SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon আন্তর্জাতিক সময়

আপডেট- ১২-০৯-২০১৮ ১৬:৫০:০৬

যুক্তরাষ্ট্রের দিকে ধেয়ে আসছে শক্তিশালী হারিকেন

j

যুক্তরাষ্ট্রের পূর্বাঞ্চলের দিকে ধেয়ে আসছে গেল তিন দশকের মধ্যে ইতিহাসের অন্যতম শক্তিশালী হারিকেন ফ্লোরেন্স। চার মাত্রার হারিকেনটি আরো শক্তি সঞ্চার করে বৃহস্পতিবার দেশটির নর্থ ক্যারোলাইনায় আঘাত হানবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এদিকে নিজেদের সর্বশক্তি দিয়ে হারিকেন ফ্লোরেন্স মোকাবিলার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।


ইতিহাসের অন্যতম শক্তিশালী হারিকেন ফ্লোরেন্স ধেয়ে আসায় প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের নর্থ ক্যারোলাইনার বাসিন্দারা। ক্ষয়ক্ষতি থেকে ঘরবাড়িকে রক্ষা করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থার পাশাপাশি দুর্যোগের সময়ে টিকে থাকতে বিশুদ্ধ পানি, শুকনো খাবার, ওষুধসহ প্রয়োজনীয় সবকিছু সংগ্রহে রাখছেন তারা।

জানি না কি হবে, তবে আমরা প্রস্তুতি নিচ্ছি, হারিকেনটি আঘাত হানার আগ পর্যন্ত আমরা ক্ষয়ক্ষতি কমাতে চেষ্টা করবো আমরা। এখানে সবাই সবার খোঁজ খবর রাখছেন, সবাই মিলেই এটা মোকাবিলায় কাজ করবো।

মানুষজন নিরাপদে আছেন, তারা আগে যেভাবে এসব দুর্যোগ মোকাবিলা করেছেন এবারো সেভাবেই প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল হারিকেন সেন্টার জানায়, বৃহস্পতিবার দেশটির নর্থ ক্যারোলাইনায় চার মাত্রার শক্তিশালী হারিকেনটি আঘাত হানতে পারে। যেটি ঘণ্টায় ২২৫ কিলোমিটার বেগে উপকূলের দিকে ধেয়ে আসছে এবং ক্রমেই তা আরও শক্তিশালী হয়ে উঠছে বলে উল্লেখ করা হয়। এর প্রভাবে ওই অঞ্চলে বন্যা ও ভূমিধ্বসের সৃষ্টি হতে পারে বলে আশঙ্কা করছে কর্তৃপক্ষ।

নর্থ ক্যারোলাইনার গভর্নর রয় কুপার বলেন, 'এটা অনেকটা দৈত্যর মতো ধেয়ে আসছে। সত্যিই এটা অনেক ভয়ঙ্কর, আর তাই নাগরিকদের নিরাপদে সরে যাওয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। নর্থ ক্যারোলাইনায় যে যেখানে আছেন এটা মোকাবিলায় সবাইকে প্রস্তুত থাকতে বলা হচ্ছে।'

এদিকে মঙ্গলবার হোয়াইট হাউজে এক সংবাদ সম্মেলনে হারিকেন ফ্লোরেন্সকে মোকাবিলায় সবধরনের সহযোগিতার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তিনি বলেন, 'সবার আগে মার্কিন নাগরিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করাই আমার একমাত্র দায়িত্ব, আমরা হারিকেন ফ্লোরেন্স মোকাবিলায় পুরোপুরি প্রস্তুত। এর আগে এমন প্রস্তুতি কেউ কখনো নেন নি। এটা অনেক ভয়াবহ হতে পারে, তবে আমরা আমাদের সর্বোচ্চ চেষ্টা করবো।'

এরমধ্যেই হারিকেন ফ্লোরেন্স ধেয়ে আসায় নর্থ ক্যারোলাইনা, সাউথ ক্যরোলাইনা, ভার্জিনিয়া, মেরিল্যান্ড ও ওয়াশিংটন ডিসিতে জরুরী অবস্থা জারি করেছে স্থানীয় কর্তৃপক্ষ। বন্ধ রাখা হয়েছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ সব সরকারি প্রতিষ্ঠান।