SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon তথ্য প্রযুক্তির সময়

আপডেট- ২০-০৪-২০১৯ ০২:৩২:৩৩

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে চলছে ‘স্টুডেন্ট টু স্টার্টআপ’ রাউন্ড

sts-mym

দেশ গঠনের তরুণদের উদ্ভাবনী ভাবনা ও উদ্যোগ ব্যবহার করার লক্ষ্যে আইসিটি বিভাগের আইডিয়া প্রকল্প ও ইয়াং বাংলা’র আয়োজনে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের নিয়ে চলছে ‘স্টুডেন্ট টু স্টার্টআপ: চ্যাপ্টার ওয়ান'। দেশের সর্ববৃহৎ এই প্রতিযোগিতার অংশ হিসেবে ময়মনসিংহের বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে চলছে দু’দিনের কর্মসূচি।

প্রথমদিন শুক্রবার (১৯ এপ্রিল) সকালে, বিশ্ববিদ্যালয় অডিটোরিয়ামে অনুষ্ঠিত হয় বিশেষ কর্মশালা। যেখানে অংশ নেন স্টার্টআপ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করা শিক্ষার্থীরা। কর্মশালায় শিক্ষার্থীরা তাদের উদ্যোগ ও উদ্ভাবনী ভাবনা তুলে ধরেন।

কর্মশালায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র বিষয়ক উপদেষ্টা ড. মো. সোলায়মান আলি ফকির, ফসলউদ্ভিদ বিভাগের অধ্যাপক ড. এ কে এম জাকির হোসেন, আইডিয়া প্রকল্পের ম্যানেজমেন্ট অ্যাসোসিয়েট মো. আনিসুর রহমান, স্টুডেন্ট টু স্টার্টআপের সমন্বয়ক আশিকুর রহমান রুপক উপস্থিত ছিলেন।

শনিবার (২০ এপ্রিল) অনুষ্ঠিত হবে পিচিং রাউন্ড। যেখানে যেখানে বাছাই করা হবে তিনটি দল। যারা অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আসা দলগুলোর সঙ্গে অংশ নেবে জাতীয় ক্যাম্পে। দু’দিনের কর্মসূচি আয়োজনে সহায়তা করছেন ইয়াং বাংলার রুয়েট ক্যাম্পাস অ্যাম্বাসেডর সানজিদা আক্তার সাথী ও মানিক মিয়া।

> এমএমসি’র পিচিং হবে কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে

এদিকে অনিবার্য কারণে ‘স্টুডেন্ট টু স্টার্টআপ: চ্যাপ্টার- ‘-এর ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ পর্বের ভেন্যু পরিবর্তন করা হয়েছে। শুক্রবার রাতে আয়োজক সংস্থা জানিয়েছে,ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজের পরিবর্তে পিচিং অনুষ্ঠিত হবে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষি অর্থনীতি ও গ্রামীণ সমাজবিজ্ঞান অনুষদের গ্যালারীতে।

পিচিং রাউন্ডে অংশ নিতে সকাল ৯টার মধ্যে পরিবর্তিত ভেন্যুতে শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণের অনুরোধ জানানো হয়েছে। এক্ষেত্রে সহায়তার জন্য ইয়াং বাংলার ক্যাম্পাস অ্যাম্বাসেডর আরিফা সুলতানা ও সুমন হোসনের সঙ্গে যোগাযোগ করতে হবে প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণে ইচ্ছুক শিক্ষার্থীদের।

ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য যোগাযোগ প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের আইসিটি বিভাগের ইনোভেশন ডিজাইন অ্যান্ড এন্ট্রাপ্রেনারশিপ একাডেমি-আইডিয়া প্রকল্প এবং দেশের তরুণদের স্বপ্নের ও সবচেয়ে বড় প্লাটফর্ম ইয়াং বাংলা’র যৌথ উদ্যোগে চলছে এ স্টার্টআপ প্রতিযোগিতা।

যে কোনো বিশ্ববিদ্যালয় বা মেডিকেল কলেজের স্নাতক বা স্নাতকোত্তর পর্যায়ের ছাত্রছাত্রীরা ১ থেকে ৩ সদস্য বিশিষ্ট টিম গঠন করে নিজের সুবিধা অনুসারে পুর্বে নির্ধারিত ৪০টি ক্যাম্পাসের যে কোনো একটিতে রেজিষ্ট্রেশনের মাধ্যমে ঐ ভেন্যুতে নির্দিষ্ট তারিখে অংশগ্রহণ করতে পারবে। বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের দুদিনের আয়োজনের প্রথম দিন কর্মশালা এবং দ্বিতীয় দিন পিচিং অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

গত ৮ মার্চ, ‘আমার উদ্ভাবন, আমার স্বপ্ন’ স্লোগানে শুরু হয় শিক্ষার্থীদের উদ্যোক্তা হিসেবে গড়ার এই প্লাটফর্ম। সেরা ভাবনা দিয়ে ১০ লাখ টাকা থেকে কোটি টাকা পযন্ত বিনিয়োগ সহায়তা পাবার সুযোগটি ইতোমধ্যে বেশ আলোচনায় উঠে এসেছে।

মূলত দেশের আট বিভাগ থেকে ৪০টি বিশ্ববিদ্যালয়কে কেন্দ্র করে পরিচালিত হবে ‘স্টুডেন্ট টু স্টার্টআপ: চ্যাপ্টার ওয়ান’ প্রতিযোগিতা। ক্যাম্পাস পর্যায়ের প্রতিযোগিতায় প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাছাই করা হবে ৩টি করে দলকে। ৪০টি বিশ্ববিদ্যালয়ে ১২০টি দল নিয়ে সাভারে অনুষ্ঠিত হবে ‘জাতীয় স্টার্টআপ ক্যাম্প। সেখান থেকে নির্বাচন করা হবে সেরা ১০ উদ্ভাবনী ভাবনা।