আপডেট
১২-১০-২০১৭, ১৮:২২

লন্ডনের র‌্যাম্পে হাঁটলেন এসিড সন্ত্রাসকে জয় করা বাংলাদেশি নারীরা

acid-survivors
বাংলাদেশে বিভিন্ন সময়ে এসিড সন্ত্রাসের শিকার হওয়া আটজন নারী হাঁটলেন লন্ডনের একটি ফ্যাশন শোয়ের র‌্যাম্পে। দেখালেন, এসিডে ঝলসানো ক্ষত থামাতে পারেনি তাদের জীবনের জয়যাত্রাকে।
মঙ্গলবার রাতে আন্তর্জাতিক মানবাধকিার সংস্থা অ্যাকশন এইডের উদ্যোগে ইস্ট লন্ডনে এই ফ্যাশন শোয়ের আয়োজন করা হয়। সেখানে সাবেক সুপারমডেল ও জাতিসংঘের শুভেচ্ছাদূত বিবি রাসেলের পোশাকে র‌্যাম্পে হাঁটেন এসিড সন্ত্রাসকে জয় করা আট নারী।

উজ্জ্বল রঙের তাতের শাড়ি আর ঐতিহ্যবাহী বাঙালি সাজে বাংলাদেশের এই নারীরা নাচে গানে মাতিয়ে রাখেন দর্শকদের। জানান, এসিডে তাদের মুখ ঝলসে গেলেও ঘুরে দাঁড়ানোর জীবনীশক্তি কখনও হারাননি তারা।

এমনই এক লড়াকু নারী নুরুন্নাহার। বিবিসিকে ওদওয়া এক সাখ্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘যখন আমার দিকে এসিড ছুঁড়ে মারা হয়েছিলৈা, আমার বয়স ছিলো কেবল ১৫। ওই ঘটনার পর আমি ধরে নিয়েছালাম, আমার জীবন এখানেই শেষ।’

তবে এখন নিজেকে নিয়ে অনেক আত্মবিশ্বাসী নুরুন্নাহার। 

বলেন, ‘তবে এখন আমি আগের চেয়ে আত্মবিথআসী। আমি মনে করি আমি িআমার স্বপ্ন পূরণ করতে পারবো। হয়তো আমি আমার চেহারা বদলাতে পারবো না, তবে আমি আমার জীবন বদলাতে পারবো।’


এদিনের মডেলদের মধ্যে ছিলেন ১৭ বছরের কিশোরী সোনালীও, এসিড সন্তাসের শিকার যে হয়েছিলো নবজাতক অবস্থাতেই। সেই অবস্থা থেকে ঘুরে দাঁড়িয়ে সোনালীকে এতেদূর নিয়ে আসাটাতে নিজেদের সবচেয়ে বড় অর্জন হিসেবে মনে করছেন অ্রাকশন এইডের নির্বাহী প্রধান গিরীশ মেনন।

তিনি বলেন, ‘এটা আমাদের বিশ্বাসটা আরও বাড়িয়ে দিয়েছে। এই ধরণের অনুষ্ঠান আয়োজন করতে পারাটা আমাদের অন্যতম সাফল্য, কারণ এসিড সন্ত্রাসের শিকার নারীদের এই ধরণের প্ল্যাটফর্ম দিতে পারাটা অন্যদেরও অণুপ্রাণিত করবে।’

অ্যাকশন এইডের বাংলাদেশ প্রধান ফারহানা কবীরের বক্তব্যেও উঠে আসে এসিড সন্ত্রাসে পরাস্ত না হওয়ার বাণী।

তিনি বলেন, ‘এই ধরণের আঘাতে জীবন থেমে থাকে না। অ্যাসিডে আক্রান্ত অন্যান্যদের প্রতি এই ফ্যাশন শোয়ের মাধ্যমে এটিই আমাদের বক্তব্য।’

এর আগে চলতি বছরের মার্চে ঢাতাতেও একইরকমের এক ফ্যাশন শোয়ের আয়োজন করে অ্যাকশন এইড।

নতুন সহস্রাব্দের শুরুতে বাংলাদেশে এসিড সন্ত্রাসের পরিমাণ আশঙ্কাজনক হারে বাড়লেও সরকারি উদ্যোগে এই সংক্রান্ত আইন আরও কঠোর করায় এখন দেশে এই ধরণের অপরাধ অনেক কমে এসেছে।

বিবিসি বলছে, বাংলাদেশে এখন বছরে এসিড সন্ত্রাসের ঘটনা ১০০ টিরও কম, যেখানে যুক্তরাজ্যে বিগত ছয়মাসেই ঘটেছে ৪০০ টিরও বেশি এই ধরণের ঘটনা।

যুক্তরাজ্যের মতো উন্নত বিশ্বের দেশের জন্য এক্ষেত্রে বাংলাদেশ উদাহারণ হতে পারে বলেও মনে করছেন মানবাধকিার বিশেষজ্ঞরা।

সূত্র : বিবিসি, হাফিংটন পোস্ট      




DMCA.com Protection Status

এই বিভাগের সকল সংবাদ

Contact Address

Nasir Trade Centre, Level-9,
89, Bir Uttam CR Dutta Road, Dhaka 1205, Bangladesh
Email: somoydigitalsomoynews.tv

Find us on

  Live TV DMCA.com Protection Status
উপরে