকেই খুঁজে বের করতে হবে। তারপর নিষ্ঠার সঙ্গে একাগ্রচিত্তে দিনের পর দিন তাতে লেগে থাকতে হবে এবং চর্চা চালিয়ে যেতে হবে। হাল ছাড়বেন না। গতি প্রবাহ সবসময় একই থাকবে না। তবে গতি প্রবাহ অব্যাহতভাবে বজায় রাখতে হবে। প্রয়োজনে দিক একটু এদিক-ওদিক করতে হতে পারে, কিন্তু মূল লক্ষ্য ঠিক রাখতে হবে। যেমন হৃদযন্ত্রের রক্তপ্রবাহ সচল রাখতে বাইপাস অপারেশন করা হয়ে থাকে। আবার শহরের ভেতর দিয়ে বা একই সড়কে অতিরিক্ত যান চলাচল কমাতে বাইপাস সড়ক দিয়ে যানবাহন চলাচল করানো হয়। কোনো সড়ক দিয়ে বিশেষ কেউ আসবেন বা কোনো সড়কে সভা-সমাবেশ চলছে এরকম নানাবিধ কারণে ডাইভারশন করে যান চলাচলের দিক পরিবর্তন করানো হয়। অর্থাৎ সাফল্য অর্জনের জন্য আপনাকে নির্দিষ্ট লক্ষ্য ও গতি চলমান রাখতে হবে।
 
সফলতা অর্জন করতে হলে, পাছে লোকে কিছু বলে, এ ভাবনা থেকে একেবারেই বেরিয়ে আসতে হবে। পেছনে হয়তো অনেকে অনেক কথাই বলবে। সেসবে কখনোই কান দেবেন না। সাফল্য অর্জনে আরেকটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয় 'আস্থা অর্জন' করা। এজন্য ব্যক্তিকে কাজের মধ্যদিয়ে সংশ্লিষ্টদের আস্থায় আনতে হয়। আস্থা অর্জনের জন্যও চর্চা আর গভীর অনুসন্ধান দরকার। এক সময় সফলতা আসবেই। অর্থবিত্ত তো বটেই। আর যত পারেন, সর্বজন শ্রদ্ধেয় সফল ব্যক্তিদের জীবনী পড়ুন।

সাফল্য অর্জনে আরো কিছু কথা:

সাফল্যের কোন সংজ্ঞা, মাপকাঠি বা পরিসীমা আছে কী? নৈতিকভাবে যেকোনো সাফল্য অর্জনের জন্য শর্টকাট কোনো রাস্তাও নেই। কিন্তু যুগ যুগ ধরেই ব্যক্তির আর্থিক সফলতাকেই আমাদের সমাজে ব্যক্তির সার্বিক সাফল্য হিসেবে বিবেচিত হয়ে আসছে। এজন্য ক্রমবর্ধমানভাবে অনৈতিক সাফল্যের দিকেই ঝোঁকটা আমাদের বেশি। আইনের যথাযথ প্রয়োগ না হওয়া অন্যমত কারণ। এছাড়া আরেকটি বড় কারণ হচ্ছে- ব্যক্তি দেখেন, অনেকেই অনৈতিকভাবে সাফল্য (আর্থিক) অর্জন করছেন। আইনগতভাবেও তাদের কোন সমস্যা হচ্ছে না। এজন্য আমরা সেই স্রোতে গা ভাসিয়ে সেদিকেই ছুটছি। বিষয়টির গভীরে যাওয়ার প্রতি আমাদের কোনো আগ্রহই নেই। যদিও দুর্নীতি দমন কমিশন যেকোনো কর ফাঁকি, অর্থ আত্মসাত থেকে শুরু করে, অবৈধ সম্পদ অর্জনকারীর বিরুদ্ধে জোরালো পদক্ষেপ নেয়ার চেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। কোনো ব্যক্তির বিরুদ্ধে অভিযোগ আনতে দুদক-কেও নানা প্রক্রিয়ার মধ্যদিয়ে যেতে হয়। অবৈধ সম্পদ অর্জনকারীর বিরুদ্ধে দুদকের এই ব্যবস্থাও সর্বস্তরের জনগণের মধ্যে 'পার পাওয়ার কোনো উপায় নেই', এমন ভীতির সঞ্চার করতে পারেনি।

