আন্তর্জাতিক সময় ডেস্ক
আপডেট
১০-০৮-২০১৮, ১৭:০৫

ইয়েমেনে স্কুলবাসে সৌদি জোটের বিমান হামলায় বিশ্বজুড়ে নিন্দা

yemem-child-4pm
ইয়েমেনে স্কুলবাসে সৌদি জোটের বিমান হামলার ঘটনায় বিশ্বজুড়ে নিন্দা ঝড় উঠেছে। বেসামরিক নাগরিক হত্যার জন্য সৌদি আরবকে চরম মূল্য দিতে হবে বলে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক দাতব্য সংস্থা ডক্টর্স উইদাউট বর্ডার্স। এর মধ্যেই যুক্তরাষ্ট্র এ ঘটনা তদন্তের বিষয়ে গুরুত্বারোপ করেছে। বৃহস্পতিবার ইয়েমেনের সাদা প্রদেশে স্কুলবাসে সৌদি জোটের বিমান হামলায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৫০ জনে দাঁড়িয়েছে। রুশ গণমাধ্যম আরটি জানায়, এ হামলায় আহত হয়েছেন আরও অন্তত ৭৭ বেসামরিক নাগরিক।
যুদ্ধ কী তাও হয়তো বোঝে না ওই অবুঝ শিশু। অথচ সেই সংঘাতের কবলেই পড়তে হলো এই ক্ষুদে শিক্ষার্থীকে। বৃহস্পতিবার এরকম আরও অনেক শিশুর আর্তনাদে ভারী হয়ে ওঠে সাদা প্রদেশের দাহয়ান শহরের হাসপাতালের পরিবেশ।

বৃহস্পতিবার বিকেলে ইয়েমেনের সাদ প্রদেশে সৌদি জোটের হামলায় প্রাণ হারান শিশুসহ অর্ধশতাধিক। প্রত্যক্ষ্যদর্শীরা জানান, হামলার মূল লক্ষ্যবস্তু ছিলো স্থানীয় বিপণীবিতান ও স্কুলবাস। জনসমাগমের স্থান হওয়ায় বেড়েছে হতাহতের সংখ্যা।

স্থানী একজন বলেন, 'প্রতিদিনের মতোই আমাদের সাধারণ কাজকর্ম করছিলাম। হঠাৎ বিকট এক শব্দ। একাধিক বিস্ফোরণে বুঝতে পারলাম বিমান হামলা চালানো হচ্ছে। এতে স্কুলবাস ছাড়াও আমাদের বাজারের ব্যাপক ক্ষয় ক্ষতি হয়েছে। আমার মতো বহু ব্যবসায়ী হামলায় আহত হয়েছেন।'

সাদ প্রদেশের জরুরি চিকিৎসা বিভাগের প্রধান আহমেদ মোহামেদ আল আতওয়ান বলেন, 'শিশুদের ওপর হামলা হওয়ায় আহতদের অনেককেই বাঁচানো সম্ভব হয়নি। যারা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন, তাদের সুস্থ করে তুলতে সর্বোচ্চ চেষ্টা চলছে।'

সৌদি সীমান্তের কাছে হাউথি বিদ্রোহী নিয়ন্ত্রিত ওই এলাকায় হামলার বিষয়টি শিকার করে বিবৃতি দিয়েছে সৌদি জোট। বুধবার হাউথি বিদ্রোহীদের নিক্ষেপ করা মিসাইলে সৌদি আরবের এক বেসামরিক নাগরিক নিহত হওয়ার পাল্টা ব্যবস্থ হিসেবে হামলা চালানোর কথা জানায় তারা। গত সপ্তাহেও ইয়েমেনের আবাসিক এলাকায় সৌদি জোট হামলায় অন্তত ৫৫ জন নিহত ও আহত হন দেড় শতাধিক বেসামরিক নাগরিক।


এ অবস্থায় বৃহস্পতিবার ওয়াশিংটনে সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত হয়ে ইয়েমেন ইস্যুতে সাংবাদিকদের প্রশ্নবানে জর্জরিত হন মার্কিন পররাষ্ট্র দফতরের মুখপাত্র হেদার নুয়ার্ট। তিনি হামলার ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে বিষয়টি খতিয়ে দেখার আশ্বাস দেন।

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দফতরের মুখপাত্র হেদার নুয়ার্ট বলেন, 'ইরান সমর্থিত হাউথি বিদ্রোহীরা ধারাবাহিকভাবে সৌদি আরবে হামলা চালিয়ে যাচ্ছে। এতে অনেক বেসামরিক নাগরিকের মৃত্যু হচ্ছে। তার পাল্টা জবাবে সৌদি জোটও হামলা চালিয়েছে। তবে আমরা চাই, কোনো হামলায় যেন সাধারণ মানুষের মৃত্যু না হয়, এ বিষয়টি নিশ্চিত করা জরুরি। আন্তর্জাতিক আইন মেনে অভিযান পরিচালনার পক্ষে যুক্তরাষ্ট্র। আর ইয়েমেনে যা ঘটলো, এর একটা স্বচ্ছ তদন্ত হতে হবে।'

২০১৫ সালে ইয়েমেনের তৎকালীন সরকার ও হাউথিদের বিরোধ কেন্দ্র কোরে দেশটিতে শুরু হয় রাজনৈতিক সংকট ও গৃহযুদ্ধ। এক পর্যায়ে আন্তর্জাতিক স্বীকৃত সরকারের প্রধান মনসুর আল হাদিকে সরিয়ে ক্ষমতা দখল করে হাউথি বিদ্রোহী গোষ্ঠী। এরপর রাজধানী সানাসহ অধিকাংশ অঞ্চল দখলে নেয় তারা। তবু সংঘাত পিছু ছাড়েনি ইয়েমেনবাসীর। হাদি সরকারকে ফের ক্ষমতায় ফেরাতে ইয়েমেনে সৌদি জোটের বিদ্রোহী বিরোধী অভিযানে এ পর্যন্ত প্রাণ হারিয়েছেন ১৪ হাজারেরও বেশি মানুষ। এছাড়াও, গৃহহীন হয়েছেন আরও কয়েক লাখ।




DMCA.com Protection Status

এই বিভাগের সকল সংবাদ

Contact Address

Nasir Trade Centre, Level-9,
89, Bir Uttam CR Dutta Road, Dhaka 1205, Bangladesh
Email: somoydigitalsomoynews.tv

Find us on

  Live TV DMCA.com Protection Status
উপরে