SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon বাণিজ্য সময়

আপডেট- ১১-০৯-২০১৯ ১২:১১:৩৭

হিলি ইমিগ্রেশনে বেড়েছে যাত্রী পারাপার, নেই পর্যাপ্ত সুযোগ-সুবিধা

hili-immig

সাম্প্রতিক সময়ে হিলি ইমিগ্রেশন দিয়ে বেড়েছে ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে যাত্রী পারাপার। চলতি অর্থবছরের গেলো দুই মাসে ৩৫ হাজার যাত্রী ইমিগ্রেশন সম্পন্ন করেছেন। তবে এখনো বাড়েনি সেবার মান। ইমিগ্রেশন ব্যবস্থাপনায় সন্তুষ্ট নন যাত্রীরা। এদিকে, যাত্রীদের ভোগান্তির কথা মাখায় রেখে দ্রুত সমস্যা সমাধানের আশ্বাস দিয়েছে হিলি ইমিগ্রেশন ও কাস্টমস কর্তৃপক্ষ। 

কলকাতা, চেন্নাই, মাদ্রাজ, দার্জিলিংসহ ভারতের বিভিন্ন জেলার সঙ্গে হিলির সড়ক ও রেল যোগাযোগ ব্যবস্থা ভালো হওয়ায় ভারত যাওয়ার জন্য এ রুট বেছে নিচ্ছেন অনেকেই। হিলি ইমিগ্রেশন দিয়ে যাত্রী পারাপার ও সরকারের রাজস্ব আয় বাড়লেও ইমিগ্রেশনে সেবার মান না বাড়ায় ভোগান্তিতে পড়তে হয় যাত্রীদের। একটি মাত্র রাস্তা দিয়ে সারাদিন আমদানি রফতানি কার্যক্রম চলে, রয়েছে রেল ক্রসিং। যাত্রী পারাপারের এটি একমাত্র রুট হওয়ায় ঝুঁকি নিয়ে পার হতে হয় যাত্রীদের। অভাব রয়েছে পর্যাপ্ত বসার জায়গা, টয়লেট ও ভালো খাবারের ক্যান্টিনের।

এক যাত্রী বলেন, এ ইমিগ্রেশন দিয়ে আমদানি-রফতানি হয় এবং সঙ্গে যাত্রীরাও যাওয়ায় দুভোর্গে পড়েন যাত্রীরা। রাস্তাটা যদি আলাদা করতো তাহলে আমাদের সুবিধা হতো। শুধু তাই নয় এখানে পর্যাপ্ত বসার জায়গা বা টয়লেটও নেই। 

এদিকে ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষ বলছে, সমস্যা সমাধানে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

হিলি ইমিগ্রেশন চেকপোস্টের এএসআই মো. মোতালেব বলেন, এখানে বসার স্থান করা হয়েছে এবং কিছু টয়লেটের ব্যবস্থাও রয়েছে। তবে তা পর্যাপ্ত নয়, কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি অবহিত করা হয়েছে। 

যাত্রী পারাপার বাড়ায় এ ইমিগ্রেশনে একটি স্ক্যানার মেশিন ও আলাদা রাস্তা করা হবে বলে জানিয়েছে হিলি কাস্টমস।

হিলি কাস্টমসের রাজস্ব কর্মকর্তা আবু বকর সিদ্দিক বলেন, এখানে স্ক্যানার মেশিন এবং আলাদা রাস্তা করার বিষয়ে কথাবার্তা চলছে।  

হিলি কাস্টমসের তথ্য অনুযায়ী, চলতি অর্থবছরের প্রথম দুই মাসে শুধু ভ্রমণখাত থেকে সরকারের রাজস্ব এসেছে ৮৪ লাখ টাকা।