ksrm
bpl
সেঁজুতি শোণিমা নদী
আপডেট
০৭-০৩-২০১৮, ১৫:৩২

বঙ্গবন্ধুর ভাষণের আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পাওয়ার নেপথ্যে ছিলেন যারা

7-march-special
‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম’- ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বজ্রকণ্ঠের এই ঘোষণায় নিপীড়িত বাঙালি ঝাঁপিয়ে পড়েছিলো দেশকে স্বাধীন করার যুদ্ধে। সেই ঘটনার ৪৬ বছর পর বিশ্ববাসীর কাছে এই ভাষণকে তুলে ধরা হলো বিশ্ব ঐতিহাসিক ঐতিহ্যের প্রামাণিক দলিল হিসেবে। বঙ্গবন্ধুর সেই ঐতিহাসিক ভাষণ আজ ইউনেস্কোর মেমোরি অফ দ্য ওয়ার্ল্ড রেজিস্টারের অংশ।

এই ৪৬ বছরে ৭ মার্চের সেই ভাষণকে পেরোতে হয়েছে দীর্ঘ পথ। পাকিস্তানি শাসকদের রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে তৎকালীন বাঙালি সরকারি কর্মকর্তাদের ভাষণটি ধারণ, মুক্তিযুদ্ধের উত্তাল সময়ে প্রাণ বাজি রেখেও তা সযত্নে সংরক্ষণ এবং সরকারের পালাবদলের অস্থির সময়ে তা নষ্ট হওয়া থেকে রক্ষা করা থেকে শুরু করে এর পূর্ণাঙ্গ লিখিত রূপ তৈরি ও আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির আবেদন - ভাষণটিকে কম পথ পেরোতে হয়নি আজকের অবস্থানে পৌঁছাতে।

একাত্তরের দিনগুলিতে বঙ্গবন্ধুর ভাষণকে রক্ষা করেছিলেন যারা

চলচ্চিত্র ও প্রকাশনা অধিদপ্তরের সাবেক মহাপরিচালক লিয়াকত আলি খান সময় নিউজকে জানান, ‘সাতই মার্চের ভাষণ ধারণে ১৯৭১ সালে ডিএফপির ক্যামেরা দিয়ে ধারণ করা হয়েছিলো। ডিএফপির ক্যামেরাম্যানরাই এই কাজটি করেছে। নাগরা রেকর্ডারে এটা ধারণ করা হয়, এটি ছিলো খুবই দামি ও উন্নত মানের একটি রেকর্ডার। এতে শব্দ পতন হয় না। এতে বঙ্গবন্ধুর কণ্ঠের যে বলিষ্ঠতা আছে, এটি তা ধারণ করতে পেরেছিলো। এটি খুব সঠিকভাবে ছোট ছোট নোটগুলোও রেকর্ড করতে পারে।’ 

তিনি আরও বলেন, ‘এখনকার মতো ডিজিটাল ভিডিও ক্যামেরা তো তখন ছিলো না, তখন এটি ফিল্মে রেকর্ড করা হয়েছিলো। ফিল্মের একেকটা স্পুল চার মিনিটে শেষ হয়ে যায়। একটা স্পুল খুলে যেহেতু আরেকটা স্পুল ঢোকাতে হতো, সেহেতু কিছু কিছু জায়গায় দেখা যাবে, কিছু দৃশ্য নেই। এই সময়ের কিছুটা গ্যাপ ছিলো।’

তিনি দাবি করেন, এই ভিডিও রেকর্ডটি মূলত ডিএফপিরই সম্পদ। সেই ক্যামেরাটা এখনও ডিএফপির কাছে আছে। যে নাগরা রেকর্ডার, সেটাও আছে। যে মানুষগুলো এটি ধারণ করেছিলেন, তাদের অনেকেই কিছুদিন আগ পর্যন্তও জীবিত ছিলেন। 


লিয়াকত আলি খানের ভাষ্যে উঠে আসে একাত্তরের উত্তাল দিনে ভাষণটি যিনি রক্ষা করেছিলেন, সেই আমজাদ আলীর বীরত্বের কথা।

