সম্পূর্ণ নিউজ সময়
বাণিজ্য সময়
১৫ টা ৫০ মিঃ, ৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮

শেষ হলো আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা, ৮৭ কোটি ৮৩ লাখ টাকার পণ্য বিক্রি

২৩ তম আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলায় ৫শ' ৮৭ টি স্টল ও প্যাভিলিয়নে মাত্র ৮৭ কোটি ৮৩ লাখ টাকার পণ্য বিক্রি হয়েছে। ২৩তম আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলায় ১শ' ৬০ কোটি টাকার রফতানি আদেশ পেয়েছে বাংলাদেশ। শেরে বাংলানগরে বাণিজ্য মেলার সমাপনী অনুষ্ঠানে একথা জানান বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। এসময় তিনি বলেন, পূর্বাচলে ৩৫ একর জায়গাজুড়ে বাণিজ্য মেলার জন্য স্থায়ী অবকাঠামো নির্মাণকাজ শেষ হবে ২০২০ সালে। অর্থনীতিবিদরা এ বাণিজ্য মেলাকে আন্তর্জাতিক মানের বলতে নারাজ। তারা বলছেন, রপ্তানি উন্নয়নে বিদেশী ক্রেতাদের জন্য বিশেষ সুযোগ সুবিধা রেখে ভবিষ্যতে মেলার পরিকল্পনা সাজানো উচিৎ।
বাণিজ্য সময় ডেস্ক

২০ কোটি টাকারও বেশি খরচে নির্মিত অস্থায়ী অবকাঠামোতে অনুষ্ঠিত হয় এবারের আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা। কয়েকটি বিদেশী স্টলের পণ্য বিক্রি আর ৩৫ দিনের দীর্ঘ মেলায় ১শ' ৬০ কোটি টাকার রপ্তানি আদেশই মেলার আন্তর্জাতিক প্রাপ্তি। মেলায় ছিলনা রফতানি পণ্যের কোন বিশেষ প্রদর্শনীর ব্যবস্থা, বিদেশী ক্রেতাদেরও আনাগোনা ছিলো হাতেগোনা। তারপরও মেলার সমাপনী অনুষ্ঠানে একে রফতানি সহায়ক আয়োজন বলে দাবি করেন বাণিজ্য সচিব।

শুভাশীস বোস বলেন, 'বাণিজ্য মেলা হচ্ছে রপ্তানি সহায়ক আয়োজন।'

গত কয়েকবছর ধরে আলোচনা চলা পূর্বাচলের স্থায়ী প্রদর্শনী কেন্দ্রের নির্মাণ কাজ শেষ হতে আরো দুই বছর সময় লাগবে বলে জানান বাণিজ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন চীনের অর্থায়নে নির্মিত প্রদর্শনী কেন্দ্রে আরো বড় পরিসরে মেলার সুযোগ থাকবে।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, 'বাণিজ্য মেলা সারা বছর করার জন্য পূর্বাচলে আমরা ৩৫ একর জমি বরাদ্দ পেয়েছি। আশা করছি ২০২০ সালের মধ্যে এটাকে সমাপ্ত করতে সক্ষম হবো।'

যদিও ২০২১ সাল নাগাদ দেশের রফতানি লক্ষ্যমাত্রা ৬০ বিলিয়ন ডলার। যার বিপরীতে বাণিজ্য মেলার অর্জন খুবই নগণ্য বলে মনে করেন অর্থনীতিবিদরা।

সিপিডি মোয়াজ্জেম বলেন, 'রপ্তানি মেলা হচ্ছে, সুতরাং বিদেশী বায়ারদের সঙ্গে আমাদের এখানকার যে সাপ্লাইয়ার তাদের একটি পরিচিতি ঘটবে। সেই বিচারে মেলা এখনো পৌঁছাতে পারেনি।'

© ২০২১ সময় টিভি মিডিয়া নেটওয়ার্ক
সমস্ত অধিকার সংরক্ষিত
DMCA.com Protection Status
সময় মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করুন
Somoy Tv App PlayStore Somoy Tv App AppleStore
ফলো সামাজিক সময়