SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon বাংলার সময়

আপডেট- ১৬-০৪-২০১৯ ১৫:২৩:৩০

হত্যার ৫ মাস পর মামলা!

bagerhat

বাগেরহাটের শরণখোলায় গৃহবধু হালিমা বেগম (২০) হত্যার ৫ মাস পর থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। আদালতের নির্দেশে শরণখোলা থানা পুলিশ ১০ এপ্রিল মামলাটি নথিভুক্ত করে। নিহতের বড় ভাই মাসুম মিয়া বাদী হয়ে হালিমা বেগমের স্বামী আল আমিন মুন্সিসহ ৮ জনকে আসামি করে এ মামলা দায়ের করেন। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত(মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে ৩টা) পুলিশ কোনো আসামিকে গ্রেফতার করতে পারেনি।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, ২০১৭ সালের ২০ মার্চ হালিমার সাথে আল আমিন মুন্সির বিয়ে হয়। বিয়ের পরই ১০ লাখ টাকা যৌতুকের দাবিতে হালিমাকে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করতে থাকে আল আমিন। এক পর্যায়ে ২০১৮ সালের ২২ অক্টোবর যৌতুকের টাকা না দেয়ায় হালিমাকে মারধর করে। পরে হালিমাকে শরণখোলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রেখে পালিয়ে যায়, আল আমিন ও তার পরিবারের লোকেরা। পরে কর্তব্যরত চিকিৎসক হালিমাকে মৃত ঘোষণা করেন। ঘটনার পরের দিন পুলিশ নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য বাগেরহাট সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেন।

নিহতের বড় ভাই নাসির উদ্দিন বলেন, বিয়ের পর থেকে বোনের সুখ শান্তির আল আমিনকে অর্থ দিয়ে সহায়তা করেছি। যৌতুকের লোভে পরিকল্পিতভাবে আমার বোনকে হত্যা করেছে ওরা। আমরা ন্যায় বিচারের স্বার্থে আদালতে মামলা করেছি। তবে হত্যাকারীদের বিচার হওয়া নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করে আরও বলেন, আসামিরা প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে, অজ্ঞাত কারণে তারা গ্রেফতার হচ্ছে না।

শরণখোলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দিলিপ কুমার বলেন, হালিমা হত্যার ঘটনায় আদালতের নির্দেশে থানায় মামলা নথিভুক্ত করা হয়েছে। আসামিদের আটকে পুলিশ তৎপর রয়েছে।