‘এই রেকর্ডিংটি ১৯৭১ সালে পাকিস্তানিদের হাত থেকে রক্ষা করারও একটি সুন্দর ইতিহাস আছে। ডিএফপির কার্যালয় তখন ছিলো সচিবালয়ের ভেতরে। সেখানে টিনশেডের একটি রুমের ভেতরে এটা রাখা ছিলো। অভিনেতা মহিবুর রহমান, (যাকে সবাই আবুল খায়ের নামেই চিনতেন) তখন ফিল্ম ডিভিশনের ডিরেক্টর ছিলেন। উনি এটিকে রক্ষ করার জন্য, আমজাদ আলী নামের এক সহকারীকে দেন (উনি পরে বিটিভির প্রেডিউসারও হয়েছিলেন)। উনি এটাকে বাক্সবন্দি করে পুরান ঢাকা দিয়ে নদীর ওপারে কেরানীগঞ্জ হয়ে মুন্সিগেঞ্জের দিকে চলে যান।’ 

তিনি জানান, ‘রেকর্ডটি নেয়ার সময় প্রেসক্লাব থেকে শুরু করে বিভিন্নস্থানে পাকিস্তানি সেনাদের চেকপোস্ট ছিলো। এরমধ্যেও এই রেকর্ডটি বাঁচানোর চ্যালেঞ্জ নেন তিনি।’

যেভাবে তৈরি হলো বঙ্গবন্ধুর ভাষণের পূর্ণাঙ্গ লিখিত রূপ

বঙ্গবন্ধুর এই মহান ভাষণটি বারবার শুনতে শুনতে বাঙালির মনে গেঁথে গেলেও দীর্ঘদিন পর্যন্ত এটির কপিগুলো ছিলো ছড়ানো ছিটানো অবস্থায়। এটির কোনো লিখিত পূর্ণাঙ্গ রূপও ছিলো না। সেটি তৈরির কাজ নিজের হাতে নিয়েছিলেন সাবেক প্রধান তথ্য অফিসার ড. মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর হোসেন। 

সময় নিউজকে তিনি জানান, ‘২০১০ সালে ডিএফপিতে গেলাম। ওখানে গিয়ে দেখলাম বঙ্গবন্ধুর কিছু ভাষণ সংরক্ষিত আছে। এর মধ্যে ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণও রয়েছে। আমার মূল আগ্রহের বিষয় হয়ে দাঁড়ালো এই ভাষণটি। আমরা চিন্তা করলাম, বঙ্গবন্ধুর এই ভাষণগুলো বিচ্ছিন্নভাবে আছে, এগুলোকে একসঙ্গে করে একটা বইয়ে রূপ দেয়া যায় কিনা।’ 

‘আমরা অবাক বিষ্ময়ের সঙ্গে দেখলাম, ভাষণটার বিভিন্ন জায়গায় বিভিন্ন দৈর্ঘ্য! ডিএফপি তে একটা ভিডিও রেকর্ড আছে, যেটার দৈর্ঘ্য ১০ মিনিট। আরেকটা টেপ পেলাম, যেটার দৈর্ঘ্য ১৪ মিনিট। ডিএফপিতেই ১৯৭২ সালে ভাষণটির একটি প্রিন্ট সংস্করণ সংরক্ষণ করা হয়েছিলো। হাসান হাফিজুরের বইয়েও ভাষণটি আছে। সবগুলো সংগ্রহ করে দেখলাম, প্রতিটি ভাষণে কিছু কিছু পার্থক্য রয়েছে। কোনোটায় দুই-এক লাইন বেশি আছে, কোনোটায় কম আছে।’

‘আমার কাছে মনে হলো, ৭ মার্চের মতো এত গুরুত্বপূর্ণ একটি ভাষণ - সেটার একটা পূর্ণাঙ্গ রূপ থাকা উচিৎ। পূর্ণাঙ্গ রূপ পেতে গেলে এটার মূল টেপটা প্রয়োজন, যেটা ৭ মার্চে রেকর্ড করা হয়েছিলো। তখন মনে পড়লো, এই ভাষণ সরসরি প্রচার করতে শুরু করেছিলো বেতার, কিন্তু মাঝখানে এটা বন্ধ করে দেয়া হয়। যে কারণে, ওই দিন আমরা পূর্ণাঙ্গ ভাষণটি শুনতে পারিনি। তখন মনে হলো, বাংলাদেশ বেতারে এর মূল কপিটি থাকতে পারে। তখন আমি বেতারে চিঠি দিলাম। এরপর ওদের ডিজির সঙ্গে কথা বলে আর্কাইভ থেকে ১৯৭২ সালের মূল কপিটা সংগ্রহ করলাম, যেটা ১৭ মিনিট দুই সেকেন্ডের।’

