আপডেট
২০-০৩-২০১৭, ১৭:২৩

রাজনৈতিক সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধের জেরে তুরস্ক-ইইউ উত্তেজনা

untitled-copy
ইউরোপের বিভিন্ন দেশে তুর্কি সরকারপন্থিদের রাজনৈতিক সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধ করার জেরে তুরস্ক-ইইউ উত্তেজনা বেড়েই চলেছে। এর মধ্যেই তুরস্কের আসন্ন গণভোটের পক্ষে জার্মানিতে আবারও সমাবেশ আয়োজনের পরিকল্পনা করা হচ্ছে বলে জানিয়েছে তুর্কি প্রেসিডেন্ট এরদোয়ানের এক মুখপাত্র। একইসঙ্গে ইউরোপীয়দের আবারো নাৎসি বাহিনীর সঙ্গে তুলনা করার পাশাপাশি জার্মান চ্যান্সেলর মার্কেলের তীব্র সমালোচনা করেছেন এরদোয়ান। তুরস্কে প্রেসিডেন্টের ক্ষমতা সম্প্রসারণ নিয়ে আসন্ন গণভোটের পক্ষে-বিপক্ষে প্রচারণায় উত্তপ্ত জার্মানি। দেশটিতে বসবাসরত প্রায় ৩০ লাখ প্রবাসী ও বংশোদ্ভূত তুর্কি দু'ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় তুরস্কের আরেক জাতিগোষ্ঠী কুর্দীর ফ্রাঙ্কফুর্টে এরদোয়ান বিরোধী বিক্ষোভ কর্মসূচির আয়োজন করে। হাজার হাজার কুর্দীর এই সমাবেশ থেকে তুর্কি সরকারের মৃত্যুদণ্ড পুনর্বহালের সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করার পাশাপাশি তুরস্কে একনায়কতন্ত্র চালুর ষড়যন্ত্র চলছে বলে অভিযোগ করা হয়। কুর্দিরা বলেন, 'তুরস্কে ভিন্ন মতাবলম্বীদের উপর দমন-পীড়ন আরও বাড়ানোর জন্যই সংবিধান পরিবর্তন করে প্রেসিডেন্টের ক্ষমতা বৃদ্ধির উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এই উদ্যোগকে আমরা সসর্থন করি না।' তারা বলেন, 'প্রথমত আমরা তুরস্কে সরকার পরিবর্তন চাই। তুর্কিদের উচিত আগামী ১৬ এপ্রিলের গণভোটে না ভোট দেয়।'

এর মধ্যেই গণমাধ্যম জানিয়েছে, প্রেসিডেন্ট এরদোয়ান সমর্থক প্রবাসী তুর্কিরা জার্মানিতে আরও একটি র‌্যালি আয়োজনের পরিকল্পনা করছে। সেখানে তুস্কের কোনো কোনো মন্ত্রী যোগ দিতে পারেন বলে জানায় তুর্কি প্রেসিডেন্টের কার্যালয়। তবে সমাবেশের নির্দিষ্ট কোনো তারিখ ঘোষণা করা হয়নি।

জার্মানি, নেদারল্যান্ডস, অস্ট্রিয়া, সুইজার‌ল্যান্ড, ডেনমার্কসহ কয়েকটি দেশে তুরস্কে আসন্ন গণভোটের পক্ষে প্রচার-প্রচারণা বাধার মুখে পড়ে। এর জেরে তুর্কি প্রেসিডেন্ট নেদারল্যান্ডস ও জার্মানি-কে নাৎসিদের অনুসারী বলায় ইইউ-আঙ্কারা দ্বন্দ্ব চরমে পৌঁছায়। এরই ধারাবাহিকতায় ইস্তাম্বুলে এক অনুষ্ঠানে বক্তৃতায় আবারও ইউরোপীয় নেতাদের সমালোচনা করলেন রিসেপ তাইপ এরদোয়ান।

এরদোয়ান বলেন, 'নেদারল্যান্ডস সরকার সেদেশে বসবাসরত তুর্কি নাগরিকদের সঙ্গে নাৎসিদের মতো আচরণ করছে। কিন্তু তাদেরকে যখনই নাৎসি বলা হয় তখন তারা অস্বস্তি বোধ করে। আবার জার্মানিসহ অনেক মিত্র তাদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছে। এর মধ্যে জার্মান চ্যান্সেলর মার্কেল তুরস্কে আটক সাংবাদিককে মুক্তি দেয়ার আহ্বান জানিয়ে সন্ত্রাসীদের পক্ষ নিয়েছেন।'

এদিকে, তুরস্কের দৈনিক ট্যাবলয়েড পত্রিকা 'সান' এ জার্মান চ্যান্সেলর মার্কেলের ছবিকে হিটলারের রূপ দিয়ে প্রকাশ করাকে কেন্দ্র করে দু'পক্ষের মধ্যে নতুন করে উত্তেজনা দেখা দিয়েছে বলে জানায় গণমধ্যম। এরমধ্যেই রোববার এক সাক্ষাৎকারে তুর্কি প্রেসিডেন্ট এরদোয়ানের মুখপাত্র ইব্রাহিম কলিন জার্মানির বিরুদ্ধে তুরস্কে অভ্যুত্থান চেষ্টায় জড়িতদের মদদ দেয়ার অভিযোগ তোলেন।

অন্যদিকে, তুরস্কে মৃত্যুদণ্ডের বিধান পুনর্বহালের সিদ্ধান্তের নিন্দা জানিয়েছে ইউরোপীয় কমিশন। এমনটা হলে, আঙ্কারার ইইউ-তে যোগাদানের বিষয়ে সব ধরনের সমঝোতার ইতি ঘটবে বলে হুশিয়ার করেছেন কমিশনের প্রেসিডেন্ট জ্যঁ ক্লদ জাঙ্কার।




DMCA.com Protection Status

এই বিভাগের সকল সংবাদ

Contact Address

Nasir Trade Centre, Level-9,
89, Bir Uttam CR Dutta Road, Dhaka 1205, Bangladesh
Email: somoydigitalsomoynews.tv

Find us on

  Live TV DMCA.com Protection Status
উপরে