আপডেট
১৩-০৯-২০১৭, ১৮:০৪

'লেজার ক্লিনিকে' নারী রোগীকে হয়রানি: তদন্তে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

lezar-clinic
রাজধানীতে একটি লাইসেন্স বিহীন অভিজাত লেজার ক্লিনিকের বিরুদ্ধে নারী রোগী হয়রানির অভিযোগ উঠেছে। হয়রানির শিকার ওই নারী লিখিত অভিযোগ দেয়ার পর তদন্তে নেমেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। তদন্তে নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে ক্লিনিকটি রাজধানীতে একাধিক শাখা পরিচালনার প্রমাণ পেয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। তাই লেজার ট্রিটমেন্ট নামের ওই ক্লিনিকটির বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছে অধিদপ্তরের পরিচালক। তবে সব অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে ক্লিনিকটির পক্ষ থেকে।
রাজধানীর অভিজাত বনানী এলাকার মূল সড়কে অবস্থিত লেজার ট্রিটমেন্ট নামের এই ক্লিনিকটিতে মূলত উচ্চবিত্তদের ত্বক সমস্যা, কসমেটিক সার্জারি, চুল রিপ্লেসমেন্টসহ নানা আধুনিক চিকিৎসা করানো হয়। যেখানে পুরুষের চেয়ে তুলনামূলক নারী রোগীরাই বেশী আসেন।

সেলিনা নামে এমনই একজন নারী রোগী গত ২৪শে জুলাই স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে ক্লিনিকটির মালিকের বিরুদ্ধে চিকিৎসার সময় অসৌজন্যমুলক আচরণসহ বেশ কিছু বিষয়ে লিখিত অভিযোগ করেন।

অভিযোগকারী বলেন, জুলাইয়ের মাঝামাঝি সময়ে ট্রিটমেন্ট করাতে গেলে ডিজিটাল ভাবে লক করা রুমে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসকের সঙ্গে একজন সহকর্মী থাকার কথা। কিন্তু ওই সময় কেউ ছিল না। তখন সমস্যাগুলো দেখাতে গেলে ওই চিকিৎসক না বোঝার ভান করে বিভিন্ন স্পর্শকাতর অংশে হাত দেওয়ার চেষ্টা করে। এরপরে রুম থেকে বের হতে গেলে বাধা দেয় ওই চিকিৎসক ।

অভিযোগের ভিত্তিতে ক্লিনিকটির বিরুদ্ধে তদন্তে নামে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। তদন্তে নেমে তারা ক্লিনিকের লাইসেন্স হালনাগাদ না থাকা, প্যাথলজি ও ডায়াগনস্টিক সেবা দেয়ার অনুমোদন না থাকলেও তা দেয়াসহ নানা অসঙ্গতি পায় বলে জানান অধিদপ্তরের পরিচালক। এছাড়া ক্লিনিকটিতে মেয়াদোত্তীর্ন রিএজেন্ট ও প্যাথলজিস্টের বদলে টেকনোলজিস্ট দিয়ে গুরুত্বপূর্ণ পরীক্ষা নিরীক্ষা করার প্রমাণ পাওয়ার কথা জানায় অধিদপ্তর।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক বলেন, যে রিএজেন্ট গুলি ব্যবহার করা হয় তার মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে। ল্যাব টেকনোলোজিস্ট সেখানে রিপোর্ট প্রদান করে। ২০১৫'র পরে লাইসেন্স নবায়ন হয়নি। ডিপ্লোমাধারী কোন নার্স নাই।


তবে এসব অভিযোগ অস্বীকার করে লেজার ট্রিটমেন্টের মালিক দাবি করেন, তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে। এছাড়া তার বনানী শাখা ছাড়া উত্তরায় কোন চলমান শাখা নেই বলেও দাবি করেন তিনি।অভিযুক্ত চিকিৎসক বলেন, তারা যে কোয়ালিটি মেন্টেইন করেন তা বাংলাদেশের কোন হাসপাতালে করা হয় না। তিনি এ ব্যপারে ব্যক্তিগত রেষারেষির কারণে করা হচ্ছে বলে দাবি করেন তিনি।

যদিও সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, উত্তরার জসিমউদ্দিন এলাকায় লেজার ট্রিটমেন্টের একটি শাখা অনেক বছর ধরেই চলছে। পাশাপাশি ১৩ নম্বরও সেক্টরে আরেকটি শাখার কাজ চলছে।




DMCA.com Protection Status

এই বিভাগের সকল সংবাদ

Contact Address

Nasir Trade Centre, Level-9,
89, Bir Uttam CR Dutta Road, Dhaka 1205, Bangladesh
Email: somoydigitalsomoynews.tv

Find us on

  Live TV DMCA.com Protection Status
উপরে