বেতারের সেই রেকর্ড ছাড়াও ১৯৭২ সালের বই ‘বজ্রকণ্ঠ’ এবং আরও কয়েকটি লিখিত রূপ সংগ্রহ করেন তিনি। জাহাঙ্গীর হোসেন লক্ষ্য করেন, বঙ্গবন্ধু যে ভাষণ দিয়েছেন, ১৯৭২ তা সালে পত্রপত্রিকায় যখন প্রকাশ করা হয়, তখন সেটাকে নানাভাবে সম্পাদনা করা হয়। প্রিন্ট সংস্করণে প্রকাশিত হওয়ার সময় ভাষণটিকে একটি পরিশীলিত রূপ দেয়া হয়। এই কারণে এই সংস্করণগুলোর সঙ্গে মূল ভাষণের পার্থক্য থেকে যায়।

তিনি বলেন, ‘আমি মূল ভাষণটি হুবহু কপি করে রাখলাম। যাতে এটি যথাসম্ভব অবিকলভাবে সংরক্ষণ করা যায়। ভাষণের কোনো কোনো জায়গায় বঙ্গবন্ধু থেমে যাচ্ছেন, জনতা দাবি তুলছে স্বাধীনতার ঘোষণা দেওয়ার, মাঝে মাঝে নেতা-কর্মীদের ধমক দিচ্ছেন। টেলিভিশন ও বেতার যখন বন্ধ করে দিলো সম্প্রচার, একটি বিশৃঙ্খলা তৈরি হলো। সেসময় তিনি নেতা-কর্মীদের কিছু নির্দেশনা দিচ্ছেন- এই সবই পরিশীলিত ভাষণের কপিতে নেই। এগুলো ব্র্যাকেটবন্দি করে ইটালিক ফন্টে লিখে আর নিচে একটা টিকা সংযুক্ত করে পূর্ণাঙ্গ ভাষণটির লিখিত রূপ সংরক্ষণ করা হলো।’

আর এভাবেই ডিএফপির তরফ থেকে প্রকাশিত হয় ‘বঙ্গবন্ধুর ভাষণ’ নামের বইটি।

তখন থেকেই ধীরে ধীরে শুরু হয় ভাষণটির আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পাওয়ার পালা।

তিনি জানান, ‘যখন আমরা এই বইটির কাজ করছিলাম, তখন আমাদের কাছে একদিন রোকেয়া খাতুন নামের একজন আসলেন, তিনি তখন বাংলাদেশ ইউনেস্কো কমিশনে কাজ করছিলেন। তিনি আসলে শিক্ষা ক্যাডারের লোক, ওখানে ডেপুটেশনে ছিলেন। তিনি জানালেন, ইন্দোনেশিয়ার জাকার্তায় ইউনেস্কোর ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ ট্রেনিং-এ যাবেন, সেখানে ইউনেস্কোর অন্তর্ভুক্ত দেশগুলোর প্রতিনিধিরা নিজ নিজ দেশের এতিহ্যকে তুলে ধরেন। তিনি এসেছেন আমাদের কাছে, ঢাকা ও বাংলাদেশের ঐতিহ্যের তথ্য নিতে। তখন তাকে আমি বললাম, আপনি যেহেতু ঐতিহ্য তুলে ধরতে পান, সবচেয়ে ভালো হবে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণটি তুলে ধরা হলে। তখন তিনি খুব উৎসাহিত হলেন আমাদের পূর্ণাঙ্গ কপিটি সংগ্রহ করে ইউনেস্কো কমিশনে দেখানোর জন্য। এটা ২০১১ সালের ঘটনা।’

রোকেয়া খাতুন ফিরে এসে ডিএফপিকে জানান ওখানে তিনি বঙ্গবন্ধুর ভাষণটি উপস্থাপন করেছেন। সেখানে ইউনেস্কোর সদর দফতরের কর্মকর্তারা এটি দারুণ পছন্দ করেন এবং বলেন এটি ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ মেমোরিয়ালে রেজিস্টার্ড হওয়ার যোগ্য। এ বিষয়ে সেবছর ডিএফপিতে আনুষ্ঠানিক চিঠিও পাঠায় ইউনেস্কো।

