সম্পূর্ণ নিউজ সময়
বাণিজ্য সময়
১৪ টা ২ মিঃ, ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮

উন্নয়নশীল দেশ হলে জিএসপির প্রশ্নই আসে না : বাণিজ্যমন্ত্রী

যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে বাংলাদেশের জিএসপি সুবিধার কোন প্রয়োজন নেই বলে সাফ জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। 'আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা আইএলও'র শর্ত অনুযায়ী শ্রমিক অধিকারসহ অন্যান্য শর্ত পূরণ করলেই জিএসপি সুবিধা ফিরে পাবে বাংলাদেশ'। গতকাল বাংলাদেশে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শা ব্লুম বার্নিকাটের এমন মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে এই কথা বলেন বাণিজ্যমন্ত্রী। টিকফার চুক্তির সাথেই জিএসপি সুবিধা আদায়ে তৎপর থাকার পরামর্শ অর্থনীতিবিদদের।
বাণিজ্য সময় ডেস্ক

 

২০১৩ সালের এপ্রিলে রানাপ্লাজা ধসের পর ঐ বছরের জুনেই স্বল্পন্নোত দেশের জন্য শুল্কমুক্ত বাজার সুবিধা-জিএসপি বাংরাদেশের জন্য বন্ধ করে দেয় যুক্তরাষ্ট্র। শ্রমিক নিরাপত্তা ও কারখানার কাজের পরিবেশ উন্নয়নসহ ১৬টি শর্তও জুড়ে দেয় দেশটি। এরপর ২০১৫ সালের জুনে ১২২টি দেশের জিএসপি সুবিধা নবায়নের সুযোগ পেলেও আবারো তালিকার বাইরে থাকে বাংলাদেশ। যদিও ২০১৪ সালে প্রায় সবকটি শর্ত পূরণের অগ্রগতি প্রতিবেদন পাঠায় বাংলাদেশ। তাতেও কোন সাড়া মেলেনি মার্কিন সরকারের। যদিও শর্তপূরণের ঘাটতির দোহাই দিয়ে আবারো আশ্বাস মার্কিন রাষ্ট্রদূতের।

তবে, তার একদিন পর বাণিজ্যমন্ত্রী সাফ জানিয়ে দিলেন জিএসপি সুবিধা চায়না বাংলাদেশ।

তিনি বলেন, ‘মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে জিএসপি সুবিধা আমরা আশা করি না। কারণ আমরা যতো অগ্রগতিই লাভ করি না কেন, যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশকে এই সুবিধা দেবে না। আমাদের এই সুবিধার প্রয়োজনও নেই। উন্নয়নশীল দেশে যখন রূপান্তরিত হব, তখন ‍জিএসপির তো কোনো প্রশ্নই আসে না।’   

বাণিজ্যমন্ত্রী, জিএসপি সুবিধা নিয়ে এমন সময় বক্তব্য রাখলেন যখন আগামী মাসেই স্বল্পন্নোত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত যাচ্ছে বাংলাদেশ। এমনিতেই যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে স্বল্পন্নোত দেশ জিএসপি সুবিধা পেলেও পূর্ণাঙ্গ উন্নয়নশীল দেশ পায় জিএসপি প্লাস। 

বিশ্লেষকরা বলছেন, যুক্তরাষ্ট্র নিজেদের স্বার্থ বিবেচনায় কৌশলী আচরণ করলেও বাংলাদেশকে আলোচনা অব্যাহত রাখতে হবে।

সিপিডির গবেষণা পরিচালক ড. খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম বলেন, ‘মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের তরফ তৈকে তাদের যে সমস্ত চাহিদা, সেগুলো তারা উত্থাপন করছেন এবং কোনো কোনো ক্ষেত্রে তারা তাদের চাহিদা মাফিক সরকারের কাছ থেকে সেসব আদায়ও করে নিচ্ছে। সুতরাং সেদিক থেকে কৌশলগত কারণে হলেও জিএসপি সংক্রান্ত আমাদের এই চাহিদার বিষয়গুলো টিকফার আলোচনার সঙ্গে সম্পর্কিত করে আলোচনায় রাখা উচিৎ।’   

যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে বাংলাদেশি পণ্যের মোট রপ্তানির মাত্র ৩ শতাংশ পণ্যে জিএসপি সুবিধা পেত। এই সুবিধার ক্ষেত্রে তৈরি পোশাক আওতার বাইরে ছিলো। 

© ২০২১ সময় টিভি মিডিয়া নেটওয়ার্ক
সমস্ত অধিকার সংরক্ষিত
DMCA.com Protection Status
সময় মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করুন
Somoy Tv App PlayStore Somoy Tv App AppleStore
ফলো সামাজিক সময়