আপডেট
২১-০৪-২০১৭, ১৬:৫২

কোরীয় সমস্যা সমাধানে চীনা পদক্ষেপের প্রশংসায় ট্রাম্প

untitled-2
যুক্তরাষ্ট্র ও উত্তর কোরিয়ার মধ্যে চলমান উত্তেজনার ধারাবাহিকতায় এবার পিয়ংইয়ং-এর ওপর নিষেধাজ্ঞার পরিসর আরও বাড়ানোর হুমকি দিয়েছে জাতিসংঘ। উত্তর কোরিয়া বিষয়ে রুশ-মার্কিন মতভেদ দেখা দেয়ার পর নিরাপত্তা পরিষদকে ঐকমত্যে পৌঁছানোর আহ্বান জানিয়েছে চীন। এর মধ্যেই কোরীয় সমস্যা সমাধানে চীনা পদক্ষেপের প্রশংসা করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এদিকে, কোনো কিছুর তোয়াক্কা না করে যুক্তরাষ্ট্রে হামলা চালিয়ে দেশটিকে গুঁড়িয়ে দেয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছে উত্তর কোরিয়া।
হুমকি, পাল্টা-হুমকি আর উত্তপ্ত বাক্য বিনিময়ে যুক্তরাষ্ট্র ও উত্তর কোরিয়ার মধ্যে উত্তেজনা বেড়েই চলেছে। পিয়ংইয়ং-এর পরমাণু কর্মসূচি বন্ধে প্রয়োজনে তাদের ওপর শক্তি প্রয়োগের মার্কিন হুঁশিয়ারির পর, বৃহস্পতিবার ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানায় উত্তর কোরিয়ায়। দেশটির রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে এক বিবৃতিতে হামলা চালিয়ে যুক্তরাষ্ট্রকে ধ্বংস করে দেয়ার হুমকি পুনর্ব্যাক্ত করা হয়।

এর মধ্যেই উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে নতুন নিষেধাজ্ঞা আরোপের প্রস্তুতির জানান দিলো জাতিসংঘ। দেশটির বিরুদ্ধ কোরীয় উপদ্বীপে অস্থিরতা তৈরির অভিযোগ তুলে, আর কোনো উস্কানিমূলক আচরণ করলে পিয়ংইয়ং-এর বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণের ইঙ্গিত দিয়ে বৃহস্পতিবার একটি বিবৃতি দেয় নিরাপত্তা পরিষদ।

তবে পরিষদের স্থায়ী সদস্যরাষ্ট্র রাশিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে উত্তর কোরিয়া বিষয়ে কিছু মতপার্থক্য দৃশ্যমান হয়ে উঠেছে। ওয়াশিংটন একতরফা পিয়ংইয়ং-এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের পক্ষে থাকলেও, আলোচনার মাধ্যমে সমস্যা সমাধানের ওপর গুরুত্বারোপ করছে মস্কো।

এ অবস্থায় মতভেদ কাটিয়ে উঠে চলমান সঙ্কট সমাধানে নিরাপত্তা পরিষদকে ঐক্যবদ্ধ সিদ্ধান্ত গ্রহণের আহ্বান জানিয়েছে চীন। অন্যথায় পরিস্থিতি আরও জটিল হয়ে উঠতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছে দেশটির পররাষ্ট্র দপ্তর।

চীনা পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র লু ক্যাং বলেন, 'চীন বিশ্বাস করে, নিরাপত্তা পরিষদের ঐকমত্যের ভিত্তিতে যে কোনো বিরূপ পরিস্থিতি মোকাবিলা করা সম্ভব। কোরীয় উপদ্বীপের উত্তেজনা নিরসনে সবার উচিত দ্রুত একটি গ্রহণযোগ্য সমঝোতায় পৌঁছা।'


এর মধ্যেই কোরিয়া ইস্যুতে অবদানের জন্য চীনের প্রশংসা করলো যুক্তরাষ্ট্র। উত্তর কোরিয়ার ওপর চীন গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব রয়েছে উল্লেখ করে, আগের তুলনায় বর্তমানে বেইজিং সক্রিয় দায়িত্ব পালন করছে বলে মন্তব্য করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, 'কোরিয়া বিষয়ে চীনের পক্ষ থেকে আমরা কার্যকরী কিছু পদক্ষেপ দেখতে পেয়েছি। যা হয়তো আমরা প্রত্যাশা করিনি। আমার বিশ্বাস প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং-এর সঙ্গে আমার বৈঠকে তিনি যেসব কথা দিয়েছিলেন তা পালনে চীনা প্রেসিডেন্ট প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। আশা করবো উত্তর কোরিয়ার পরমাণু কর্মসূচি বন্ধে চীন তাদের ওপর চাপ অব্যাহত রাখবে।'

প্রকাশ্যে এমন বেইজিং বন্দনা সত্ত্বেও কোরীয় উপদ্বীপে চীনা বোমারু বিমান মোতায়েনের খবরে যুক্তরাষ্ট্র সতর্ক অবস্থানে রয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রের বরাতে জানায় গণমাধ্যম। উত্তর কোরিয়ার ওপর যে কোনো আগ্রাসন মোকাবিলায় দেশটির সীমান্তের কাছে রুশ ও চীনা সামরিক বাহিনী মোতায়েনের খবরও পাওয়া গেছে।

তবে উত্তর কোরিয়া ষষ্ঠ বারের মতো পরমাণু অস্ত্রের পরীক্ষা চালালে যুক্তরাষ্ট্র পাল্টা ব্যবস্থা নিতে প্রস্তুত বলে জানিয়েছে মার্কিন সামরিক বাহিনী। পিয়ংইয়ং-এর সম্ভাব্য পারমাণবিক পরীক্ষার প্রস্তুতি মার্কিন গোয়েন্দা বিমানের নজরদারিতে রয়েছে বলেও জানায় ওয়াশিংটন।




DMCA.com Protection Status

এই বিভাগের সকল সংবাদ

Contact Address

Nasir Trade Centre, Level-9,
89, Bir Uttam CR Dutta Road, Dhaka 1205, Bangladesh
Email: somoydigitalsomoynews.tv

Find us on

  Live TV DMCA.com Protection Status
উপরে