এরমধ্যে মোহাম্মদ জাহাঙ্গির হোসেন ২০১৪ সালে ফিল্ম আর্কাইভের ডিজি হিসাবে যোগদান করেন। তখন বিষয়টি আবার চাপা পড়ে যায়। সেই ছাইচাপা উদ্যোগ ২০১৫ সালে ফের তুলে আনে প্যারিসে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাস।

যেভাবে মিললো আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি

২০১২ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত ফ্রান্সে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত ছিলেন বিমসটেকের বর্তমান মহাসচিব শহীদুল ইসলাম। তিনি সময় নিউজকে জানান বাকি গল্পটা।

শহীদুল ইসলাম বলেন, ‘জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ ইউনেস্কো ইন্টারন্যাশনাল মেমোরি অফ দ্য ওয়ার্ল্ড-এ বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণ ডকুমেন্টারি হেরিটেজ হিসেবে রেজিস্টার্ড হওয়ায় কোটি কোটি বাঙালির মতো আমিও অনেক খুশি। বিশেষ করে ইউনেস্কোতে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি হিসেবে আমি ঐতিহাসিক ভাষণটির আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি অর্জনের যে প্রক্রিয়া- এর সঙ্গে প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত যুক্ত ছিলাম। কাজেই আমার জন্য এটা ব্যক্তিগত সন্তুষ্টিরও কারণ।’ 

তিনি জানান,‘প্যারিস মিশন থেকে আমরা চেষ্টা করেছি, বাংলাদেশের যে সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য, সেটাকে ইউনেস্কোর মাধ্যমে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সামনে তুলে ধরার। এক্ষেত্রে আমাদের সহযোগিতা করেছে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়, বাংলা একাডেমি, শিল্পকলা একাডেমি, জাতীয় জাদুঘর, প্রত্নতাত্ত্বিক বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদ। এদের সঙ্গে মিলে আমরা কিছু উদ্যোগ নিয়েছিলাম, তবে সব উদ্যোগ যে সফল হয়েছে, সেটা বলা যাবে না। কিন্তু জামদানি শাড়ি, মঙ্গল শোভাযাত্রা, শীতলপাটি কালচারাল হেরিটেজের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হয়েছে।’ 

‘আমার প্রথম থেকেই ইচ্ছা ছিলো যে, ইউনেস্কোর মেমোরি অফ দ্য ওয়ার্ল্ড-এ বাংলাদেশের কোন একটা গুরুত্বপূর্ণ ডকুমেন্ট অন্তর্ভুক্ত করার জন্য। এ ব্যাপারে প্রথমেই মনে আসে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণের কথা।’

‘এটার ইউনেস্কোর স্বীকৃতি পাওযার আবেদন করতে একই নমিনেশন ফাইল তৈরি করতে হয়। তাতে এটি লিখিতভাবে আছে, না অলিখিতভাবে আছে এবং তাতে যে কন্টেন্ট আছে, সেটা বিশ্বের মানব সম্প্রদায়ের জন্য যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ কিনা- সেটার বিবেচনারও একটি বিষয় ছিলো।’ 

এই নমিনেশন ফাইল তৈরিতে শহীদুল ইসলামকে সাহায্য করেছিলেন বেশ কয়েকজন ব্যক্তি এবং প্রতিষ্ঠান। তার ভেতরে প্রথমেই ছিলেন মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের ট্রাস্টি মফিদুল হক। তিনি প্রাথমিক নমিমেশন ফাইল তৈরিতে বেশ পারদর্শিতা দেখিয়েছিলেন বলে জানান সাবেক এই রাষ্ট্রদূত।

এরপর এই ফাইলের যাচাই-বাছাই ও উন্নত করার জন্য তিনি  আলাপ করেন তৎকালীন ডিএফপির ডিজি লিয়াকত আলি খানের সঙ্গে। মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর প্রাথমিকভাবে যে ফাইলটা তৈরি করেছিলো, তাতে শুধুমাত্র তাদের কাছে থাকা ফর্টি ফাইভ আরপিএম রেকর্ডে বঙ্গবন্ধুর ভাষণটা দেয়া হয়। প্যারিস মিশন খোঁজ করতে শুরু করে এই ভাষণের অন্যান্য দলিলের।

