SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon আন্তর্জাতিক সময়

আপডেট- ২৫-০৮-২০১৮ ১৭:৩২:৪৮

কোরীয় যুদ্ধে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়া স্বজনদের পুনর্মিলন অনুষ্ঠিত

nko-sko

কোরীয় যুদ্ধে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়া পরিবার ও স্বজনদের দ্বিতীয় দফায় পুনর্মিলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার উত্তর কোরিয়ার পর্যটন রিসোর্ট মাউন্ট কুমগ্যাংয়ে স্বজনদের সঙ্গে দেখা করতে আসেন দক্ষিণ কোরিয়ার ৮১ টি পরিবারের ৩০০ জনের বেশি সদস্য। এসময় দীর্ঘ ছয় দশক পর বিচ্ছিন্ন প্রিয়জনরা মিলিত হলে এক আবেগঘন পরিবেশ সৃষ্টি হয়।

প্রিয়জনকে জড়িয়ে ধরে এভাবেই কান্নায় ভেঙে পড়েন দুই কোরিয়ার মানুষ। যুদ্ধের ডামাডোলে কেউ হারিয়েছিলেন বাবা-মাকে, কেউ সন্তান, ভাই-বোন বা পরিবারের অন্য সদস্যকে। আর কোনদিন দেখা হওয়ার আশা প্রায় ছেড়েই দিয়েছিলেন তারা। তবে দীর্ঘ ছয় দশক পর মাত্র একটি দিনের জন্য এই দেখা।

পুনর্মিলনীতে অংশ নেয়া কোরীয়দের মধ্যে অধিকাংশই প্রবীণ। অনেকেই জানতেন না সীমান্তের ওপারে হারিয়ে ফেলা পরিবারের সদস্যরা আর বেঁচে আছেন কিনা। তবুও অনেকেই প্রিয়জনকে একটিবার দেখার আসায় দীর্ঘ পথ পাড়ি দিয়ে আসেন উত্তর কোরিয়ার এই পর্যটন রিসোর্টে।

পুনর্মিলনীতে অংশ নেয়া একজন জানান, আমার মা কোথায়? তিনি আর বেঁচে নেই। তিনি কবে মারা গেছেন? বিশ বছর আগে। ১৯৯৯ সালে।

শুক্রবার বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়া স্বজনদের সঙ্গে দেখা করতে উত্তর কোরিয়ার ডায়মন্ড মাউন্ট রিসোর্টে আসেন দক্ষিণ কোরিয়ার ৮১ টি পরিবারের ৩০০ জনের বেশি সদস্য। ২৪ আগস্ট থেকে শুরু হওয়ার দ্বিতীয় দফার তিনদিনের এ পুনর্মিলনীতে দলে দলে পরিবারের সঙ্গে মিলিত হচ্ছেন তারা।

আরেকজন জানান, আমি তোমার জন্য ৬৮ বছর ধরে অপেক্ষা করছি।

বাবা-মা তোমরা কোথায়? আজ কি ওপর থেকে আমাদের দুজনকে দেখতে পাচ্ছো তোমরা?

গত মে মাসে উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন ও দক্ষিণ কোরিয়ার মুন জে ইন ১৯৫০ থেকে ১৯৫৩ সালের কোরীয় যুদ্ধে বিচ্ছিন্ন পরিবারের পুনর্মিলনের ব্যাপারে সম্মত হন।

এক বৈঠকে দুই কোরিয়ার এ পারিবারিক পুনর্মিলনের ব্যাপারে সম্মত হন। এরপরই পুনর্মিলনের