SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon আন্তর্জাতিক সময়

আপডেট- ১১-০২-২০১৯ ১৬:৪৭:৫০

ইরানের ইসলামি বিপ্লবের ৪০তম বার্ষিকী আজ

iran-revu

ইরানের ইসলামি বিপ্লবের ৪০তম বার্ষিকী আজ। ১৯৭৯ সালে মার্কিন সমর্থনপুষ্ট তৎকালীন শাহ মোহাম্মদ রেজা পাহলাভি'র পতন হয়। জন্ম নেয় নতুন এক ইরান। পশ্চিমা ভাবধারায় পরিচালিত ইরান রাতারাতি পরিণত হয় কট্টর মার্কিনবিরোধী রাষ্ট্রে। একইসঙ্গে এই বিপ্লব যুক্তরাষ্ট্র এবং ইরানের মধ্যে অবিশ্বাস ও শত্রুতার বীজ বপন করে। যা আজ রূপ নিয়েছে চরম বৈরিতায়।

১৯৭৮ সাল। ইরানের রাজধানী তেহরানসহ সারা দেশে তৎকালীন শাহ, মোহাম্মদ রেজা পাহলাভি'র বিরুদ্ধে ছড়িয়ে পড়ে বড় ধরনের বিক্ষোভ। অংশ নেন শিক্ষার্থী, সাধারণ নাগরিকসহ সব শ্রেণি পেশার মানুষ।

বিক্ষোভ দমাতে নিরাপত্তা বাহিনী গুলি চাললে নিহত হন বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী। এতে ইরানজুড়ে ক্ষোভের আগুন কয়েকগুণ বেড়ে যায়। শুরু হয় শাহ রেজার পতনের আন্দোলন। কয়েক মাসে র বিক্ষোভের পর তিনি, ১৯৭৯ সালের ১৬ই জানুয়ারি, কঠোর নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে মিশরের উদ্দেশ্যে ইরান ত্যাগ করেন।

রেজা দেশ ত্যাগের পর পয়লা ফেব্রুয়ারি প্রায় পনেরো বছরের নির্বাসন শেষে ইরান ফেরেন আয়াতুল্লাহ খোমেনি। দেওয়া হয় বিপুল সংবর্ধনা।

তখন শাহ রেজার সমর্থকরা বিক্ষোভ শুরু করলে, বিপ্লবীদের সঙ্গে তাদের তুমুল সংঘর্ষ শুরু হয়। যা বেশ কয়েকদিন অব্যাহত থাকে। বিভক্ত হয়ে পড়েন সাধারণ ইরানিরা। সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় গণভোট আয়োজনের।

১১ই ফেব্রুয়ারি গণভোটে জয় পায় আয়াতুল্লাহ খোমেনি'র সমর্থকরা। ইরান রূপান্তরিত হয় ইসলামি প্রজাতন্ত্রে। ক্ষমতা চলে যায় দেশটির ধর্মীয় নেতাদের কাছে। গঠন করা হয় নতুন সরকার।

এরমধ্যেই চিকিৎসা নিতে যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি জমান ক্ষমতাচ্যুত শাহ রেজা। এতে ওয়াশিংটনের ওপর মারাত্মক ক্ষুব্ধ হয় তেহরান। মার্কিন দূতাবাসে হামলা চালায় বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীরা। তারা জিম্মি করেন ৫২ আমেরিকানকে। এ ঘটনার জেরে ১৯৮০ সালের এপ্রিলে, ইরানের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করে যুক্তরাষ্ট্র। দেশটির বিরুদ্ধে প্রথমবারের মতো আরোপ করা হয় মার্কিন নিষেধাজ্ঞা।

৪৪৪ দিন পর ছেড়ে দেওয়া হয় মার্কিন জিম্মিদের। কিন্তু ইরানের ওপর থেকে অবরোধ তুলে নিতে অস্বীকৃতি জানায় যুক্তরাষ্ট্র। আর তখন থেকেই দেশ দুটির মধ্যে দানা বাঁধতে শুরু করে অবিশ্বাসের। সময় বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে সেই অবিশ্বাসই রূপ নেয় চরম শত্রুতায়।

১৯৭৯ সালে এই আজাদি স্কয়ারেই সংগঠিত হয়েছিল ইরানের ইসলামি বিপ্লব। চার দশক পরে এসে পশ্চিমাদের নিষেধাজ্ঞায় জর্জরিত ইরানিদের স্বাভাবিক জীবনযাত্রা। কিন্তু অধিকাংশ বিশ্লেষকদের মত, এসব অবরোধ শাসকগোষ্ঠীর রক্ষণশীল ধারাকেই শক্তিশালী করেছে। ইরানের সাড়ে ১৬ লাখ বর্গকিলোমিটার ছাড়িয়ে, তেহরানের প্রভাবের পরিধি বেড়েছে সিরিয়া, ইয়েমন, লেবানন পর্যন্ত।