SomoyNews.TV

স্বাস্থ্য সময়

আপডেট- ০৭-১১-২০১৭ ১০:১৭:০০

রোহিঙ্গাদের মধ্যে বাড়ছে এইডস রোগীর সংখ্যা, ঝুঁকিতে বাংলাদেশ

rohi-aids-up-jpg-ed

কক্সবাজারের টেকনাফ ও উখিয়ায় আশ্রয় নেয়া মিয়ানমারের রোহিঙ্গাদের মধ্যে ক্রমশ মরণঘাতি এইডস ছড়িয়ে পড়ছে। সরকারি হিসাব অনুযায়ী এখন পর্যন্ত ৫৫ জন এইচআইভি পজেটিভ রোগী শনাক্ত করা হয়েছে বলা হলেও প্রকৃত অর্থে এ সংখ্যা আরো অনেক বেশি বলে ধারণা করা হচ্ছে। শুধুমাত্র যারা নিজেরই পরীক্ষা করতে আসছে তাদেরকেই চিহ্নিত করতে পারছেন চিকিৎসকরা। এ অবস্থায় বাংলাদেশে এই রোগের মহামারি ঠেকাতে এইডস আক্রান্ত রোহিঙ্গাদের দ্রুত চিহ্নিত করার পরামর্শ চিকিৎসকদের।

মিয়ানমার থেকে প্রাণ ভয়ে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের মধ্যে সেপ্টেম্বর মাসের শুরুতে মাত্র একজনকে এইডস রোগী হিসাবে শনাক্ত করা হয়। অক্টোবর মাসে এসে এ সংখ্যা দাঁড়ায় ২৪ জনে। কিন্তু চলতি নভেম্বর মাসের প্রথম সপ্তাহে এ সংখ্যা ৫০ ছাড়িয়ে ৫৫ জনে এসে দাঁড়িয়েছে।

চিহ্নিতদের মধ্যে ৫০ জন মিয়ানমারেই চিহ্নিত হয়েছিলেন, কিন্তু প্রথম অবস্থায় গোপন করলেও ঔষধ নিতে আসলে তাদের শনাক্ত করা হয়। আর মাত্র ৫ জন বাংলাদেশে অন্য রোগের চিকিৎসা করাতে এসে এইচআইভি পজেটিভ হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন।

কক্সবাজারের সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ আবদুস সালাম বলেন, 'ওরা আমাদের কাছ থেকে ওষুধ নিয়ে খাবে। ওদের উপদেশ দেওয়া হচ্ছে, ওরা সেভাবে চলছে।'

এইডস ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোর মধ্যে মিয়ানমারের অবস্থান অনেক ওপরে। আর রোহিঙ্গাদের মধ্যে এইডস আক্রান্ত হওয়ার হার বেশি হওয়ায় ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে বাংলাদেশও।

কক্সবাজারের উখিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মিজবাহ উদ্দিন আহমেদ বলেন, 'রোহিঙ্গাদের বিশাল একটা অংশ এইডস আক্রান্ত। এতে আমাদের দেশও ঝুঁকিতে। আমাদের জনগণকে অনুরোধ করবো সচেতন থাকতে।'

কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফে এইডস আক্রান্ত রোহিঙ্গারা যাতে বাংলাদেশের জন্য ঝুঁকির কারণ হতে না পারে সে ব্যাপারে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে বলে জানান স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব সিরাজুল আলম খান।

এ অবস্থায় সরকারি ব্যবস্থাপনায় রোহিঙ্গাদের এইডস রোগ চিহ্নিত করার পাশাপাশি তাদের তদারকির পরামর্শ দেন বাংলাদেশ ডার্মোলটিজিক্যাল এসোসিয়েশন-এর সভাপতি অধ্যাপক ডা. এ কি এম সিরাজুল ইসলাম।

বাংলাদেশে পালিয়ে আসার পর এইডস আক্রান্ত রোহিঙ্গাদের মধ্যে একজনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া কক্সবাজারের বাইরে গিয়ে  শতাধিক রোহিঙ্গা বেসরকারিভাবে এইডসের চিকিৎসা সেবা নিচ্ছে বলে জানা গেছে।

পিএস