আপডেট
১৪-০৬-২০১৮, ১৭:৪১

ভারতে বজ্রপাত ও ঘূর্ণিঝড়ে নিহত ১৩

ind-weather-up1
ভারতের বিভিন্ন প্রান্তে বৈরী আবহাওয়ায় বহু হতাহতের ঘটনা ঘটেছে। দেশটির উত্তর প্রদেশে বজ্রপাত ও ধুলিঝড়ে অন্তত ১৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। কেরালা রাজ্যে দুই সপ্তাহের অব্যাহত বৃষ্টিতে সৃষ্ট ভূমিধসে নয় বছরের এক শিশুসহ নতুন করে আরও ৩ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। এছাড়াও, দেশটির উত্তর পূর্বাঞ্চলীয় ৪ রাজ্যে আকস্মিক বন্যায় ৬ জনের মৃত্যু হয়েছে।

বৈরী আবহাওয়ায় বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে ভারতের উত্তর প্রদেশের মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাত্রা। তীব্র ধূলীঝড় আর বজ্রপাতে ব্যাপক হতাহতের ঘটনায় উদ্বিগ্ন স্থানীয় সরকার। ইতোমধ্যেই হতাহতদের হাসপাতালে নেয়া, তাদের পরিপূর্ণ চিকিৎসার খরচ ও নিহতের পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন প্রাদেশিক মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। এদিকে বুধবার সন্ধ্যায় দেশটির লখনৌ শহরে বজ্রপাত ও শিলাবৃষ্টির কারণে জরুরী অবস্থা জারি করা হয়েছে।
 
এদিকে রাজধানী নয়াদিল্লীতে তীব্র বায়ু দূষণে দুর্বিষহ হয়ে পড়েছে নগরজীবন। ভারদের মার্কিন দূতাবাসের পর্যবেক্ষণে জানা যায়, সম্প্রতি শহরটির বায়ুতে যে ভয়াবহ মাত্রার ধুলো ও বিষাক্ত উপাদান পাওয়া গেছে, তা আগের সমস্ত রেকর্ডকে ছাড়িয়ে গেছে। পাশ্ববর্তী এলাকা হরিয়ানা ও রাজস্থানের বায়ুতেও তীব্র দূষণ শনাক্ত করা হয়েছে। বিষাক্ত বায়ুতে দীর্ঘদিন ধরে শ্বাস গ্রহণের ফলে শ্বাস প্রশ্বাস জনিত নানা জটিলতায় ভুগছেন স্থানীয়রা। এর পাশাপাশি, দেশি ও বিদেশি পর্যটকরাও দিল্লী ভ্রমণে গিয়ে চরম অস্বস্তিতে পড়ছেন।


তাদের একজন বলেন, আমি এরকম ভয়াবহ মাত্রার দূষিত বায়ু আর কোথাও দেখিনি। এটা দিল্লী শহরের সৌন্দর্য্যকে একেবারেই নষ্ট করে দিয়েছে। এমনকি জনপ্রিয় ইন্ডিয়া গেট আর রাষ্ট্রপতি ভবনও ধুলোর কারণে দেখা যায় না।

এখানকার বায়ুতে দূষণের পরিস্থিতি খুবই উদ্বেগজনক। চীনেও বায়ুও এরকম দূষিত কিন্তু সেটা শুধুমাত্র শীতকালে। কিন্তু সারাবছর এই এমন আবহাওয়া সহ্য করা একেবারেই সম্ভব না।

 
দুই সপ্তাহের টানা বৃষ্টিতে কেরালা প্রদেশ যেন থমকে গেছে। ভূমিধসে হতাহতের সংখ্যা ক্রমেই বেড়ে চলেছে। শত শত বসতবাড়ি পানিতে তলিয়ে গেছে। ফসলের মারাত্মক ক্ষতি হওয়ায় কৃষকদের আহাজারি থামছে না। পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে নানা পদক্ষেপ নিয়েছে কর্তৃপক্ষ। এছাড়া স্থানীয় বহু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান অনির্দিষ্ট সময়ের জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

 
এদিকে দক্ষিণ পশ্চিম মৌসুমী বায়ুর প্রভাবে বন্যার পানিতে ভাসছে ভারতের উত্তর পূর্বাঞ্চলের বিস্তীর্ণ অঞ্চল। ভয়াবহ পরিস্থিতি দেখা দিয়েছে ত্রিপুরা, মিজোরাম ও আসামে। প্লাবিত হচ্ছে বহু গ্রাম। দুর্যোগ আঘাত হানা বেশির ভাগ এলাকার যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। পরিস্থিতি সামাল দিতে অতিরিক্ত সেনা সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। বন্যার্তদের উদ্ধার ও ত্রাণ বিতরণে কাজ শুরু করেছে দেশটির বিমানবাহিনী। এছাড়া রাজ্যের প্রায় ২০০ টি আশ্রয় শিবিরে আশ্রয় নিয়েছে প্রায় ১৫ হাজার পরিবার।





DMCA.com Protection Status

এই বিভাগের সকল সংবাদ

Contact Address

Nasir Trade Centre, Level-9,
89, Bir Uttam CR Dutta Road, Dhaka 1205, Bangladesh
Email: somoydigitalsomoynews.tv

Find us on

  Live TV DMCA.com Protection Status
উপরে