SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon বাংলার সময়

আপডেট- ১৬-০৪-২০১৯ ১৪:৪৬:৪৭

মালিকপক্ষের নির্দেশ লঞ্চ ছাড়ার, ধর্মঘট অব্যাহত রাখার ঘোষণা নৌ-শ্রমিকদের

strike-total11

বিআইডব্লিউটিএ এবং মালিক পক্ষ রাজধানীর সদরঘাট থেকে বিভিন্ন গন্তব্যে লঞ্চ ছাড়ার ঘোষণা দিলেও ধর্মঘট অব্যাহত রাখার কথা জানিয়েছেন নৌ-শ্রমিকরা। নৌপথে চাঁদাবাজি, নির্যাতন বন্ধসহ ১১ দফা বাস্তবায়নের দাবিতে বাংলাদেশ নৌযান শ্রমিক ফেডারেশনের ডাকে সারাদেশে চলছে অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতি। এতে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে এ রুটের যাত্রীদের।

পূর্ব ঘোষিত কর্মবিরতির কারণে সোমবার (১৫ এপ্রিল) রাত থেকে বরিশাল নদী বন্দর থেকে অভ্যন্তরীণ ও দূরপাল্লার রুটের কোন নৌযান ছেড়ে যায়নি। এতে বিপাকে পড়েন যাত্রীরা। আন্দোলনরত শ্রমিকদের দাবি, বার বার আশ্বাসের পরও দাবি আদায় না হওয়ায় অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতি পালন করছেন তারা।

বরিশাল লঞ্চ লেবার এসোসিয়েশনের সভাপতি শেখ মো. আবুল হাশেম বলেন, জাহাজে কর্মরত অবস্থায় কোন কর্মচারী মারা গেলে দায়সারাভাবে তার লাশ বাড়িতে পাঠিয়ে দায়িত্ব সারে লঞ্চ মালিকরা। কোন ক্ষতিপূরণও দেয়া হয়না। এ সম্পর্কিত বিষয়গুলোই আমাদের প্রধান দাবি।

নৌপথে সন্ত্রাস চাঁদাবাজি বন্ধ, ২০১৬ সালের ঘোষিত বেতন স্কেলের পূর্ণ বাস্তবায়নসহ ১১ দফা দাবিতে খুলনায় নৌযান শ্রমিকদের কর্মবিরতি চলছে। সকাল (১৬ এপ্রিল) থেকে বন্ধ রয়েছে পণ্যবাহী সব ধরণের নৌযান চলাচল।

এদিকে দুপুরে রাজধানীর সদরঘাটে শ্রমিকদের সঙ্গে কথা বলেন লঞ্চ মালিক সমিতির নেতা ও বিআইডব্লিউটিএ কর্মকর্তারা। পরে সদরঘাট থেকে বিভিন্ন রুটে লঞ্চ ছাড়ার ঘোষণা দেয়া হয়। সন্ধ্যায় পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে বলে দাবি করে বিআইডব্লিউটিএ ও লঞ্চ মালিকপক্ষ।