SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon বিনোদনের সময়

আপডেট- ০২-১০-২০১৯ ২২:১৯:৫১

সুতপার কণ্ঠ ঈশ্বর প্রদত্ত, বিস্ময়কর: কুমার বিশ্বজিৎ (ভিডিও)

tab-urvashi-rautela-1554272205891-16a45055a2e-large

কলকাতার রানাঘাটের গান গাওয়া রানু মণ্ডলকে নিয়ে বেশ হইচই হয়েছে।  লস্টেশন থেকে তিনি এখন বলিউডের গায়ক। রানু মণ্ডল ওপার বাংলা মাতালেও তার ঢেউ রয়েছে এপারেও।

এর কয়েকদিন পরই এপার বাংলায়ও এক কিশোরীকে পাওয়া যায়, যার রয়েছে একেবারে সাবলীলভাবে কোনো বাদ্যযন্ত্র ছাড়াই গান গাওয়ার শক্তি। যা নজর কাড়ে স্থানীয় বাসিন্দা ও সামাজিকমাধ্যম ব্যবহারকারীদের।

গত ৬ সেপ্টেম্বর সাতক্ষীরা দর্পণ নামে ফেসবুকে পেজে কয়েকটি ভিডিও পোস্ট হয়। ওই কিশোরীর খালি গলায় গান মোবাইল ফোনে ধারণ করে ওই ভিডিওগুলো ছাড়া হয়।

কিশোরীর নাম সুতপা মন্ডল। একটি ভিডিওর ক্যাপশনে সুতপার পরিচয়ে বলা হয়, সাতক্ষীরার আশাশুনির কোদণ্ডা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৭ম শ্রেণির ছাত্রী সুতপা। তার বাড়িও কোদণ্ডা গ্রামে। বাবার নাম মৃন্যাল মণ্ডল ও মায়ের নাম সুমনা মণ্ডল।

বিদ্যালয়ের একটি কক্ষে টিফিনের সময় শিক্ষকদের নির্দেশেই গানটি গায় সুতপা। আর সে গান রেকর্ড করে রঞ্জন সরকার নামে ওই বিদ্যালয়ের এক শিক্ষক ফেসবুকে আপলোড করেন।

ভিডিওতে সুতপাকে উপমহাদেশের কিংবদন্তি শিল্পী লতা মুঙ্গেশকারের কালজয়ী ‘যারে যারে উড়ে যারে পাখি ফুরালো প্রাণের মেলা শেষ হয়ে এলো বেলা আর কেন মিছে তোরে বেঁধে রাখি’ গানটি হৃদয় দিয়ে গাইতে দেখা যায়।

সুতপাকে নিয়ে গত ৮ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যা ৬টায় ২৯ মিনিটে সময় নিউজে ‘ওপারে রানু মণ্ডল, বাংলাদেশে মিলল সুতপা মণ্ডল’ শিরোনামে খবর প্রকাশের পর সেটি ভাইরাল হয়ে যায়। খবরটি পড়েন প্রায় তিন লাখ মানুষ।

এদিকে সুতপার কণ্ঠের ভূয়সী প্রশংসা করেছে খ্যাতিমান শিল্পী কুমার বিশ্বজিৎ। এরইমধ্যে কুমার বিশ্বজিৎ-এর সুরে ও কবির বকুলের লেখা গানে কণ্ঠ দিয়েছে সুতপা। গত ২৬ সেপ্টেম্বর দুপুরে মগবাজারের একটি স্টুডিতে গানটি ধারণ করা হয়। সুতপার প্রথম মৌলিক গান এটি। গান রেকর্ডিং এর সময় কবির ও কুমার বিশ্বজিৎ দুজনই স্টুডিওতে ছিলেন।

পরে গণমাধ্যমের সাথে আলাপ কালে কুমার বিশ্বজিৎ সুতপা সম্পর্কে বলেন, 'মেয়েটি মাত্র সপ্তম শ্রেণিতে পড়ে অথচ তার গলা দারুণভাবে পরিপক্ক। সাতক্ষীরার যে গ্রামে থাকে সেখানে গান শেখার মতো উন্নত সুযোগ নেই। কিন্তু সে গলায় ধারণ করেছে বিস্ময়। এটাকে ঈশ্বর প্রদত্ত বলতে হবে। তার কণ্ঠ যদি পরিচর্যা করা হয় তাহলে মিউজিক ইন্ডাস্ট্রি একটি নতুন কণ্ঠ পাবে।'

তিনি বলেন, 'সে যেভাবে গাইছে তাকে আমি খুব কঠিন কাজ বলবো না, আবার সহজও বলবো না। আমি একদিন আগে গানটা তাকে পাঠিয়েছি। সে পরেরদিনই ঢাকা চলে এসেছে। দুইই টেকে গানটা নিয়েছি। এক টেকেই হয়ে গিয়েছিল, কিন্তু আরেকটা টেক নিয়েছি যদি নতুন কিছু পাই।'

কুমার বিশ্বজিৎ সুতপার অসাধারণ ক্ষমতা রয়েছে উল্লেখ করে বলেন, 'ওর আলাদা ক্ষমতা রয়েছে। কণ্ঠে গান তুলবার ক্ষমতা। এই ক্ষমতা সবার থাকে না। আমার গানটা সে এতো দ্রুত কণ্ঠে তুলে ফেলেছে আমি অবাক হয়েছে। গানে সুক্ষ্ম সুক্ষ্ম ব্যাপার ছিল সেগুলো সে দ্রুত আত্মস্থ করতে পেরেছে যেটা অনেক পেশাদার গায়ক-গায়িকার পক্ষেও সম্ভব হয়ে ওঠে না। তারমধ্যে গানের ব্যকরণের যেসব বিষয়ে দেখেছি সেসব সচরাচর দেখা যায় না। অনেকদিন শেখার পরে, দীর্ঘ সময়ে পরে এসব হয় কিন্তু সুতপার কণ্ঠে এসব ঈশ্বর প্রদত্ত।'