SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon বাণিজ্য সময়

আপডেট- ১৪-০৮-২০১৯ ০০:২৬:৫০

সমস্যায় জর্জরিত সাভারের চামড়া শিল্পনগরী

savar

কার্যক্রম শুরুর তিনবছর পার হলেও সাভারের চামড়া শিল্প নগরীতে এখনো রয়েছে ড্রেনেজ ব্যবস্থা, বিদ্যুতের লোডশেডিংসহ নানা সমস্যা। ট্যানারি সংশ্লিষ্টরা জানান, বিসিক সমাধানের কথা বললেও বাস্তবে উল্টো। তবে বিসিক চেয়ারম্যান বলছেন, শীঘ্রই সমাধান হবে এসব সমস্যার। এছাড়া ডিসেম্বরের মধ্যে সিইটিপি আন্তর্জাতিক মানের হবে বলেও প্রত্যাশা চেয়ারম্যানের। 

কয়েকবছর ধরে সাভারের হেমায়েতপুরে চামড়া শিল্প নগরীতে কার্যক্রম পরিচালনা করছে ট্যানারি মালিকরা। এবারো কোরবানী মৌসুমে কাঁচা চামড়া সংগ্রহ করে লবণজাত করছেন ব্যবসায়ীরা। এসব চামড়া কয়েকদিন পরই লবণ ছাড়িয়ে ওয়াশ করা হবে ক্যামিকেল দিয়ে। সে সময় ট্যানারিগুলোতে পানির ব্যবহার বেড়ে যাবে কয়েকগুণ। কিন্তু ট্যানারিগুলোয় ব্যবহৃত ক্রোমিয়াম যুক্ত পানি যাওয়ার জন্য সরু পাইপ ও ভঙ্গুর ড্রেনেজ ব্যবস্থা হওয়ায় রাস্তা জলমগ্ন হবে বলে আশঙ্কা ট্যানারি সংশ্লিষ্টদের।

একজন বলেন, ড্রেনের সাথে সংযুক্ত না, তার কারণে নিচে যে পাইপ আছে, সেই পাইপ ময়লা গেলে জ্যাম হয়ে যায়। তার কারণে এখানে পানি ভেসে উঠে। এতে মানুষের চলা ফেরায় অনেক সমস্যা হয়ে।

আরেকজন বলেন, রাস্তায় কোন লাইট নেই। তার ফলে এখানে অন্ধকার হয়ে যায়। মানুষে চলাচলে খুবই সমস্যা হয়।

অন্যদিকে কেন্দ্রীয় বর্জ্য শোধনাগার, সিইটিপি নিয়ে অভিযোগ শেষ হয়নি ট্যনারিগুলোর। রয়েছে লোডশেডিং এর সমস্যাও। জেনারেটর ব্যবস্থা ভাল না হওয়ায় অনেক সময় বন্ধ থাকে সিইটিপির পরিশোধন কাজ। বিষয়টি স্বীকার করে বিসিক চেয়ারম্যান জানান, স্বল্প সময়ে সমাধান হবে এসব সমস্যার।

মাইজদী ট্যানারি লিমিটেডের পরিচালক মো. শহিদুল ইসলাম বলেন, এটা সম্পুর্ণ কলাপস, এটা চলবে না। হয় এটা নতুন করে করতে হবে। 

ব্যবসায়ীরা নানা সমস্যার কথা বললেও বিসিক বলছে, এখন পর্যন্ত ৯৯ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে সিইটিপির।