SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon বাণিজ্য সময়

আপডেট- ১৬-০৪-২০১৯ ১১:৪১:৩৮

ক্রয় ক্ষমতার সাথে বাড়ছে উৎসব কেন্দ্রিক বেচা-কেনা

boishakh-shop

সাধারণ মানুষের ক্রয় ক্ষমতা বৃদ্ধি পাওয়ায় দিন দিনই বাড়ছে উৎসব কেন্দ্রিক বেচা-বিক্রি। বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতির তথ্য মতে, এ বছর শুধু বৈশাখকে কেন্দ্র করে সারাদেশে বিক্রি হয়েছে সাড়ে পাঁচ হাজার কোটি টাকার পণ্য। বিশ্লেষকদের মতে, অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জনে উৎসব কেন্দ্রিক বেচাকেনা রাখতে পরে বড় ভূমিকা। এ জন্য উদ্যোক্তাদের দেশিয় পণ্য উৎপাদনে মনোযোগী হওয়ার আহ্বান তাদের।

বৈশাখী উৎসব। বিশ্বের বুকে আলাদা করে পরিচয় করিয়ে দেয় বাঙালিকে। প্রতিটি উৎসবেই নতুন পোশাকে নিজেকে মেলে ধরে শিশু, যুবক আবাল বৃদ্ধ বনিতা।

উৎসব কেন্দ্রিক কেনাকাটাও জমে ওঠে পুরোদমে। সংস্কৃতির বহমানতায় ঐতিহ্যকে লালন করে সেজে ওঠে ফ্যাশন হাউজগুলো। গেল পহেলা বৈশাখকে কেন্দ্র করে তাই সারাদেশেই ছিলো কেনাকাটার ধুম। ব্যস্ত সময় পার করতে হয়েছে মিষ্টি দোকানীদেরও। প্রত্যাশারে চেয়ে বেশি বিক্রি হওয়ায় বিক্রেতাদের চোখে মুখে ছিলো সন্তুষ্টির ছাপ।

বিক্রয়ের এ ধারা অব্যাহত থাকলে বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতির প্রত্যাশা শুধু পহেলা বৈশাখ ঘিরেই প্রতিবছর হতে পারে ২৫ হাজার কোটি টাকার বেচা-বিক্রি।

বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতি সভাপতি মো. হেলাল উদ্দিন বলেন, 'এবার সাড়ে ৫ থেকে ৬ হাজার কোটি টাকা অতিরিক্ত বেচা-বিক্রি হবে। আমার মনে হয় আমাদের প্রত্যাশা পূরণ হয়েছে। আগামীতে এটি কয়েকগুণ বাড়বে।'

উৎসব কেন্দ্র করে সৃষ্টি হওয়া সুযোগ কাজে লাগিয়ে দেশিয় পণ্য উৎপাদনে উদ্যোক্তাদের এগিয়ে আসার আহ্বান অর্থনীতিবিদদের।

বাজার বিশেষজ্ঞ মো. হেলাল উদ্দিন বলেন, 'বাংলাদেশ জুড়ে বৈশাখজুড়ে যে আলাদা কর্যক্রম দেখছি সেটি ভোগের পাশাপাশি উৎপাদনেও প্রভাব ফেলছে।'

উৎসবের আনন্দে জরাজীর্ণতা ঘুচিয়ে সমৃদ্ধি আর ব্যবসায়িক অগ্রগতির গন্তব্যে এগিয়ে যাবে প্রিয় বাংলাদেশ, এমনটাই প্রত্যাশা ব্যবসায়ীদের।