SomoyNews.TV

পশ্চিমবঙ্গ

আপডেট- ২৫-০৮-২০১৮ ১১:৩৬:১৫

গুপ্তধনের লোভে বাড়ি খুঁড়ে কুয়া বানালেন কৃষক!

gupta-dhan

স্বপ্নে দেখেছিলেন বাড়ির মাটির নিচে গুপ্তধন রয়েছে। আর সেই স্বপ্ন দেখার পরই স্থানীয় এক তন্ত্র-সাধকের দ্বারস্থ হয়েছিলেন পশ্চিমবঙ্গের রাজধানী কলকাতা থেকে আনুমানিক ২৫০ কিলোমিটার দূরের বাঁকুড়ার জেলার কৃষক রোহিত নন্দী।

তান্ত্রিকের পরামর্শ, ‘তুমি যা স্বপ্নে দেখেছো সেটাই সত্যি। বাড়ির মাটির তলায় গুপ্তধন আছে। সেটা খুঁড়ে বের করতে হবে। তবেই তুমি বড়লোক হবে।’

-ব্যাস, রোহিত নন্দী গ্রামের কুয়াকাটা বাহিনীর সঙ্গে চুক্তি করেন। এরই মধ্যে প্যান্ডেল বেঁধে দিয়ে গোটা বাড়ি ঘিরে ফেলেন ত্রিপল দিয়ে। শুরু হয় দিনরাত্রি মাটি খোঁড়াখুঁড়ির কাজ।

দুই দিনে ২৪ ফুট মাটিও খুঁড়ে ফেলেন কুয়া-কাটার মিস্ত্রীরা। কিন্তু গুপ্তধন কোথায়? নেই তো কিছুই। আবারও তাদের নতুন করে কন্ট্রাক্ট দেওয়া হয়। আনা হয় আরো মিস্ত্রীকে। এত লোকজন দিয়ে মাটি খোঁড়ার চেষ্টা শুরু হলে বিষয়টি নজরে আসে প্রতিবেশীদেরও।

কৌতূহল হয়ে অনেকেই ওই কৃষকদের বাড়িতে ঢুকে ঘটনা দেখার চেষ্টা করেন। কিন্তু গুপ্তধনের অগ্রিম তথ্য ফাঁস হয়ে যাওয়ার ভয়ে রোহিত নন্দী কাউকেই তার বাড়ির সীমানা দাঁড়াতে দিচ্ছিলেন না। এ নিয়েই প্রথমে প্রতিবেশীদের সঙ্গে ঝগড়া শুরু হয়। এই ঝামেলার খবর যায় স্থানীয় থানায়। পুলিশ গিয়ে গোটা বিষয়টি দেখে রীতিমতো ‘তাজ্জব’ বনে যায়।

ঘটনার রহস্য জানাতে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য শুক্রবার (২৪ আগস্ট) সন্ধ্যায় স্থানীয় থানায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে রোহিত নন্দীকে। থানায় যাওয়ার পথে উপস্থিত সাংবাদিকদের গুপ্তধন স্বপ্নে দেখা রোহিত বলেন, সম্প্রতি তিনি স্বপ্নে দেখেছিলেন যে তার বাড়ির মধ্যেই রয়েছে গুপ্তধন। মাটি খুঁড়লেই সেই গুপ্তধন মিলবে তার।

ওই কৃষকদের দাবি, সারাদিন চাষবাস করে তিন বেলার আহারও জোটাতে কষ্ট হচ্ছিল, যদিও গুপ্তধন মেলে তবে সেই কষ্ট আর থাকবে না। এর জন্যই গুপ্তধন পেতে মাটি খুঁড়ছিলেন কুয়া-কাটার মিস্ত্রী এনে।