SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon আন্তর্জাতিক সময়

আপডেট- ১৮-০৮-২০১৯ ১৬:২২:১০

ভারতকে দাঁতভাঙা জবাব দেয়ার ঘোষণা পাকিস্তানের

kash-18aug

ভারতের যেকোনো আগ্রাসনের দাঁতভাঙা জবাব দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে পাকিস্তান। পরমাণু অস্ত্র ব্যবহারের নীতি পরিবর্তনে ভারতীয় প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিংয়ের ইঙ্গিতের পাল্টা জবাবে পাক সেনাবাহিনীর মুখপাত্র বলেন, নয়াদিল্লির যেকোনো হামলার সমুচিত জবাব দিতে প্রস্তুত ইসলামাবাদ। এদিকে, কাশ্মীর ইস্যুতে জাতিসংঘকে আরো কার্যকর ভূমিকা রাখার আহ্বান জানিয়েছে তুরস্ক। সোমবার থেকে স্কুল-কলেজ খোলার নির্দেশ দেয়া হলেও আতঙ্কে রয়েছে কাশ্মীরের সাধারণ মানুষ।

চলতি মাসের শুরুতে ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিল করে বিশেষ মর্যাদা কেড়ে নেয়ার পর থেকে থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে কাশ্মীর জুড়ে। জনজীবন স্বাভাবিক করতে শুক্রবার রাত থেকে এ উপত্যকায় আংশিক চালু হয়েছে টেলি যোগাযোগ। বেশ কিছু জেলায় শুরু হয়েছে সরকারি যানবাহনের চলাচল। সোমবার থেকে সব স্কুল-কলেজ খোলার নির্দেশ দিয়েছে কাশ্মীর কর্তৃপক্ষ। তবে স্পর্শকাতর পাঁচটি জেলায় চলাচলের ওপর কড়াকড়ি আরোপ এবং মিটিং-মিছিল নিষিদ্ধসহ জারি থাকবে কিছু বিধিনিষেধ। তবে নিরাপত্তা বাহিনীর দমন-পীড়নের কারণে চরম আতঙ্কের মধ্যে রয়েছে কাশ্মীরের সাধারণ মানুষ।

একজন বলেন, গেল ১২ দিন ধরে গৃহবন্দী। বাড়ির বাইরে যাওয়ার কোনো উপায় নেই। ওষুধের জন্যও বাইরে যেতে পারছি না। আমরা কিছুই করতে পারছি না। কারো সাথে যোগাযোগও করতে পারছি না। এখানকার পরিস্থিতি খুবই ভয়াবহ।

আরেকজন বলেন, বাড়ির বাইরেই পুলিশ। কোনো কিছুই পাচ্ছি না। আমরা চরম ভয়ের মধ্যে দিন কাটাছি। স্কুলে যেতে পারছি না। এমনকি খেলাধুলাও করতে পারছি না।

আগামী দিনগুলোতে যাতে কাশ্মীর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে না যায় সেজন্য বিশেষ কৌশলী পদক্ষেপের কথা বিবেচনা করছে জম্মু-কাশ্মীর প্রশাসন। যা চারটি স্তরে বাস্তবায়ন করা হবে বলে জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম। এরমধ্যে রয়েছে বিভিন্ন সভা-সমাবেশে সরকারি কর্মকর্তাদের পর্যবেক্ষণ ও কড়াকড়ি আরোপ, ধর্মীয় নেতাদের ওপর নজরদারি বাড়ানো এবং কাশ্মীরের তরুণদের বিক্ষোভ মিছিল থেকে বিরত রাখতে পরিবারগুলোর কাছ থেকে মুচলেকা গ্রহণ। তবে কেন্দ্রীয় সরকরের এ ধরনের উদ্যোগ পরিস্থিতি আরো জটিল করে তুলবে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

এদিকে, কাশ্মীর ইস্যুতে ভারতের যেকোনো আগ্রাসনের সমূচিত জবাব দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে ইসলামাবাদ। ভারতীয় প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং পরমাণু অস্ত্র প্রথম ব্যবহার না করার নীতি থেকে সরে আসার ইঙ্গিত দেয়ার প্রতিক্রিয়ায় পাকিস্তান সেনাবাহিনীর মুখপাত্র বলেন, নায়াদিল্লির যেকোনো হামলার পাল্টা ব্যবস্থা নিতে প্রস্তুত রয়েছে নিরাপত্তা বাহিনী।

পাকিস্তান সেনাবাহিনী মুখপাত্র আসিফ গফুর বলেন, পাকিস্তানের নিরাপত্তায় আজাদ কাশ্মীরে বিপুল সংখ্যক সেনাসদস্য মোতায়েন রাখা হয়েছে। জম্মু-কাশ্মীরে মানবাধিকার লঙ্ঘন পুরো বিশ্ব দেখছে। কাশ্মীরের প্রকৃত ঘটনা আড়াল করতে ভুয়া অভিযানের আশ্রয় নিতে পারে ভারত। এ ব্যাপারে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে সজাগ থাকতে হবে।

এমন পরিস্থিতে কাশ্মীর সঙ্কট সমাধানে জাতিসংঘকে আরো কার্যকর ভূমিকা পালনের আহ্বান জানিয়েছে তুরস্ক। এক বিবৃতিতে উত্তেজনা বন্ধে দুই দেশকেই সামরিক পদক্ষেপ থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানায় তুর্কি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।