SomoyNews.TV

Somoynews.TV icon মহানগর সময়

আপডেট- ১৬-০৩-২০১৮ ১১:২৮:৫৬

নেপাল থেকে দুপুরে দেশে ফিরবেন মেহেদী, স্বর্ণা ও অ্যানি

nepal-10am

নেপালে বিমান দুর্ঘটনায় আহত একই পরিবারের তিন সদস্যকে আজ ঢাকায় পাঠানো হচ্ছে। তারা সুস্থ আছেন বলে হাসপাতালে নয় ফিরে যাবেন নিজ বাড়িতে। 

এছাড়া, আহত আরো পাঁচজনকে ফিরিয়ে আনার পর চিকিৎসা দেয়া হবে ঢাকা মেডিকেলের বার্ন ইউনিটে। এরইমধ্যে সব ধরনের প্রস্তুতি শেষ হয়েছে। এদিকে, আহতদের সার্বিক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ ও নিহতদের পরিচয় শনাক্ত করতে দ্বিতীয় দিনের মতো কাজ শুরু করেছে নেপালে সফররত বাংলাদেশি চিকিৎসকদল। 

নেপালে বিমান দুর্ঘটনায় আহত নরায়ণগঞ্জের ব্যবসায়ী শাহিন ব্যাপারীর চোখে-মুখে এখনও সেদিনের দুঃসহ স্মৃতি। যদিও মনে করতে পারছেন না, ঠিক কী ঘটেছিলো সেদিন। শুধু প্রার্থনা আর কেউ যেন এমন দুর্ঘটনার শিকার না হয়। শরীরের ৩০ শতাংশ পুড়ে যাওয়া শাহিন নেপালেই চিকিৎসা নিতে ইচ্ছুক।

এদিকে ৪ দিন পেরিয়ে গেলেও আজও শনাক্ত হয়নি নিহতদের মরদেহ। যদিও হাসপাতালের মর্গ ঘুরে ঘুরে হতাশ স্বজনদের জন্য কিছুটা হলেও স্বস্তি এনেছে নেপালে সফররত বাংলাদেশি চিকিৎসক দল। নিহতদের মরদেহ শনিবার থেকে হস্তান্তর কার্যক্রম শুরুর আশাবাদ তাদের।

এদিকে দুপুরে একই পরিবারের স্বর্ণা, মেহেদী ও অ্যানির দেশে ফেরার কথা রয়েছে। শারীরিকভাবে সুস্থ থাকায় তারা হাসপাতালে নয়, ফিরবেন নিজ বাসায়। 

এছাড়া আহত আরও ৫ জনকে ঢাকায় এনে চিকিৎসা দেয়া হবে ঢাকা মেডিকেলের বার্ন ইউনিটে। 

ঢাকা মেডিকেলের বার্ন ইউনিটের সমন্বয়কারী ডা. সামন্তলাল সেন বলেন, ‘নেপালে যে চিকিৎসকদল গেছেন, তাদের সঙ্গে আজ সকালে সর্বশেষ কথা হয়েছে। তারা আমাকে যে ইনফর্মেশন দিয়েছে, তা হলো নেপালের বিভিন্ন হাসপাতাল ঘুরে ৮ জন রোগীকে পেয়েছেন, যারা ক্রিটিকালি বার্ন্ট পেশেন্ট।’

তিনি আরও বলেন, ‘এদের মধ্যে দুইজন পেশেন্টের অবস্থা খুব খারাপ। এখনও স্টেবল হননি। একজন পেশেন্ট খুব সিরিয়াস। আর বাকি পাঁচজন পেশেন্টকে তারা শিফ্ট করতে পারবে ঢাকায়। ওদেরকে এয়ারপোর্ট থেকে হাসপাতালেই নিয়ে আসতে হবে। আরও অবজার্ভেশনে রাখতে হবে।’

ঢাকা মেডিকেলে চিকিৎসাধীন শাহারিন আহমেদ শারীরিকভাবে সুস্থ বলেও জানিয়েছেন চিকিৎসক।

দেশের ইতিহাসে সব থেকে বড় এই বিমান দুর্ঘটনায় প্রাণ হারায় ২৬ বাংলাদেশি।