fair            

বইমেলায় রাফাত মিশুর ‘রবীন্দ্রসৃজনে বাংলাদেশ’

mishu

বই মেলায় প্রকাশিত হল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারি অধ্যাপক রাফাত মিশুর রবীন্দ্রসাহিত্য বিষয়ক প্রবন্ধের বই ‘রবীন্দ্রসৃজনে বাংলাদেশ’। বইটি প্রকাশ করেছে আদর্শ প্রকাশনী আর প্রচ্ছদ করেছেন সাইফুল ইসলাম জনি। বইটি পাওয়া যাচ্ছে একুশে বইমেলার ৪২১—৪২৪ নম্বর স্টলে।

বইটি সম্পর্কে লেখক মিশু বলেন, ‘রবীন্দ্রসৃজনে বাংলাদেশ’ বইয়ের প্রবন্ধগুলো ২০১৫—২০১৯ সময়পরিসরে লিখিত এবং বাংলাদেশের বিভিন্ন গবেষণা-পত্রিকা, সাহিত্যপত্রে প্রকাশিত ও সেমিনারে পঠিত হয়েছে। সুনির্দিষ্টভাবে রবীন্দ্রনাথের সৃজনে ও মননে বাংলাদেশ ও বাংলাদেশের জনভূমি কী ধরনের প্রভাব রেখেছিল, এই বইয়ে তার তত্ত্বতালাশ থাকবে ।

তিনি আরও বলেন, 'শিক্ষিত মধ্যবিত্ত শ্রেণির কলকাতা শহরে যখন জাতীয়তাবাদী আন্দোলন জোরদার, রবীন্দ্রনাথ তখন এই নদীময় বাংলাদেশে উদার প্রকৃতি ও প্রাকৃত মানুষের আশ্রয়ে খুঁজে পান জাতীয়তা-অতিক্রান্ত বিশ্বপ্রকৃতি ও বিশ্বমানবকে। বাংলাদেশ তাঁকে মুক্তি দেয় কলকাতার ইট-কাঠ-পাথরের সংকীর্ণতা থেকে। রবীন্দ্রকবিতা পাঠে পাঠককে বিচিত্র অনুষঙ্গ, তত্ত্ব, মতবাদ ও প্রাকরণিক পরিচর্যা মাথায় রাখতে হয় বটে, কিন্তু স্বয়ং ‘বাংলাদেশ’ বিবেচিত হতে পারে রবীন্দ্রকবিতার স্বতন্ত্র অনুষঙ্গ হিসেবে। একাধিক স্থানে রবীন্দ্র-উচ্চারণে এই জনাঞ্চলকে ‘বাংলাদেশ’ বলে সম্বোধন সেই স্বাতন্ত্র্যের পরিচয়কে সুচিহ্নিত করে। ‘বাংলাদেশ’-উচ্চারণের মধ্য দিয়ে রবীন্দ্রনাথ ও রবীন্দ্রপাঠক উভয়ের মধ্যে নিশ্চিতভাবেই রাষ্ট্রীয় জাতীয়তাবাদ ক্রিয়াশীল থাকে না; কিন্তু এই জনাঞ্চলের ভৌগোলিক, প্রাকৃতিক ও সাংস্কৃতিক স্বাতন্ত্র্য অনস্বীকার্য।'

মিশু বলেন, 'বাংলাদেশ ও রবীন্দ্রনাথকে সম্পৃক্ত করে বাংলাদেশে বেশ কিছু কাজ হয়েছে। সেই কাজগুলোর প্রধান প্রবণতা হলো বাংলাদেশের সমাজ-রাজনীতি ও সাংস্কৃতিক চর্চায় রবীন্দ্রপ্রভাব বা সহজ করে বললে ‘রাবীন্দ্রিকতা’র স্বরূপ বর্ণনা। বিশেষত সাতচল্লিশ পরবর্তী পাকিস্তান পর্বে বাঙালি জাতীয়তাবাদী আন্দোলনের উত্তুঙ্গ অবস্থায় এই রাবীন্দ্রিকতারও যে বিশেষ তাৎপর্য ছিল তা সেইসব আলোচনা থেকে বোঝা যায়। কিন্তু এই বইয়ের ক্ষেত্র আলাদা। রবীন্দ্রনাথের সৃষ্টিকর্মে বাংলাদেশ যে স্থান, কাল, দর্শন, প্রকরণ—এই সামূহিক মাত্রা নিয়ে আবির্ভূত হয়, তারই অন্বেষণচেষ্টা থাকবে গ্রন্থভুক্ত সংশ্লিষ্ট প্রবন্ধগুলোতে।'

উল্লেখ্য, গত বইমেলায় প্রকাশিত হয়েছিলো রাফাত মিশুর কবিতার বই ‘অসময়ের ঘ্রাণ’। রাফাত মিশুর প্রথম কবিতার বই ‘শরীরী অশরীরী’ প্রকাশিত হয়েছিল ২০১৪ সালে। তিনি সম্পাদনা করেছেন সাহিত্যপত্র (লিটল ম্যাগ) ‘বীজমন্ত্র’ (২০১০-২০১১)। এছাড়া, বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণা-পত্রিকা ও সাহিত্য সাময়িকীতে প্রকাশিত হয়েছে সাহিত্য বিষয়ক গবেষণা-প্রবন্ধ ও নিবন্ধ। পেশাগত জীবনে রাফাত মিশু ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের সহকারি অধ্যাপক হিসেবে কর্মরত রয়েছেন।

প্রকাশিত বই
বই মেলার সংবাদ
বই মেলায় আড্ডা
book-fari-adda
b5
b4
b3
b2
b1
ভিডিও
SOMOY
SOMOY
SOMOY
SOMOY
SOMOY
SOMOY
SOMOY
SOMOY
SOMOY
SOMOY
SOMOY
SOMOY
SOMOY
SOMOY
SOMOY
SOMOY
fair            
somoy