SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon মহানগর সময়

আপডেট- ১৯-০৫-২০১৮ ০৯:৩১:৪৫

আত্মরক্ষার কৌশল শিখছেন নারীরা

self-defense

প্রতিনিয়ত বাড়ছে নারী নির্যাতন, ঘরে বাইরে সহিংসতার শিকার হচ্ছে নারী। প্রয়োজনীয় সময়ে যাতে নিজেকে রক্ষা করতে পারে তাই অনেকেই যাচ্ছেন আত্মরক্ষার কৌশল রপ্ত করছেন।

নারীরা বলছেন, এতে তাদের মানসিক জোর বাড়ে। নারী অধিকার কর্মীরা বলছেন, এতে নারীকে হয়রানির ঘটনা কিছুটা হলেও কমবে।

নারীর জীবন এখন আর চার দেয়ালে বন্দি নয়। প্রয়োজন-অপ্রয়োজনে তাকে যেতে হয় ঘরের বাইরে। কিন্তু যেখানে ঘরেই নারীকে শিকার হতে হচ্ছে হয়রানির, বাইরের নিরাপত্তা সেখানে রূপকথা।

রাজধানীর একটি প্রশিক্ষণকেন্দ্রে কারাতের প্রশিক্ষণ নেয়া এক কিশোরী জানায়, 'এখান থেকে যে কৌশলগুলো শিখছি সমস্যায় পড়লে সেগুলো কাজে লাগাবো।'

আরেক কিশোরী জানায়, 'ট্রেনিং নিয়ে আত্মবিশ্বাস বাড়ে আবার এক্সারসাইজও হয়ে যায়।'

কন্যা সন্তানকে শৈশব থেকেই আত্মরক্ষার প্রয়োজনীয় কৌশল শেখাতে আগ্রহী হচ্ছেন অভিভাবকরাও।

এক অভিভাবক বলেন, 'বর্তমান যে পরিস্থিতি তাতে মেয়েদের আত্মরক্ষার জন্য এটা খুবই জরুরি হয়ে পড়েছে।'

নিরাপত্তার দায়িত্ব যখন সমাজ ও রাষ্ট্রের কাঁধে থাকার পরেও মিলছে না প্রতিকার, তখন নিজের নিরাপত্তার দায়িত্ব নিজের কাঁধেই তুলে নিচ্ছে নারীরা। আত্মরক্ষার সঠিক কৌশল জেনে তাৎক্ষণিক প্রতিবাদ করলে তার প্রভাব পড়বে অপরাধীর মনস্তত্বে, এমন চিত্র উঠে এসেছে বেশ কিছু গবেষণায়ও।

অপরাধীরা ভীতু ও দুর্বল। পাল্টা আঘাত হানতে পারলেই দ্রুত পাল্টা যাবে দৃশ্যপট বলে মন্তব্য করেছেন নারী অধিকার কর্মীরা।

নারী অধিকারকর্মী রাশেদা রওনক খান বলেন, 'কৌশলটা শিখতে হবে। কিন্তু এটা ঘরে বসে জানা যাবে না। যদি কোনো প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা নেওয়া যায় তাহলে সম্ভব। শারীরিকভাবে সবাই এইরকমভাবে সবল হবে না। কিন্তু মানসিকভাবে যদি সে নিতে পারে তাহলে মানিয়ে নেয়া সম্ভব।'

নারীদের এমন কর্মশালা ব্যবস্থার জন্য নিজের কিছু করার তাগিদই বড় বলে জানালেন উদ্যোক্তারা।

সেনসি মশিউর রহমান বলেন, 'এতে মন এবং শরীর দুইটাই মজবুত হয়ে যায়। যে কারণে প্রতিবাদ করার মানসিক এবং শারীরিক একটা শক্তিমত্তা চলে আসে।'

বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের উদ্যোগে জুডো, কারাতে, মার্শাল আর্ট, ক্রাভ-মাগা, তায়কেয়ান্দ ইত্যাদি কৌশল শেখানো হচ্ছে নারীদের।