আর্থিকভাবে সাফল্য অর্জনকেই সফল ব্যক্তি হিসেবে অভিহিত করে, বর্তমান সমাজব্যবস্থা শিক্ষিত-অশিক্ষিত সব পর্যায়ের মানুষের ভেতরের দৃষ্টিভঙ্গিকে আমূল বদলে দিয়েছে। অথচ ব্যক্তির আর্থিক সাফল্য আর সফল ব্যক্তি, দুটি সম্পূর্ণ ভিন্ন বিষয়। আর্থিকভাবে সাফল্য অর্জনকারী ব্যক্তি হচ্ছেন ধনী বা ধনাঢ্য ব্যক্তি। অন্যদিকে সফল হতে চান এমন ব্যক্তি কখনোই শুধু অর্থের পেছনে ছোটেন না। তার থাকে নিজস্বতা। নতুন কিছু সৃষ্টিতে বা তার চিন্তায় থাকে ভিন্নতা। তিনি শুধু প্রথম নয়, সেরা হতে চান। মনের গহীনে থাকে ইতিহাসের পাতায় নাম লেখানোর তীব্র বাসনা। তিনি বর্তমান বাস্তবতার কষ্টকে তুচ্ছ মনে করেন। তার থাকে দায়িত্ব ও কর্তব্যবোধ, কাজের প্রতি নিষ্ঠা, বিরামহীন নেশা আর একাগ্রতা। এভাবেই এক সময় তিনি সফলতা অর্জন করেন। তাতে তার অর্থবিত্ত আসতেও পারে, নাও আসতে পারে। তবে দেখা যায়, বেশিরভাগ সফল ব্যক্তিই আর্থিকভাবেও সফলতা অর্জন করে থাকেন।

দীর্ঘস্থায়ী সাফল্য:

যেকোন সফলতা বা সাফল্য অর্জন করার পর দায়িত্ব বেড়ে যায়। তাই সাফল্য অর্জনের পর, সেটা দীর্ঘস্থায়ী হিসেবে ধরে রাখতে প্রচেষ্টাও অব্যাহত চালিয়ে যেতে হয়। সফলতা অর্জনের মাধ্যমে দীর্ঘস্থায়ী আনন্দের জন্য দরকার সাধনা। অনৈতিকভাবে বা শর্টকাটে পাওয়া সাফল্যে কখনো সেই আনন্দ আসে না। মানুষ হিসেবে আনন্দের স্থায়িত্ব বাড়াতে তাই শর্টকাট রাস্তা খোঁজা উচিত নয়।

তারপরও শর্টকাটে (যেকোন অনৈতিকতায়) কেউ যদি কিছু অর্জন করে, সেটা বাইরে থেকে বোঝা না গেলেও, ব্যক্তি মাত্রই জানেন যে, তার ভেতরটা ফাঁপা। স্বীকার না করলেও ভেতরে ভেতরে সে অপরাধবোধেও ভোগে। শিক্ষা থেকে শুরু করে জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে একথা প্রযোজ্য। তাই সেই অর্জনকে আমরা "কৃত্রিম সাফল্য" বলতেই পারি। কৃত্রিম সফলতা দীর্ঘস্থায়ী বা টেকসই হওয়ার বদলে, তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়া শুধু সময়ের ব্যাপার মাত্র। এই সময়ের মেয়াদ দিন-মাস-বছর হিসেবে কতদিন তা বলা মুশকিল।

দরকার অনুসরণীয় ব্যক্তিত্ব:

স্কুল বা কলেজ জীবনে সেরা ফল লাভ করা এবং সেরা ফলে উচ্চতর ডিগ্রি অর্জন করাটাও সাফল্য। পরিবার বা সমাজে ‘ভালো মানুষ’ হিসেবে স্বীকৃতিকে আমরা ‘ব্যক্তি সাফল্য’ বলতে পারি। বর্তমানে পরিবার থেকে শুরু করে সমাজ ও রাষ্ট্রব্যবস্থা এই 'ব্যক্তি সাফল্য' বা 'ভালো মানুষ'কে মূল্যহীন করে রেখেছে। কালেভদ্রে দু'একজনকে 'সাদা মনের মানুষ' অভিহিত করে স্বীকৃতি দেয়া হয়ে থাকে। এটা আমাদের সমাজ ও রাষ্ট্র ব্যবস্থার দায়। আমরা এর একেবারে অতল গহ্বরে হারিয়ে গেছি। দেয়ালে পিঠ ঠেকে গেছে। মানুষ এখন সৎ আর সততাকে মূল্যহীন মনে করেন। ফলে আমাদের সামনে অনুসরণীয় ব্যক্তিত্বের অভাব প্রকট আকার ধারণ করছে।

খুব বেশিদিন না, প্রায় তিন যুগ আগেও, দ্রুততম সময়ে কোনো ব্যক্তির আর্থিক সাফল্যের কারণ অনুসন্ধান করা হতো সমাজের ভেতরেই। বর্তমানে ব্যক্তির আর্থিক সাফল্য অসততা বা অনৈতিকতার মাধ্যমে অর্জিত হয়েছে কি না, তার কোনো বাছবিচার কেউই করেন না। সমাজে বরং তাকেই বুদ্ধিমান ব্যক্তি হিসেবে অভিহিত করা হয়। এজন্য পরিবারে বা সমাজে সৎ জীবনযাপনকারী মানুষকে অত্যন্ত অবজ্ঞার চোখে দেখা হয়। মনে করা হয়, অসৎ বা অনৈতিকতা না করতে পারাটা ওই ব্যক্তির অযোগ্যতা অথবা তার কোনো বুদ্ধিই নেই।

আবার কেউ কেউ বলে থাকেন, ‘ওই ব্যক্তি সুযোগের অভাবে সৎ। সুযোগ পেলে উনিও দু'নম্বরী করে অর্থ উপার্জন করতেন।’ একবারও মানুষের ভাবনায় নেই যে, অনৈতিকভাবে আর্থিক সাফল্য অর্জন করে তিনি কী কী করতে পারেন? তাছাড়া তিনি কী মানসিকভাবে এক মুহূর্তের জন্যও শান্তি পান? উনি যে তার সারাজীবনের অর্জিত অর্থবিত্ত ভোগ করে যেতে পারবেন, তার নিশ্চয়তা কী? অথবা অসৎভাবে অর্জন করা অর্থবিত্ত স্ত্রী-সন্তানের জন্য রেখে গেলে ব্যক্তি হিসেবে তার লাভ কী? অন্যদিকে অনৈতিকভাবে অর্থ উপার্জনকারী ব্যক্তি, তার পরিবারে সন্তানকে সৎ উপদেশ দিতে পারেন? বা তার সৎ উপদেশ স্ত্রী-সন্তান শুনবেন? তাকে সম্মান করবেন? তাহলে তার অর্জন কী? অসৎ ব্যক্তি কখনো এসব নিয়ে ভাবেন না, চিন্তিতও নন। দীর্ঘদিন বিপথে চালিত মানুষ সহজে আর সুপথে আসতে পারেন না। তাই একটা পর্যায়ের পর, নীতি-নৈতিকতাহীন ব্যক্তির হিতাহিত বোধবুদ্ধি একেবারেই নষ্ট হয়ে যায়।

