SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon মহানগর সময়

আপডেট- ১৯-০৩-২০১৮ ১৭:০১:১৬

বনানী কবরস্থানেই শেষ আশ্রয় ক্যাপ্টেন আবিদের

abid-sultan

 ইট পাথরের শহরেই তার শৈশব ও লেখাপড়ার সময় কেটেছে। যে শহর থেকে তিনি ছুটে বেড়াতেন দূর দেশের অন্যান্য ঝিলমিল করা শহরগুলোতে সে শহরেরই মাটির বুকে তাঁর সমাধি হলো। নিয়তির এমনই ফের, নিয়তিই জয়যুক্ত হলো শেষ পর্যন্ত। আবিদ সুলতান এখন নিশ্চিন্তে অচিন ঘুমে রত থাকবেন বনানীর কবরস্থানে।

ইউ-এস বাংলার নিহত পাইলট আবিদ সুলতানের দাফন হচ্ছে রাজধানীর বনানী কবরস্থানে। নিহত পাইলটের ভাই খুরশীদ মাহমুদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। পারিবারিক অনুমতিক্রমেই তাকে বনানীতে দাফনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে জানানো হয়েছে।


আবিদ সুলতানের বাবাও পাইলট ছিলেন। আবিদের একমাত্র পুত্র তানজিব বিন সুলতান। তানজীব ঢাকাস্থ একটি স্কুলে ও'লেভেল পড়ছে।

চাকরির সুবাদে ৬৫ বছর ধরে কাশেম খান ঢাকার নিবাসী। সেকারণে আবিদের জন্ম ও বেড়ে ওঠাও ঢাকায়। একটি পুরনো বাড়ি রয়েছে নওগাঁর রানীনগরের খানপাড়া গ্রামে। তবে ঢাকাকেন্দ্রিক জীবন হওয়ায় দীর্ঘদিন যাওয়া আসা ছিল না সেখানে।

১২ মার্চ সোমবার ঢাকা থেকে ছেড়ে যাওয়া ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের ফ্লাইট বিএস-২১১ নেপালের রাজধানী কাঠমান্ডুর ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে দুর্ঘটনায় পতিত হয়। ৬৭ যাত্রী ও চার ক্রুসহ বেলা ২টা ২০ মিনিটে বিমানটি বিমানবন্দরের পাশের একটি মাঠে বিধ্বস্ত হয়।

কাঠমান্ডুর নরভিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আবিদ সুলতান মঙ্গলবার ভোরে মারা যান।

স্বামী আবিদের মৃত্যুতে স্ত্রী আফসানা খানমও গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন। তাকে বর্তমানে লাইফ সাপোর্টে রেখে চিকিৎসাসেবা দেয়া হচ্ছে।