শহীদুল ইসলাম বলেন, ‘এক্ষেত্রে সবচেয়ে ইম্পর্ট্যান্ট যে অরিজিনাল আনএডিটেড ডকুমেন্টটা ছিলো। সেটি হলো তৎকালীন রেডিও পাকিস্তানের প্রোগ্রাম অর্গানাইজার নাসের আহমেদ চৌধুরীর করা রেকর্ডটি। এটাই পরবর্তীতে ৮ মার্চ রেডিও বাংলাদেশ ঢাকা কেন্দ্র থেকে সম্প্রচার করা হয়েছিলো। এছাড়াও ৭ মার্চ ভাষণের অরিজিনাল ৩৫ মিলিমিটার ভিডিও ফুটেজ- ধারণ করেছিলেন পাকিস্তান ফিল্ম ডিভিশনের চিফ মহিবুর রহমান খান।’

বাংলাদেশ ফিল্ম আর্কাইভ ২০১৩ সালে এটির একটি ডিজিটাল অডিও ভিশন সংস্করণ তৈরি করে। আরও পরে ২০১৪ সালে ২০১৪ সালে তথ্য ও যোগাযোগ মন্ত্রণালয় তৈরি করে একটি সংষ্করণ। এর সবগুলোই প্যারিস মিশন জমা দেয় ইউনেস্কোর কাছে। এরপর যাচাই বাছাই প্রক্রিয়া শুরু হয়।

শহীদুল ইসলামের ভাষ্যে, ‘আমরা এটি জমা দিয়েছিলাম ২৩ মে ২০১৬ তে। তারপর এটি প্রাথমিক যাচাই-বাছাইয়ের পর ২০১৭’র ফেব্রুয়ারিতে তারা এটি ফেরত দিলো কিছু সংশোধনের জন্য। এরপর ১৭ এপ্রিল ২০১৭ তে সংশোধনের পর আমরা এটা আবার জমা দিলাম। এরপর এদের চূড়ান্ত অথোরিটি ইন্টারন্যাশনাল রেজিস্টার অ্যাডভাইজারি কমিটি এটা ৩০ অক্টোবর এই ভাষণটিকে স্বীকৃতি দেয়।’

শহীদুল ইসলাম আরও জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী নিজে দেখে প্রস্তাবটি অনুমোদন করেন। প্রাথমিক নমিনেশন পাওয়ার পর ইউনেস্কোর নির্দেশে বেশ গোপনীয়তা রক্ষা করেই কাজটা করেন তারা।

এভাবেই বিশ্ববাসীর কাছে স্বীকৃতি পায় বাঙালির ইতিহাসের অন্যতম এই দলিল। নানা বন্ধুর পথ পেরিয়ে ৭ মার্চের এই ভাষণ তাই এখন কেবল বাংলাদেশের নয়, বিশ্ব ইতিহাসের এক অমূল্য সম্পদ।