এসব নিয়ে ভিন্নমত বা নানা ধরনের বিতর্ক থাকতেই পারে। তবে সমাজবিজ্ঞানীদের জন্য এটি দীর্ঘ এক আলোচনার এবং গবেষণার বিষয়বস্তু। কারণ এ গড্ডালিকা প্রবাহ থেকে সমাজকে বেরিয়ে আসতেই হবে। উত্তরণের পথ বের পারেন তারাই। একই সঙ্গে এগিয়ে আসতে হবে সমাজের সুশিক্ষিত অংশীদারদেরও। আর তা দীর্ঘমেয়াদি হলেও এখন থেকেই বাস্তবায়নে কাজ শুরু করতে হবে রাষ্ট্রকেই।

লেখক: মো. মাসুম হোসেন ভূঁইয়া
জ্যেষ্ঠ বার্তাকক্ষ সম্পাদক, সময় সংবাদ
সদস্য: বাংলাদেশ আইসিটি জার্নালিস্ট ফোরাম (বিআইজেএফ)
ইমেইল: masumlabib@gmail.com



DMCA.com Protection Status

এই বিভাগের সকল সংবাদ
করোনা ভাইরাস লাইভ আপডেট
আক্রান্ত চিকিৎসাধীন সুস্থ মৃত্যু
৩৬২০৪৩ ৮৮৩৪৫ ২৭৩৬৯৮ ৫২১৯
বিস্তারিত
খালেদার যুক্তরাজ্যে যাওয়ার ব্যবস্থা করতে চান ডিকসন ৪ বছরের শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ বৃদ্ধের বিরুদ্ধে 'আমি অনেককিছু করতে পারিনি, এবার শিক্ষা নিয়েছি' বৃহস্পতিবার হাসপাতাল ছাড়ছেন ইউএনও ওয়াহিদা টেকনাফে আত্মসমর্পণকারী ১০১ ইয়াবা কারবারির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন ইয়াবা দিয়ে 'ফাঁসাতে' গিয়ে নিজেই ফেঁসে গেলেন এএসআই সিনহা হত্যা: কনস্টেবল রুবেল ৭ দিনের রিমান্ডে ‘রাস্তা, সেতু নির্মাণের সব কাজই মানসম্মত হতে হবে’ সুদের টাকা দিতে না পারায় গৃহবধূকে গাছে বেঁধে নির্যাতন জার্মান ক্ল্যাসিকোতে মুখোমুখি বায়ার্ন-বরুশিয়া নোয়াখালীতে আলাদা ঘটনায় দুই নারীসহ নিহত ৩ আত্রাই নদীর বাঁধ ভেঙে পানিবন্দী লক্ষাধিক মানুষ ২৫ হাজার সৌদি প্রবাসীর নতুন করে ভিসা নিতে হবে দুই সন্তানের গলা কেটে আত্মহত্যার চেষ্টা বাবার, একজনের মৃত্যু সন্তানকে 'বিক্রি' করলেন বাবা, আত্মহত্যার চেষ্টা মায়ের ঢাকা-দুবাই রুটে এমিরেটসের ফ্লাইট বাড়ছে করোনায় নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার মৃত্যু ফর্মের চেয়েও ইনজুরির খবরই যার বেশি তিন যাত্রী চেপে ধরেন অটো চালক আশরাফুলকে, অপরজন গলায় ছুরি চালান বাদ বেয়ারস্টো, চুক্তিতে তরুণরা এইচএসসিতে জেএসসি-এসএসসির নাম্বারও মূল্যায়ন হতে পারে: শিক্ষামন্ত্রী এইচএসসি নিয়ে মন্ত্রীর কাছে ১৩ লাখ শিক্ষার্থীর পক্ষে নিবেদন রংপুরে পুলিশ হেফাজতে আসামির মৃত্যু কখনো বাসে, কখনো মানুষের ভিড়ে ঘিরে ধরে ছিনতাই করতেন এই নারীরা মিন্নিদের মৃত্যুদণ্ড: কড়া পর্যবেক্ষণ দিলেন আদালত অন্যায় দেখে চুপ থাকতে পারি না: মেসি এইচএসসি পরীক্ষার সম্ভাব্য সময় কুয়েতের আমিরের মৃত্যুতে বাংলাদেশে রাষ্ট্রীয় শোক বৃহস্পতিবার সংক্রমণ বাড়ায় ইতালিতে