আপডেট
১২-০৮-২০১৭, ১৬:২১

‘গুয়ামে হামলা হলে বড় ধরনের বিপদে পড়বে উত্তর কোরিয়া’

nko-trump-up
গুয়ামে হামলা চালানো হলে তবে উত্তর কোরিয়াকে বড় ধরনের বিপদে পড়তে হবে বলে মন্তব্য করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। উত্তর কোরিয়ার ওপর আরও কঠোর নিষেধাজ্ঞা আরোপের হুঁশিয়ারিও দেন তিনি। কোরীয় উপদ্বীপে উত্তেজনা নিরসনে যুক্তরাষ্ট্রকে হুমকি ধামকি বন্ধ করার পাশাপাশি সব পক্ষকে শান্ত থাকার আহ্বান জানিয়েছেন চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং। ওয়াশিংটন ও পিয়ংইয়ং এর পাল্টাপাল্টি হুমকিতে যুদ্ধের আশঙ্কা বাড়ছে বলে মন্তব্য করেছেন রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ। প্রশান্ত মহাসাগরীয় দ্বীপমালা গুয়ামের বাসিন্দারা অনেকটাই উদ্বিগ্ন সময় পার করছে। উত্তর কোরিয়া গুয়ামে হামলা চালানোর হুমকি দেয়ার পর থেকেই আদৌ হামলা হবে কিনা, যদি হয়ও তবে কি হবে এমন হাজারো প্রশ্ন কাজ করছে তাদের মধ্যে। তবে গুয়ামের গভর্নর সেখানকার বিমান ও নৌ-ঘাঁটিতে ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা-থার্ড মোতায়েন থাকায় উত্তর কোরিয়ার হুমকি থেকে দ্বীপটি সুরক্ষিত বলে জানানোর পর তারা কিছুটা স্বস্তি পেয়েছে। কিন্তু অনেকেরই অভিযোগ গুয়াম দ্বীপের জনগণকে নিয়ে মার্কিন সরকারের মাথা ব্যাথা নেই।

এক নারী বলেন, ‘হতে পারে উত্তর কোরিয়া ফাঁকা বুলি আওড়াচ্ছে, আবার হুমকির বিষয়টি সত্যও হতে পারে। আতঙ্কিত হওয়াটাই স্বাভাবিক। কারণে এখন আমাদের প্রেসিডেন্ট এমন একজন যিনি গুয়ামের জনগণকে মার্কিন বলেই মনে করেন না, তারপরও আমার বিশ্বাস গুয়াম দ্বীপের ওপর যে কোন আঘাত প্রতিহত করবে সরকার।’

গুয়ামের জনগণ নিরাপদে আছেন এবং থাকবেন বলে নিশ্চয়তা দিতে দ্বীপটির গভর্নরকে ফোন করেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। তিনি বলেন, গুয়াম গভর্নরের সঙ্গে আছেন তিনি।

গভর্নর এডি বাসা ক্যালভোও জানান, ট্রাম্প সম্পর্কে নানা সমালোচনা চললেও তিনি সেগুলোকে আমলে নিচ্ছেন না বরং ট্রাম্পের মত এমন একজন প্রেসিডেন্ট থাকায় গুয়াম দ্বীপকে সবচেয়ে নিরাপদ স্থান মনে করছেন বলে জানান তিনি।

যুক্তরাষ্ট্র ও উত্তর কোরিয়ার মধ্যে যে বাগযুদ্ধ শুরু হয়েছে তাতে পরিস্থিতি কেবল ঘোলাটেই হচ্ছে। নিউজার্সির বেডমিনস্টারে গিয়ে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প আবারও বললেন, গুয়াম দ্বীপে আঘাত হানার মত ভুল করলে অনেক বড় সংকটে পড়তে হবে পিয়ংইয়ং-কে।

ট্রাম্প বলেন, ‘আশা করছি উত্তর কোরিয়া আমার বক্তব্যের গুরুত্ব বুঝবে। যুক্তরাষ্ট্রে আঘাত হানলে উত্তর কোরিয়ার অবস্থা কি হবে তা নিশ্চই বুঝতে পারছে না দেশটি। তবে খুব শিগগিরই নিজের ভুল বুঝতে পারবে কিম জং উন। দেশটির ওপর আরও কঠোর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করবো আমরা। আর আমি যা বলি তা শুধু বলার জন্য বলি না, করে দেখাই।’

কোরীয় উপদ্বীপে উত্তেজনা নিরসনে হুমকি পাল্টা হুমকি বন্ধ করে সব পক্ষকে শান্ত থাকার আহ্বান জানিয়েছেন চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিন পিং। ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে ফোনালাপে তিনি এ আহ্বান জানান বলে জানিয়েছে চীনা রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম। উত্তর কোরিয়ার বন্ধু এ রাষ্ট্রের প্রতি পারমাণবিক অস্ত্র কর্মসূচি বন্ধ করতে চাপ প্রয়োগের আহ্বান জানিয়েছেন ট্রাম্প। এর আগে যুক্তরাষ্ট্র যদি উত্তর কোরিয়াকে লক্ষ্য করে প্রথমে হামলা চালায় তবে চীন তা প্রতিহত করবে আর পিয়ংইয়ং যদি আগে হামলা চালায় তবে নিরপেক্ষ থাকবে বলে খবর প্রকাশ করেছিলো চীনা রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম।

যুক্তরাষ্ট্র ও উত্তর কোরিয়ার বাগযুদ্ধে উদ্বেগ জানিয়েছে রাশিয়াও। পাল্টাপাল্টি হুমকি সত্যিকারের যুদ্ধে পরিণত হতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ।

রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘যে পরিস্থিতি দেখা যাচ্ছে তাতে যে কোন সময় বড় ধরনের যুদ্ধ বেঁধে যেতে পারে। তেমন যেন না হয় আমরা সে চেষ্টাই করবো। উত্তর কোরীয় নেতা কিম জং উন'কে পরমাণু কর্মসুচি থেকে সরে আসতে হবে। আর যুক্তরাষ্ট্রকেও দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে যৌথ সামরিক মহড়া বন্ধ করতে হবে। তাহলেই পরিস্থিতি শান্ত হবে বলে মনে করি আমি।’

তবে এসব আহ্বানকে পাত্তা না দিয়ে যুক্তরাষ্ট্র ও দক্ষিণ কোরিয়ার যৌথ সামরিক মহড়া আগের পরিকল্পনা অনুযায়ী নির্ধারিত সময় পর্যন্ত চলবে বলে জানিয়েছে সিউল। বহুদিন ধরেই উত্তর কোরিয়াকে পারমাণবিক কর্মসুচি থেকে সরে আসতে বলছে যুক্তরাষ্ট্র আর প্রতিবেশী রাষ্ট্র দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রকে সামরিক মহড়া বন্ধ করতে বলছে পিয়ংইয়ং।




DMCA.com Protection Status

এই বিভাগের সকল সংবাদ

Contact Address

Nasir Trade Centre, Level-9,
89, Bir Uttam CR Dutta Road, Dhaka 1205, Bangladesh
Email: somoydigitalsomoynews.tv

Find us on

  Live TV DMCA.com Protection Status
উপরে