বাংলার সময় ডেস্ক
আপডেট
১৭-০৪-২০১৮, ০৭:৫৭

'৫ জন রোহিঙ্গা ফিরিয়ে নেয়া, মিয়ানমারের নতুন চক্রান্ত'

rohi-follow-up-jpgedt
বাংলাদেশে অবস্থানরত নতুন-পুরাতন ১১লাখ রোহিঙ্গার মধ্যে মাত্র এক পরিবারের ৫ জনকে ফিরিয়ে নেয়ার নামে মিয়ানমার আন্তর্জাতিক বিশ্বকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

চট্টগ্রামে প্রশাসনের শীর্ষ কর্মকর্তারা বলছেন, বাংলাদেশের অনুকরণে মিয়ানমারের সঙ্গেও ইউএনএইচসিআরের চুক্তির পরই আনুষ্ঠানিক প্রত্যাবাসন শুরু হবে। এদিকে ফুসলিয়ে আরো কিছু রোহিঙ্গাকে এভাবে মিয়ানমারে নেয়ার চেষ্টা হতে পারে আশংকায় আশ্রয় শিবিরগুলোতে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে।

কক্সবাজারের টেকনাফ-উখিয়ায় অবস্থানরত রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে মাত্র কয়েকদিন আগে সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় ইউএনএইএচসিআরের সাথে চুক্তি করেছে বাংলাদেশ।

একইভাবে মিয়ানমারের সাথে ইউএনএইচসিআরের চুক্তি হবে। এই চুক্তির পরই শুরু হবে রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া। কিন্তু আন্তর্জাতিক নিয়ম-রীতির তোয়াক্কা না করে মিয়ানমার সরকার রোববার অনেকটা গোপনে তমব্রু সীমান্তের শূন্য রেখায় অবস্থানকারী সাড়ে চার হাজার রোহিঙ্গার মধ্যে এক পরিবারের ৫ সদস্যকে ফিরিয়ে নেয় ।

আর এটিকে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেয়া ঠেকাতে মিয়ানমারের নতুন চক্রান্ত বলে মনে করছেন সাবেক এই কূটনীতিক।    

সাবেক কূটনীতিক মেজর (অব.) এমদাদুল ইসলাম বলেন, 'দ্বিপাক্ষিকভাবে তালিকা দেয়া ও নেয়া হয়েছে। সেখান থেকে তো নিতে পারতো। কিন্তু সেখান থেকে না নিয়ে  তালিকাবহির্ভূত ভাবে নিয়ে ফলাও করার কিছু ছিল না।'


সরকারি সবশেষ হিসাব অনুযায়ী সোমবার সকাল পর্যন্ত ১১ লাখ ৩ হাজার ৩০০ রোহিঙ্গার অবস্থান রয়েছে টেকনাফ এবং উখিয়ায়। এর মধ্যে ১১ লাখ ২ হাজার রোহিঙ্গার নিবন্ধন সম্পন্ন করেছে। মিয়ানমারের সাথে ইউএনএইচসিআরের চুক্তির পরেই নিবন্ধনকৃত তালিকা অনুযায়ী রোহিঙ্গাদের আনুষ্ঠানিক প্রত্যাবাসন শুরু হওয়ার কথা।

অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (উন্নয়ন), চট্টগ্রাম বিভাগ মো. নুরুল আলম নিজামী বলেন, 'শিগগিরই প্রত্যাবাসন কার্যক্রম বলতে যা বোঝায় তা শুরু হবে। আর আমরা রোহিঙ্গা সমস্যা দ্রুতই সমাধান করতে পারবো।'

এদিকে আনুষ্ঠানিক প্রত্যাবাসন শুরু’র আগে কক্সবাজার জেলার টেকনাফ ও উখিয়ার বিভিন্ন আশ্রয় শিবিরে থাকা রোহিঙ্গাদের ফুসলিয়ে মিয়ানমার নেয়া ঠেকাতে সতর্ক অবস্থানে রয়েছে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী।

ডি আই জি ড. এস এম মনিরুজ্জামান বলেন,'এ পর্যন্ত আমরা ৫৬ হাজার ৫০০ জনকে ধরে তাদের ক্যাম্পে পাঠিয়ে দিয়েছি।'

গত বছরের ২৫শে আগস্ট সংঘাত সৃষ্টির অজুহাতে মিয়ানমার সেনাবাহিনী  রাখাইনে রোহিঙ্গাদের ওপর অমানুষিক নির্যাতন শুরু করলে  সাত লাখের বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশে চলে আসে।




DMCA.com Protection Status

এই বিভাগের সকল সংবাদ

Contact Address

Nasir Trade Centre, Level-9,
89, Bir Uttam CR Dutta Road, Dhaka 1205, Bangladesh
Email: somoydigitalsomoynews.tv

Find us on

  Live TV DMCA.com Protection Status
উপরে