DMCA.com Protection Status

এই বিভাগের সকল সংবাদ
বাংলাদেশে বিনিয়োগে আগ্রহী আরবের এনএমসি-লুলু গ্রুপ ঝিনাইদহে শুদ্ধ সুরে জাতীয় সংগীত প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত ভিক্ষার চালে চলে লক্ষীর সংসার! ভারতের বিরুদ্ধে পাকিস্তানের ভিন্ন কৌশল জামালপুরে ড্রেজার মেশিনের পাইপ পড়ে কৃষকের মৃত্যু সালমানকে জিজ্ঞাসাবাদ পুলিশের ঘরবাড়ি পরিষ্কারে যেসব ভুল সন্তানের জন্য ক্ষতিকর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ৪ জনের প্রার্থিতা প্রত্যাহার অগ্নিকাণ্ডের দুর্ঘটনা এড়াতে সিলেটে ফায়ার ব্রিগেডের মহড়া ৫০ বছরেও রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি মেলেনি সেনবাগে নিহত ৪ শহীদের ভারতের পক্ষে নামছে ইসরাইল ডাকাতিয়া নদীর তীরে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান নাটোর সদর উপজেলায় বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় ৩ জন নির্বাচিত প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় কিশোরীকে ব্লেড দিয়ে জখম স্বাভাবিক হয়েছে চট্টগ্রাম নগরীর গ্যাস সরবরাহ যেসব আদব-কায়দা থাকা দরকার বড়দের ব্রাহ্মণবাড়িয়ার গৃহবধূ হত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন গোপালগঞ্জে ৫টি কোচিং সেন্টার সিলগালা ডাকসু নির্বাচনে প্রার্থী চূড়ান্ত হয়নি ছাত্র সংগঠনগুলোর প্রেমিকের নাক কাটলেন প্রেমিকার চাচা বিয়েবাড়িতে ট্রাক দুর্ঘটনায় নিহত ১৩ রক্তঋণ শোধের দায়ে প্রস্তুত হচ্ছে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার সমুদ্রে ‘নরকের মাছ’ স্যুট পরার ৯ নিয়ম ‘রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে যুক্তরাজ্যের চাপ অব্যাহত থাকবে’ ‘অজানা ফোনে’ বন্ধ বিআইডব্লিউটিএ’র অভিযান জাহালমকে ক্ষতিপূরণ পাওয়ার আইনি লড়াই চালাবে মানবাধিকার কমিশন পেঁপের বীজে লুকিয়ে হরেক পুষ্টিগুণ পাক-ভারত উত্তেজনা: পরমাণু অস্ত্র বাড়াচ্ছে ইসলামাবাদ বাড়িকে তেলাপোকা মুক্ত করার ৩টি অব্যর্থ উপায় সিরিয়ায় জোড়া বোমা বিস্ফোরণে নিহত ১৫ ‘বিশ্বাসঘাতক জেরেমি করবিন’ অনিয়মিত মাসিকের ৯টি ঘরোয়া সমাধান মালদ্বীপের সাবেক প্রেসিডেন্টকে গ্রেফতারের নির্দেশ ‘যুক্তরাষ্ট্র চেষ্টা করলেও হুয়াওয়েকে ধ্বংস করতে পারবে না’ খুশকির সমস্যা দূর করতে সহজ কিছু টিপস কোমায় গর্ভবতী নারীর সন্তান প্রসব! পাকিস্তানিদের ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে রাজস্থান ছাড়ার নির্দেশ কুলভূষণকে মুক্তি দিতে আন্তর্জাতিক আদালতের প্রতি ভারতের আহবান বলিভিয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২৪ ন্যাটোর বিরুদ্ধে অস্ত্র সরবরাহের অভিযোগ এরদোয়ানের ক্লাসে বসে স্কুল ছাত্রীদের মদ্যপান, অজ্ঞান ২ পাকিস্তানে হামলা হলে পাল্টা জবাবের হুমকি ইমরানের ইরানে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় আটক ৩ বিচারপতি বললেন, ‘মশার জ্বালায় বাঁচি না, বরাদ্দ করা কোটি টাকা কই যায়’ আইলাইনারে রঙিন হোক বসন্ত টাকা উত্তোলনের পর বাঁধ নির্মাণ না করায় আটক ৭ বিবির ইতিহাস বই প্রত্যাহারের নির্দেশ খাগড়াছড়িতে অগ্নিকাণ্ডে দম্পতিসহ দগ্ধ ৯ সিরাজগঞ্জে বিরল প্রজাতির মদন টাক উদ্ধার সরিয়ে নেওয়া হলো বিআইডব্লিউটিএ’র ঢাকা বন্দরের প্রধানকে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন কুদ্দুস বয়াতি দুই ভারতীয় যুদ্ধবিমান বিধ্বস্ত, পাইলট নিহত অনুমোদনহীন পানি সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অভিযান চলবে সন্ত্রাসীদের কঠোর হাতে দমনের ঘোষণা মোদির বিস্ফোরক মামলায় উপজেলা চেয়ারম্যান কারাগারে আখেরি মোনাজাত শেষে রাস্তায় মানুষের ঢল ‘বাংলাদেশের আইন সহায়তার পলিসি উগান্ডায় বাস্তবায়ন করা হবে’ ধূসর হচ্ছে মোহামেডানের ঐতিহ্য তিন মাসে অচল রাস্তা সচল করার নির্দেশ কাদেরের আড্ডায় মাতুন 'হৃদয়ের রংধনু'র তারকাদের সঙ্গে ভবন ভাঙার প্রস্তুতি না থাকায় ফিরে গেল বিআইডব্লিউটিএ ব্যাংকের প্রধান সমস্যা তুলে ধরলেন অর্থমন্ত্রী উচ্ছেদ অভিযানে বাধা দিতে গিয়ে ছাত্রলীগ নেতা আটক ‘অস্ত্র হাতে নিলেই গুলি’ হোয়াইট ওয়াশ এড়াতে বুধবার মাঠে নামছেন মাশরাফিরা শপিংমলে ১০ টাকায় শাড়ি, অতপর...! (ভিডিও) চ্যাম্পিয়ন্স লিগে মুখোমুখি বায়ার্ন-লিভারপুল, মাঠে নামবে বার্সাও এটা রীতিমতো হাস্যকর: রিজভী আইসিটি মন্ত্রীর ফেসবুক স্ট্যাটাস নিয়ে যা বললেন সালমান মুক্তাদির উপজেলা নির্বাচন নিয়ে নুরুল হুদা-মাহবুব তালুকদারের ভিন্ন বক্তব্য শেবাচিম গাইনি বিভাগ প্রধানকে বরখাস্তের আবেদন একুশে ফেব্রুয়ারি রাজধানীর নিরাপত্তায় ১৬ হাজার পুলিশ পুলওয়ামা হামলা: বিজেপি সরকারেরও শাস্তি চাইলেন মমতা বাংলাদেশে যখন দেখা যাবে সুপারমুন এএসপি মিজান হত্যার তদন্ত প্রতিবেদন ২৪ মার্চ আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের জন্য প্রস্তুত কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার ডাকসু’র মনোনয়নপত্র বিতরণ শুরু শেষ হলো বিশ্ব ইজতেমা 'দেশি-বিদেশি সব ধরণের বিনিয়োগ বান্ধব নীতিমালা করা দরকার' বঙ্গোপসাগরে গ্যাস অনুসন্ধানের অনুমোদন পেল ব্রিটিশ কোম্পানি ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারে সেবার পরিসর বাড়ানোর পরিকল্পনা শুক্রবার মুক্তি পাচ্ছে ‘হৃদয়ের রংধনু’ (ভিডিও) অনলাইনে পণ্যের মূল্য পরিশোধে কর ছাড় চায় ই-ক্যাব যে বয়সে যতটুকু ঘুমানো দরকার গুগলে ‘টয়লেট পেপার’ লিখলে আসছে পাকিস্তানের পতাকা কাশ্মীরে হামলা, ক্রিকইনফোর ওপর ভারতীয়দের ক্ষোভ চেলসিকে হারিয়ে এফ এ কাপের কোয়ার্টারে ম্যানইউ জঙ্গি হানার ঘটনা নিয়েও তৃণমূল-বিজেপি মুখোমুখি পশ্চিমবঙ্গে বুধবার বসছে পদ্মা সেতুর অষ্টম স্প্যান আলোচনার দিন শেষ, এখন অ্যাকশনের সময়: মোদি ছয় তলা থেকে লাফিয়ে পালানোর চেষ্টা রিমান্ডে থাকা জঙ্গির তাৎক্ষণিক মন ভালো করার কিছু উপায় বাংলাদেশের জন্য উন্মুক্ত হচ্ছে আরব আমিরাতের শ্রমবাজার যেসব খাবার রুখবে চিকেন পক্স বিশ্ব ইজতেমা শেষ হচ্ছে আজ নারায়ণগঞ্জের ধর্ষণ মামলার আসামি গাজীপুরে গ্রেফতার মঙ্গলবারের রাশিফল (১৯ ফেব্রুয়ারি) সংসার জট খুলবে কর্কটের, খরচ বৃদ্ধি সিংহের আজ যেসব এলাকায় গ্যাস থাকবে না কুষ্টিয়ায় গুলিতে দুইজন নিহত
আরও সংবাদ...
