আপডেট
১৭-০৪-২০১৮, ০৮:০৪

প্রাদুর্ভাব বেড়েছে 'মাংসখেকো ফোঁড়ার'

mangso-kheko-fora-somoy
এক ধরণের 'মাংস-খেকো' ঘা মহামারীর মতো ছড়িয়ে পড়েছে অস্ট্রেলিয়ার ভিক্টোরিয়ায়। যা নিয়ে উদ্বিগ্ন সেখানের জনগণ এবং চিকিৎসকেরা। রোগটি নিয়ে গবেষণার আহ্বান জানিয়েছেন চিকিৎসকেরা। রোগটি মূলত গরম প্রধান দেশের। তবে কোন কারণে বা কিভাবে ছড়াচ্ছে তা নিয়ে উদ্বগ্নি স্বয়ং চিকিৎসকেরা।

বিবিসি বাংলায় গত সোমবার এরকম একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়েছে। সেই প্রতিবেদনে এসব কথা উল্লেখ করা হয়েছে।

 'মাংস-খেকো' এই ঘায়ের নাম হচ্ছে 'বুরুলি আলসার' এবং এটা হচ্ছেন এক ধরণের চর্মরোগ যা আফ্রিকায় সচরাচর হতে দেখা যায়। কিন্তু এটা এখন অস্ট্রেলিয়ায় ছড়িয়ে পড়েছে এবং প্রতিবছর ৪০০ শতাংশ হারে এর প্রাদুর্ভাব বাড়ছে।

শুধু তাই নয় - এর সংক্রমণও হচ্ছে অনেক বেশি গুরুতর আকারে এবং নতুন নতুন এলাকায় এটা ছড়িয়ে পড়ছে। গত এক বছরে ২৭৫ জন নতুন করে এই ঘায়ে আক্রান্ত হয়েছেন। তবে গ্রীষ্মমন্ডলীয় এলাকার এই চর্মরোগ অস্ট্রেলিয়র ভিক্টোরিয়ায় এলো তা স্পষ্ট নয়। এ রোগ কিভাবে ছাড়ায়, এবং কিভাবে এর প্রতিরোধ করা যায় তা চিকিৎসকদের অজানা।

এক ধরনের ব্যাকটেরিয়া থেকে  'বুরুলি আলসার' রোগটি ছড়ায়। এই রোগে টক্সিন মানবদেহের ত্বক, রক্তবাহী নালী এবং মাংসপেশী ধ্বংস করে ফেলতে পারে। এটা বড় হতে হতে প্রত্যঙ্গের বিকৃতি বা প্রতিবন্ধিতা সৃষ্টি করতে পারে। সাধারণত হাতে বা পায়ে এই ঘা হয় - কিন্তু মুখে বা দেহের অন্য অংশেও হতে পারে।

অস্ট্রেলিয়ার মেডিক্যাল জার্নালে এক নিবন্ধ লিখেছেন ড. ও'ব্রায়েন। তিনি বলছেন এই রোগ কিভাবে ছড়ায় তা এখনো এক রহস্য হয়ে আছে। তবে নানা রকম তত্ত্বে নিয়ে বলা হয়েছে - মশা, বা পোসুম নামে এক ধরণের পাখীর বিষ্ঠার কথা বলা হয় এই ব্যাকটেরিয়া ছড়ানোর মাধ্যম হিসেবে।


কয়েক বছর আগে অস্ট্রেলিয়ার কুইন্সল্যান্ডে এ রোগের সংক্রমণের খবর পাওয়া গিয়েছিল। তবে সাধারণত পশ্চিম ও মধ্য আফ্রিকা, নিউ গিনি, ল্যাটিন আমেরিকা, এবং এশিয়ার গ্রীষ্মমন্ডলীয় এলাকায় এ রোগ বেশি দেখা যায়।




DMCA.com Protection Status

এই বিভাগের সকল সংবাদ

Contact Address

Nasir Trade Centre, Level-9,
89, Bir Uttam CR Dutta Road, Dhaka 1205, Bangladesh
Email: somoydigitalsomoynews.tv

Find us on

  Live TV DMCA.com Protection Status
উপরে