মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
সময় সংবাদ
আপডেট
২২-০৮-২০১৯, ১৯:৩০

পুড়ে যাচ্ছে ‘পৃথিবীর ফুসফুস’, ভয়াবহতার ছবিতে কাঁদছে বিশ্ব

03
পুড়ছে অ্যামাজন। সর্বগ্রাসী আগুণে ছাই হয়ে যাচ্ছে বিশ্বের বৃহত্তম ‘রেনফরেস্ট’। এবারের অগ্নিকাণ্ড এ যাবৎকালের সর্বোচ্চ- এমনটিই বলছে ব্রাজিলের মহাকাশ গবেষণা কেন্দ্র, ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট ফর স্পেস রিসার্চ।

স্যাটেলাইট ইমেজ ব্যবহার করে আগুনের বিস্তার মেপে ওই সংস্থা জানিয়েছে, ২০১৮ সালের তুলনায় ৮৩ শতাংশ বেশি পুড়ছে অ্যামাজনের সবুজ।



গত প্রায় তিন সপ্তাহ ধরে জ্বলতে থাকা ছোট-বড় আগুনের সংখ্যা বর্তমানে দাঁড়িয়েছে ৩৯ হাজার ১৯৪টি।

ব্রাজিলের মহাকাশ গবেষণা কেন্দ্র, ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট ফর স্পেস রিসার্চ-এর হিসাব মতে, দাবানলে প্রতি মিনিটে অ্যামাজনের প্রায় ১০ হাজার বর্গমিটার এলাকা পুড়ে যাচ্ছে।




বিজ্ঞানীদের আশঙ্কা, এ অবস্থা চলতে থাকলে জলবায়ু পরিবর্তনবিরোধী লড়াইয়ে বড় ধরনের প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হতে পারে।

পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলে থাকা অক্সিজেনের ২০ শতাংশেরই উৎপত্তি অ্যামাজনে। গবেষকদের মতে এই বন প্রতিবছর ২০০ কোটি মেট্রিক টন কার্বন ডাই অক্সাইড শোষণ করে। সে কারণে একে ডাকা হয়ে থাকে ‘পৃথিবীর ফুসফুস’ নামে।



এ কারণে অ্যামাজনে ব্যাপক মাত্রার অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ভাবিয়ে তুলেছে পরিবেশ বিশেষজ্ঞদের।

বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধির হার কমাতে অ্যামাজনের ভূমিকাকে বিশেষ গুরুত্বের সঙ্গে দেখা হয়। বিশ্বের দীর্ঘতম এ জঙ্গলটির আয়তন যুক্তরাষ্ট্রের আয়তনের প্রায় অর্ধেক।

অ্যামাজন জঙ্গলে ৩০ লাখ জাতের উদ্ভিদের আবাসস্থল। এখানে বাস করেন ১০ লাখ মানুষ।



ইতিমধ্যে মানুষের প্রাণহানির কোনও খবর না পাওয়া গেলেও পুড়ে ছাই হয় গিয়েছে বেশ কয়েক হাজার হেক্টর জঙ্গল, মৃত্যু হয়েছে অসংখ্য পশুপাখির।