• সদ্যপ্রাপ্তরাজধানীর জিগাতলায় ৫ তলা গার্মেন্টস ভবনে আগুন, নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে ফায়ার সার্ভিসের ৬টি ইউনিট

বেইজিং-এর বিরুদ্ধে উস্কানিমূলক আচরণের অভিযোগ তাইপে'র

Update: 2017-01-12 16:24:45, Published: 2017-01-12 16:24:46
schina-row


তাইওয়ান-প্রণালীতে চীনের বিমানবাহী রণতরীসহ নৌবহর প্রবেশের ঘটনাকে তাইপে'র পক্ষ থেকে চীনের উস্কানি বলা হলেও, একে স্বাভাবিক ঘটনা বলে উল্লেখ করেছে বেইজিং। এদিকে, দক্ষিণ চীন সাগর বিষয়ে চলমান বিরোধ, চলতি বছরেই নিষ্পত্তি হবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন ফিলিপিনো পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

অন্যদিকে, নির্মিত কৃত্রিম দ্বীপে চীনের সামরিক তৎপরতা রুখে দেয়া উচিত বলে মন্তব্য করেছেন মনোনীত মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসন।

পশ্চিম প্রশান্ত মহাসাগরে সামরিক মহড়া শেষে ঘাঁটিতে ফিরতে বুধবার সকালে তাইওয়ান প্রণালীতে প্রবেশ করে একমাত্র বিমানবাহী রণতরীসহ চীনা নৌবহর। চীনের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় গোয়াংডং প্রদেশ থেকে উত্তর দিকে যেতে থাকে বহরটি। প্রায় সাড়ে ৫ হাজার কিলোমিটার দৈর্ঘ্য ও ১শ' ৮০ কিলোমিটার প্রশস্তের এ প্রণালী পার হওয়ার সময় নৌবহরের ঘিরে চীনা যুদ্ধবিমান ও নৌবাহিনীর ফ্রিগেট মোতায়েন ছিলো।

এর কিছুক্ষণ পরই তাইওয়ানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় অভিযোগ করে জানায়- চীনা নৌবহর তাদের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে আকাশসীমা চিহ্নিত এলাকায় অবৈধ প্রবেশ করেছে। তবে, জলসীমায় প্রবেশ করেনি বলে মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে নিশ্চিত করা হয়। পরে, তাইওয়ানের মেইনল্যান্ড বা চীন-বিষয়কমন্ত্রী চ্যাং সিয়াও ইউয়ে সংবাদ সম্মেলনে বলেন- পশ্চিম প্রশান্ত মহাসাগরে সাম্প্রতিক মহড়া ও সবশেষ, প্রণালীর তাইওয়ান অংশে রণতরী প্রবেশ করানোর মাধ্যমে উত্তেজনা তৈরির চেষ্টা করছে বেইজিং। এটি দু'পক্ষের সম্পর্কোন্নয়নে নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

তাইওয়ান চীন-বিষয়কমন্ত্রী চ্যাং সিয়াও ইউয়ে বলেন, 'আমাদের প্রতিরক্ষা বাহিনী চীনা নৌবহরের ওপর নজর রাখছে। চীনের কোনো রকম উস্কানি বেইজিং-তাইপে সম্পর্কে নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে। এসব ঘটনা এড়াতে যোগাযোগ রক্ষায় আমরা হটলাইন চালুর চেষ্টা করছি।'

তবে, মহড়া শেষে ফেরার সময় নৌবহরের তাইওয়ান প্রণালীতে প্রবেশের ঘটনাকে স্বাভাবিক বলে উল্লেখ করেছে চীন। বুধবার উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী লিউ জেনমিন ওই প্রণালীকে আন্তর্জাতিক সমুদ্রপথের অংশ হিসেবে উল্লেখ করেন।

চীন উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী লিউ জেনমিন বলেন, 'চীনের মূল ভূখণ্ড ও তাইওয়ানের মাঝামাঝি এ প্রণালীর অবস্থান। আন্তর্জাতিক সমুদ্রপথ হিসেবেই এখান দিয়ে চীনা নৌবহর যাওয়া-আসা করে। এ নিয়ে প্রণালীর দু'পাশে অহেতুক উত্তেজনা কাম্য নয়।'

এ অবস্থার মধ্যেই বুধবার ফিলিপিন্সের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আশা প্রকাশ করে বলেন- চলতি বছরেই দক্ষিণ চীন সাগর বিষয়ে বেইজিং-ম্যানিলা বিরোধের নিষ্পত্তি ঘটবে। আলোচনার মাধ্যমে এ জলসীমায় দু'দেশের জন্য একটি গ্রহণযোগ্য 'কোড অব কনডাক্ট' আচরণবিধি তৈরির চেষ্টা চলছে বলে জানান তিনি।

ফিলিপিন্স পররাষ্ট্রমন্ত্রী পারফেক্টো ইয়াসায় বলেন, 'দক্ষিণ চীন সাগরে অংশীদার দেশগুলোর নিজস্ব অঞ্চল দাবির বিরোধ, চলতি বছরের মাঝামাঝি মিটে যাবে বলে আশা করছি। এ ব্যাপারে চীনের সঙ্গে আমাদের মন্ত্রী পর্যায়ের আলোচনা চলছে। চীনের কাছ থেকে যথেষ্ট সহযোগিতা পাচ্ছি।'

এদিকে, নির্বাচিত মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের মনোনীত পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসন বুধবার সিনেটের শুনানিতে বলেছেন- দক্ষিণ চীন সাগরে তৈরি কৃত্রিম দ্বীপে চীনের প্রবেশের চেষ্টা আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের রুখে দেয়া উচিত।

যুক্তরাষ্ট্র মনোনীত পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসন বলেন, 'কৃত্রিম দ্বীপ তৈরির তৎপরতা বন্ধে চীনের প্রতি কড়া বার্তা দিতে চাই আমরা। একইসঙ্গে নির্মিত দ্বীপগুলোতে কোনোভাবেই দেশটিকে সামরিক স্থাপনা তৈরি করতে দেয়া উচিত নয়।'

প্রশান্ত মহাসাগরের প্রায় ৩৫ লক্ষ বর্গকিলোমিটার অঞ্চলজুড়ে দক্ষিণ চীন সাগরের অবস্থান। চীন ছাড়াও প্রতিবেশী কয়েকটি দেশ মালিকানা দাবি করা এ অঞ্চলের সমুদ্রপথ দিয়ে প্রতি বছর প্রায় ৫ লক্ষ কোটি মার্কিন ডলারের আন্তর্জাতিক বাণিজ্য হয়ে থাকে।




Update: 2017-01-12 16:24:45, Published: 2017-01-12 16:24:46

আপনার মন্তব্য লিখুন

পাঠকের মন্তব্য ( )


More News
  


আরও সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ



সরাসরি যোগাযোগ

৮৯, বীর উত্তম সি. আর. দত্ত রোড, ঢাকা ১২০৫, বাংলাদেশ।
ফ্যাক্স: +৮৮০২ ৯৬৭০০৫৭, ইমেইল: info@somoynews.tv
উপরে en.Somoynews.tv