আপডেট
১৭-০৪-২০১৮, ১৭:৫২

নিরাপত্তা শঙ্কায় আসিফার পরিবার ও আইনজীবী

asifa
কাশ্মীরের কাঠুয়া উপত্যকায় ৮ বছর বয়সী শিশু আসিফাকে ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনায় জম্মু-কাশ্মীরের প্রাদেশিক সরকারকে, আসিফার পরিবার এবং তাদের আইনজীবীদের নিরাপত্তা নিশ্চিতের নির্দেশ দিয়েছেন ভারতের সুপ্রিম কোর্ট। আসিফার বাবা নিরাপত্তা ঝুঁকির কথা জানিয়ে মামলাটি কাশ্মীর আদালত থেকে চণ্ডীগড় আদালতে স্থানান্তরের আবেদন করলে এ আদেশ দেন আদালত।

 

তবে অভিযুক্তরা নিজেদের নির্দোষ দাবি করে সিবিআই তদন্তের দাবি জানিয়েছে। এদিকে আসিফার ধর্ষকদের বিচারের দাবিতে ভারতে বিক্ষোভ অব্যাহত আছে।

জম্মু কাশ্মীরের কাঠুয়া উপত্যকায় ৮ বছরের শিশু আসিফার ধর্ষকদের বিচারের দাবিতে সোমবারও বিক্ষোভে ফুঁসে উঠতে দেখা যায় ভারতের রাজধানী নয়া দিল্লির শিক্ষার্থীদের। বিচারের পাশাপাশি ঐ ধর্ষকদের সমর্থনের অভিযোগে ক্ষমতাসীন দল বিজেপির কয়েকজন নেতাকে বহিষ্কারের দাবি জানান বিক্ষোভকারীরা। আসিফার ধর্ষকদের সমর্থন করে র‌্যালি করার অভিযোগে কাশ্মীরে ক্ষমতায় থাকা বিজেপির দুই নেতাকে ইতোমধ্যে জোরপূর্বক পদত্যাগে বাধ্য করা হলেও দল থেকে বহিষ্কারের দাবি জানান তারা।

এক বিক্ষোভকারী বলেন, 'আমরা আজ এখানে কিছু দাবি নিয়ে জড়ো হয়েছি। যারা ধর্ষকদের সমর্থন করে তাদের দ্রুত বিজেপির সদস্যপদ বাতিল করতে হবে। আর আসিফা ধর্ষণ মামলা দিল্লিতে বা কাশ্মীরের শ্রীনগরে স্থানান্তর করতে হবে।'

আসিফার ধর্ষকদের বিচারের দাবি উঠলেও নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে ধর্ষিতার পরিবার। মেয়ে ধর্ষণের শিকার হওয়ায় বিচার চাইতে এসে পরিবারের হুমকির কথা জানিয়ে নিরাপত্তা চাইলেন আসিফার বাবা।


আসিফার বাবা বলেন, 'আমরা কোথাও যেতে ভয় পাচ্ছি, বাড়ি থেকে বের হতে ভয় পাচ্ছি, কে জানে আমাদের কোন ক্ষতি হবে কিনা। আমাদের নিরাপত্তা প্রয়োজন।'

আসিফার বাবার আবেদন শুনেছেন আদালত, জম্মু-কাশ্মীরের প্রাদেশিক সরকারকে, আসিফার পরিবার এবং তাদের আইনজীবীদের নিরাপত্তা নিশ্চিতের নির্দেশ দিয়েছেন ভারতের সুপ্রিম কোর্ট। আসিফার বাবা সোমবার নিরাপত্তা ঝুঁকির কথা জানিয়ে মামলাটি কাশ্মীর আদালত থেকে চণ্ডীগড় আদালতে স্থানান্তরের আবেদন করলে এ আদেশ দেন আদালত। আসিফাকে গণধর্ষণ ও হত্যার ঘটনায় জড়িত আটজনকে অভিযুক্ত করেন আদালত। সোমবার কাঠুয়ার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক সঞ্জয় গুপ্তের আদালতে সাত আসামিকে হাজির করা হয়। নিজেকে নির্দোষ দাবি করে গণধর্ষণের প্রধান আসামি সানজি রাম নারকো পরীক্ষা যার মাধ্যমে সন্দেহভাজনের শিরায় স্নায়ু শিথিলকারি ওষুধ দিয়ে তথ্য আদায়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় তার দাবি জানিয়েছে। অভিযুক্তরা নিজেদের নির্দোষ দাবি করে সিবিআই তদন্তেরও দাবি জানিয়েছে। দু'পক্ষের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে আগামী ২৮ এপ্রিল পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য করা হয়। মামলার অপর আসামি অভিযুক্ত কিশোর আলাদাভাবে জামিন চাইলে ২৬ এপ্রিল সিদ্ধান্ত জানানোর কথা জানায় আদালত।

গত জানুয়ারিতে কাঠুয়া উপত্যকায় শিশু আসিফাকে অপহরণের পর ৭দিন আটকে রেখে গণধর্ষণের পর মাথায় পাথর মেরে হত্যা করা হয়। পরে জঙ্গল থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়। গত ১০ই এপ্রিল অভিযোগপত্র জনসম্মুখে আনা হলে ধর্ষকদের বিচারে সোচ্চার হয়ে ওঠে জনগণ। অভিযোগে বলা হয় আসিফাকে অপহরণের জন্য অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তা ও দেবিস্থান মন্দিরের হেফাজতকারী সানজি রাম তার ভাগ্নে ও এক পুলিশ সদস্যকে নির্দেশ দেয়। অপহরণের পর সাতদিন ধরে তাকে মন্দিরে আটকে রেখে গণধর্ষণ করা হয়।




DMCA.com Protection Status

এই বিভাগের সকল সংবাদ

Contact Address

Nasir Trade Centre, Level-9,
89, Bir Uttam CR Dutta Road, Dhaka 1205, Bangladesh
Email: somoydigitalsomoynews.tv

Find us on

  Live TV DMCA.com Protection Status
উপরে