আপডেট
২১-০৪-২০১৭, ০৩:২১

প্যারিসে সন্ত্রাসী হামলা: আইএসের দায় স্বীকার

champs-elysees-police-new-m
ফ্রান্সের প্যারিসে হামলাকারী চরমপন্থী ছিলো এবং আগেও তার বিরুদ্ধে অপরাধে লিপ্ত হওয়ার রেকর্ড আছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।
তার পরিচয় সম্পর্কে নিশ্চিত হলেও, তদন্তের স্বার্থে এখনো নাম প্রকাশ করা হয়নি। বৃহস্পতিবার ওই সন্ত্রাসী হামলায় এক পুলিশ কর্মকর্তা নিহত হন। আহত হন আরো দু'জন। হামলার পর পুলিশের পাল্টা গুলিতে সন্দেহভাজন হামলাকারী নিহত হয়।

এরমধ্যেই এক বিবৃতিতে হামলার দায় স্বীকার করেছে জঙ্গি সংগঠন আইএস। এদিকে, হামলায় জড়িতদের বিচার নিশ্চিত করার পাশাপাশি, নির্বিঘ্ন নির্বাচন অনুষ্ঠানে সরকার প্রতিজ্ঞাবদ্ধ বলে জানিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ফ্রাঁসোয়া ওলাদ।

আবারও হামলার শিকার প্যারিস। বৃহস্পতিবার মধ্য প্যারিসের চ্যাম্পস এলিসি অ্যাভিনিউয়ে টহলরত পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে অজ্ঞাত বন্দুকধারী। এতে এক পুলিশ কর্মকর্তা নিহত হন। আহত হন অপর এক পুলিশ ও এক নারী পথচারী। পরে পুলিশের পাল্টা গুলিতে নিহত হয় বন্দুকধারী।

একজন প্রত্যক্ষদর্শী বলেন, 'আমি দেখিনি কি হয়েছে। তবে লোকজন ছুটোছুটি করছিল ও চিৎকার করছিল। এক নারী কাঁদছিল আর বলছিল চ্যাম্পস এলিসিতে হামলা হয়েছে।'

এ ঘটনার পরপরই চ্যাম্পস এলিসি ও এর আশপাশের এলাকা ঘেরাও করার পাশাপাশি নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়। রোববার অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে এ ধরনের ঘটনায় সব প্রার্থী তাদের প্রচারণা সাময়িক বন্ধ রেখেছেন।


বিরোধীদলের নেতা ফ্রাসোঁয়া ফিলন বলেন, 'এ ধরনের হামলা কোন ভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়। খুবই দুঃখজনক। আপাতত একে সন্ত্রাসী হামলাই মনে হচ্ছে। তাই পরিস্থিতি বিবেচনা করে আমি আমার পূর্ব নির্ধারিত নির্বাচনী প্রচারণা স্থগিত রেখেছি।'

এরইমধ্যে দেশটির প্রেসিডেন্ট ফ্রাসোয়া ওলাঁদ, প্রধানমন্ত্রী বেরনাখ কাজিওনোভ ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ম্যানুয়েল ভলস একে সন্ত্রাসী হামলা হিসেবে উল্লেখ করে নিরাপত্তা বাহিনীর পাশে থাকার কথা জানিয়েছেন। নিহত পুলিশ সদস্যকে রাষ্ট্রীয় সম্মান জানানোর ঘোষণা দেন তারা।

প্রেসিডেন্ট ওলাঁদ বলেন, 'আমাদের জনগণের পাশাপাশি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নিরাপত্তার জন্য আমরা সব ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করছি। পরিস্থিতি বিবেচনায় শহরের গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে অতিরিক্ত পুলিশ ও সেনা মোতায়েন করা হয়েছে।'

এরমধ্যেই এক বিবৃতিতে হামলার দায় স্বীকার করেছে জঙ্গি সংগঠন আইএস। হামলাকারী বেলজিয়ামের নাগরিক এবং তার নাম আবু ইউসুফ বলেও জানিয়েছে আইএস।

২০১৫ সাল থেকে এ পর্যন্ত কয়েক দফা সন্ত্রাসী হামলার শিকার হয়েছে ফ্রান্স। এ সব হামলায় এখন পর্যন্ত নিহত হয়েছে ২শ' ৩০ জনের বেশি। বর্তমানে দেশটিতে জরুরী অবস্থা জারি রয়েছে।




DMCA.com Protection Status

এই বিভাগের সকল সংবাদ

Contact Address

Nasir Trade Centre, Level-9,
89, Bir Uttam CR Dutta Road, Dhaka 1205, Bangladesh
Email: somoydigitalsomoynews.tv

Find us on

  Live TV DMCA.com Protection Status
উপরে