বন্ধ হচ্ছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান দেশে ফিরলেন কম্বোডিয়ায় আটকে পড়া ৭৮ বাংলাদেশি নতুন গান নিয়ে আসছেন নুসরাত ফারিয়া ফরিদপুরে গাঁজাসহ ৪ জন আটক অক্টোবর থেকে সিঙ্গাপুরে ফ্লাইট চালু বেনাপোলে মাদকসহ দুই নারী আটক ধর্ষণ চেষ্টা মামলায় যুবক কারাগারে গোয়ালন্দে উপজেলা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে পাল্টাপল্টি কর্মসূচি ফাঁসির রায়ের পর টাকা চাইলেন রিফাত, হাসলেনও আশাশুনিতে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগে মানববন্ধন ক্যালিফোর্নিয়া পুড়ছেই লুডু প্রতিযোগিতায় দুই লাখ টাকা পুরষ্কার দেবে ‘দারাজ’ পাবনা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান লাল করোনায় আক্রান্ত মৃত্যুদণ্ডের রায় শোনার সময় যেমন ছিলেন মিন্নি স্বাধীনতা সড়ক উন্মুক্ত করতে ভারতকে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর অনুরোধ ও লেভেল এ লেভেল পরীক্ষায় বাধা নেই ঢাকা-নিউইয়র্ক বিমান চলাচলের চুক্তি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছুটি বৃদ্ধি নিয়ে যা বললেন মন্ত্রী আগামী সপ্তাহে এইচএসসির রুটিন বিনা অপরাধে জেল খাটা জাহালমকে ১৫ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণের নির্দেশ নড়াইলে ৯৪ হাজার ২৫৫ শিশুকে ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে আশুগঞ্জে ব্যাংক ডাকাতি ও নৈশ প্রহরী হত্যার রহস্য উদঘাটন শুঁটকির টাকা নিয়ে সংঘর্ষে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ২ জনকে হত্যা! অপরিচ্ছন্ন নগরীর অপবাদ শিগগিরই দূর করা হবে: এলজিআরডি মন্ত্রী ভারতে তৈরি ভ্যাকসিনের দাম ২৫০ টাকা 'মিন্নিই নাটের গুরু' রোহিঙ্গা ইস্যুতে জাতিসংঘে আবারো মিথ্যাচার মিয়ানমারের অনিশ্চিত শত শত সৌদি প্রবাসীর ভবিষ্যৎ পিরোজপুরে ইয়াবাসহ নারী গ্রেফতার আজারবাইজানের পাল্টা হামলায় ২৩০০ আর্মেনীয় সেনা হতাহত পৌরাণিক সায়েন্স ফিকশন সিনেমা বানাবেন ধোনি শেষ বার্তায় মিন্নিকে যা বলেছিল নয়ন বন্ড অনলাইন ক্লাসে স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে শিশু শিক্ষার্থীরা পুলিশ হেফাজতে মিন্নি প্রণোদনা প্যাকেজ বাস্তবায়নে সমন্বিত ডাটাবেজের দাবি ইস্পাত গলাতে গিয়ে প্রায়ই মৃত্যু, টনক নড়ে না কারও খাগড়াছড়িতে ধর্ষক নুরুল আমিন ২ দিনের রিমান্ডে টিকা কিনতে ১২ বিলিয়ন ডলার দিতে চায় বিশ্বব্যাংক নারায়ণগঞ্জে মসজিদে বিস্ফোরণে ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে বিসিবি রস ছাড়াই তৈরি হচ্ছে খেজুরের ‍গুড়, জেল-জরিমানা রায় শুনে যা বললেন মিন্নির বাবা মিন্নির যত সমালোচনা সিলেটে গণধর্ষণ: ছয় নম্বর আসামি মাহফুজ পাঁচ দিনের রিমান্ডে ঠাকুরগাঁওয়ে সাংবাদিকসহ ২ জনকে কুপিয়ে আহত বাবরি মসজিদ ভাঙার মামলায় খালাস পেলেন ৩২ আসামিই মিন্নির ফাঁসির রায়: যা বললেন আদালত রোববার থেকে খাগড়াছড়িতে শিশুদের ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাওয়ানো মৃত্যু বেড়েছে, আক্রান্ত আরো ১,৪৩৬ ফুল ব্যবসায় মন্দাভাব, দাম কমছে বাংলাদেশ-যুক্তরাষ্ট্রের বিমান চলাচলে চুক্তি স্বাক্ষর ধর্ষণের সাজা ফাঁসি চেয়ে বিক্ষোভ রিফাত হত্যা: খালাস পেলেন যারা বার্সার দেয়া কষ্ট মনে রাখতে চান না সুয়ারেজ লিগ কাপের চতুর্থ রাউন্ডে লড়বে ম্যান সিটি-বার্নলি এমসি কলেজের ঘটনায় ধর্ষকদের সর্বোচ্চ শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন রিফাত হত্যা মামলায় যাদের ফাঁসি হলো মাত্র ৯ বছরেই দাবায় কিস্তিমাত! দরিদ্র দেশের শিশুরা সম্ভাবনার মাত্র ৩৭ ভাগ কাজে লাগাতে পারে: বিশ্বব্যাংক খুলনায় স্কুলছাত্র বাপ্পী হত্যায় একজনের ফাঁসি, যাবজ্জীবন ৫ রিফাত হত্যা: মিন্নিসহ ৬ জনের ফাঁসির আদেশ সৌদি আরবে সপ্তাহে ২০টি ফ্লাইট চালুর সিদ্ধান্ত যেন সিনেমার গল্প, নতুন ফাঁদে পড়ছেন বিকাশের গ্রাহকরা ‘ভালোবাসার প্রজাপতি’ চলচ্চিত্রে নবাগত প্রিয়মনি রিফাত হত্যা মামলার রায় পড়া শুরু ‘শেখ হাসিনা উপমহাদেশের রাজনীতির উজ্জ্বল নক্ষত্র’ বাবরি মসজিদ ধ্বংস মামলায় যে রায় দিলেন ভারতের আদালত পাবনায় আগাম সবজির বাম্পার ফলন মিন্নিসহ ১০ আসামির সবার মৃত্যুদণ্ড চান রিফাতের বাবা-মা দেশের ৯৮ ভাগ মানুষ বিদ্যুৎ সুবিধা পাচ্ছেন: পরিকল্পনামন্ত্রী অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিনে অগ্রাধিকার পাবে বাংলাদেশ ঘিওরে সাংবাদিকদের ওপর হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন হার্ট ফেলিওর হতে পারে যেসব কারণে
আরও সংবাদ...
ভিসা ছাড়াই বাংলাদেশি নাগরিকরা ভ্রমণ করতে পারবেন যে ৪১ দেশ ভারত থেকে লন্ডন যেতে বাস সার্ভিস চালু ৩০ মিনিটে এনআইডির অসুন্দর ছবি বদলে ফেলুন বাংলাদেশকে ১৬ আনাই ফাঁকি দিয়েছে ভারত! ডাচ্-বাংলা-আইবিএলসহ ৫ ব্যাংকে লেনদেন সীমিত করা হয়েছে ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলমকে নোটিশ মোবাইল কিনতে শিক্ষার্থীদের ১০ হাজার টাকা করে ঋণ দেয়ার সিদ্ধান্ত বাইকার ফারহানা ‘নববধূ’ নয়, বিয়ে তিন বছর আগে, রয়েছে সন্তানও ‘দুই আর দুই পাঁচ’ বলছেন শাহেদ ডাল-আলু ভর্তা খেয়ে মাকে টাকা পাঠান সৌদি প্রবাসী কিশোর (ভিডিও) দেখা মিলল বিশ্বের সবচেয়ে