মাঝরাতে সালমানের বাড়ির গেট ভাঙচুর করলেন জেসিয়া (ভিডিও) শাকিবের বাড়িতে অপু-বাপ্পীর ‘আংটি বদল’ ২ সার্কুলারে ২ লাখ ৩০ হাজার নিয়োগ! স্ত্রী’র পরকীয়া নিয়ে ফেসবুক স্ট্যাটাসের পর চিকিৎসকের ‘আত্মহত্যা’ মডেলিংয়ে পোশাক খোলার গোপন তথ্য জানালেন পিয়া ২৫ বছরের মধ্যে বিয়ে না করলেই শাস্তি! সালমানের বিরুদ্ধে মুখ খুললেন জেসিয়া ৩৪ কোম্পানির প্রধান এই রিকশাচালক! সঙ্গীত পরিচালক আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল আর নেই বিএনপিকে কড়া বার্তা ভারতের প্রেমিকের সঙ্গে ইন্দোনেশিয়ায় 'রোমাঞ্চকর' পরীমণি অবিবাহিত নারীরা পাচ্ছেন সাতদিন ‘প্রেম করার ছুটি’ শেখ হাসিনাকে হত্যাচেষ্টার অস্ত্রবাহী জাহাজ ডুবে যায় সাগরে ফোন হ্যাক করে নায়িকার আপত্তিকর ছবি ফাঁস! সাংবাদিককে আত্মহত্যা করতে বললেন সচিব (ভিডিও) ওয়ানডে বিশ্বকাপের পূর্ণাঙ্গ সময়-সূচি ফোন চার্জে রেখে গান শুনতে গিয়ে যুবকের মৃত্যু আজীবন যৌবন ধরে রাখবে যে ১২ খাবার ওজন কমানোর স্বাস্থ্যসম্মত ডায়েট চার্ট নিম্নমানের ভিটামিন ক্যাপসুল কিনতে বাধ্য করেছিল ভারত: স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী লাফিয়ে শূন্যে উঠে নারীকে জীবিত খেল কুমির ঢামেক নিউক্লিয়ার মেডিসিন বিভাগের প্রধান হলেন ডা. এজাজ ‘টেন ইয়ার চ্যালেঞ্জ’ একটি ফাঁদ! হেলমেটবিহীন হিরো আলমকে আটকালো পুলিশ সিমের মতো হ্যান্ডসেটও নিবন্ধন করতে হবে বন্ধ হচ্ছে ৭ দিনের নিচের ইন্টারনেট প্যাকেজ ছেলেদের হৃদযন্ত্রের ক্ষতির কারণ সুন্দরী মেয়ে: গবেষণা চট্টগ্রামে চিকিৎসক ‘আত্মহত্যার’ ঘটনায় স্ত্রী আটক রাসায়নিক খাওয়ানো গরুর দুধ মদের চেয়ে ক্ষতিকর: দাবি বিশেষজ্ঞের চাইলে অনেক কিছুই করতে পারতাম, জেসিয়া প্রসঙ্গে সালমানের মা মাশরাফি একটু ‘ক্ষুব্ধই’ সংরক্ষিত আসনে আওয়ামী লীগের এমপি হলেন যারা ম্যাসেঞ্জারে যুক্ত হলো নতুন সুবিধা অবশেষে ওয়ানডে দলে ইমরুল ঐক্যফ্রন্ট ও বিজয়ীদের বিষয়ে খালেদা জিয়ার সিদ্ধান্ত ধানমণ্ডির সুলতান'স ডাইনকে জরিমানা হঠাৎ বিএনপি নেতার কলার চেপে ধরলেন ফখরুল! সম্পর্ক ভাঙলো সালমান-জেসিয়ার রাতারাতি ভাইরাল যে প্রধান শিক্ষক (ভিডিও) বিসিবি কর্মকর্তার নির্দেশে সময় টিভির সাংবাদিককে হেনস্তা আপাতত বাংলাদেশে কোন আইসিসি টুর্নামেন্ট আয়োজন করা সম্ভব নয়: আইসিসি চেয়ারম্যান বেতন বাড়ল পোশাক শ্রমিকদের ইমরান খানকে এগিয়ে আসার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর আপনার মোবাইলটি বৈধ কিনা যাচাই করবেন যেভাবে ফিরছেন ‘অশ্লীল’ পরিচিতি পাওয়া সেই দুই নায়িকা ভুল প্রশ্নপত্রে এসএসসি পরীক্ষা নেওয়ার অভিযোগ বাণিজ্যমেলায় পুলিশ কর্মকর্তার সাথে হাজী বিরিয়ানির কর্মীদের হাতাহাতি নষ্ট মোবাইল ফেরত দিলে টাকা পাওয়া যাবে বুড়ো হতে না চাইলে খেতে হবে এই ১২টি খাবার ট্রাক চালক পেলেন ২৫০০ কোটি টাকা!
আরও সংবাদ...


somoytv subscribe
সময়ের সকল ভিডিও দেখতে সাবস্ক্রাইব করুন

Contact Address

Nasir Trade Centre, Level-9,
89, Bir Uttam CR Dutta Road, Dhaka 1205, Bangladesh
Email: somoydigitalsomoynews.tv

Find us on

  Live TV DMCA.com Protection Status
উপরে