বড় নীল তিমির (ভিডিও) ওয়াইফাই ইন্টারনেটের গতি বাড়ানোর কৌশল আল বুখারি বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলর হলেন ড. ইউনূস দু'বোনের মারামারিতে দেরিতে ছাড়ল বিমান (ভিডিও) শিক্ষার্থীদের এক হাজার করে টাকা দেবে সরকার চেয়ার ছেড়ে পালালেন জায়েদ খান! মিয়া খলিফাকে খুঁজছে মার্কিন সেনারা (ভিডিও) সুশান্তের মৃত্যু: ‘আওয়াজ আসলেই তালা ভাঙা বন্ধ করে দিও’ (ভিডিও) মসজিদের একটি এসিও বিস্ফোরিত হয়নি এক সপ্তাহ পরেই বদলে যাচ্ছে ফেসবুক, বাধ্যতামূলক নতুন ডিজাইন ঘুষের ৫০ হাজার টাকা না দেয়ায় ঝরল ১৮ প্রাণ, শঙ্কা আরো! গ্রিসের ছয়টি যুদ্ধবিমানকে তুরস্কের ধাওয়া (ভিডিও) খোঁজ মিলেছে অভিনেতা শুভর মেসি-বার্সা ইস্যুতে নাটকীয় মোড়! পৃথিবীর সবচেয়ে বিষাক্ত সাপের দেখা মিলল সমুদ্রে জয়কে সাতদিনের আলটিমেটাম, নিঃশর্ত ক্ষমা না চাইলে মামলা এবার ভারতের প্রদেশের মালিকানা দাবি করল চীন মেয়েসহ দেশ ছাড়লেন মিথিলা গভীর রাতে বাসভবনে ঢুকে ইউএনওকে হাতুড়ি পেটা জাদুকরি পরিবর্তন ঘটে সকালে কুসুম গরম লেবু পানিতে দেশে পাঁচ রকম করোনা ভাইরাসের সন্ধান চাঁদে পড়ছে মরচে! বাংলাদেশি ভ্যাকসিন কবে আসবে জানালেন আসিফ মাহমুদ লাইভ কনসার্টে টাকা ছুঁড়লেন দর্শক, উচিৎ শিক্ষা দিলেন অরিজিৎ (ভিডিও) দেশে বিমান তৈরি শুরু হবে ২০২১ সালে (ভিডিও) তুরস্ককে চারদিকে ঘিরে ফেলছে ফ্রান্স? পছন্দের রঙ বলে দেয় ব্যক্তিত্ব কেমন আড়াইহাজারে এশিয়ার সবচেয়ে বড় বিদেশি বিনিয়োগ! মোবাইল কিনতে ‘ঋণ’ দিচ্ছে রবি ইসরায়েল-আমিরাতের চুক্তি, মুখ খুললো সৌদি শোক দিবসে তারকাদের আচরণে সমালোচনার ঝড় সময় টিভিতে তিন ক্যাটাগরিতে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি সুশান্ত হত্যায় নাম জড়াল ভারতীয় খেলোয়াড়ের! নতুন নিয়মে ট্রেনের টিকিট-ভ্রমণ করবেন যেভাবে রিয়াকে জড়িয়ে ধরা মহেশ ভাটের ভিডিও ভাইরাল দেশে আরো একটি গাধার জন্ম সুশান্তের মৃত্যু: সন্দীপের সঙ্গে হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাট প্রকাশ তুরস্কের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় গ্যাস ক্ষেত্রের সন্ধান এসি বিস্ফোরণের কারণ ও রক্ষা পেতে যা করবেন প্রাথমিক বিদ্যালয় খোলার প্রস্তুতির নির্দেশ
আরও সংবাদ...


মেনে চলি

Contact Address

Nasir Trade Centre, Level-9,
89, Bir Uttam CR Dutta Road, Dhaka 1205, Bangladesh
Email: somoydigitalsomoynews.tv

Find us on

  EnglishLive TV DMCA.com Protection Status
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
উপরে