আপডেট
২৫-০৩-২০১৫, ০৯:০১

ভয়াল ২৫ মার্চ: নির্মম হত্যাযজ্ঞের ৪৪ বছর

25-march
১৯৭১ এর ২৫ মার্চ ভয়াল রাতের ৪৪ বছর পূর্ণ হল আজ। একাত্তরের অগ্নিঝরা এ দিনে অপারেশন সার্চ লাইটের নামে রাতের অন্ধকারে ঢাকা ও এর আশেপাশের এলাকায় হাজার হাজার নিরস্ত্র মানুষকে নির্মমভাবে হত্যা করে পাকিস্তানি বাহিনী। মধ্যরাতে ঢাকা পরিণত হয় লাশের শহরে। বিভিন্ন আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে প্রকাশিত তথ্যমতে পাকিস্তানিদের হাতে ঢাকায় ৭ হাজারের বেশী লোক শহীদ হন, গ্রেফতার হয় আরো ৩ হাজার। আর সেই রাতের ভয়াল স্মৃতি এখনো তাড়া করে কোনরকম প্রাণে বেঁচে যাওয়া ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও কর্মচারীদের।

অপারেশন সার্চ লাইট। ইতিহাসের এক বর্বরতম হত্যাযজ্ঞের নাম। ১৯৭১ এর ২৫ শে মার্চ রাত ১১টা। ক্যান্টনমেন্ট থেকে জিপ ও ট্রাক বোঝাই পাকিস্তানি সৈন্য ট্যাঙ্কসহ আধুনিক সমরাস্ত্র নিয়ে শুরু করে তাণ্ডবলীলা। হতচকিত বাঙালি কিছু বুঝে ওঠার আগেই ঢলে পড়ে মৃত্যুর কোলে।   

১৯৭১ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অনার্স ২য় বর্ষের শিক্ষার্থী ফজলুর রহমান। ২৫ শে মার্চ রাতে সলিমুল্লাহ মুসলিম হলের ২৯ নাম্বার কক্ষেই ছিলেন তিনি। আজও ভয়াল রাতের সেই বিভৎস স্মৃতি তাড়া করে তাকে।  

সেই রাতের ঘটনার বর্ণনা দিতে গিয়ে তিনি বলেন, গুলির শব্দের সাথে সাথে ছাত্রদের আর্তনাদ আমার কানে আসতো, আর আমি তখন বুঝতে পারতাম কি হচ্ছে। আমারও ধারণা হচ্ছিল, একই পরিস্থিতির শিকার আমিও হচ্ছি। '

কক্ষের ভিতর তিনদিন অনাহারে থেকে বের হওয়ার পর বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন স্থানে পড়ে থাকা মানুষের লাশ আজও জীবন্ত হয়ে আছে তার চোখে।

১৯৭১ সাল থেকে জহুরুল হক হলের স্বাস্থ্য কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব পালনকারী আব্দুর রউফ। সেই ভয়াল রাতে হলের ভিতর লুকিয়ে বেঁচেছিলেন তিনি। জানালেন, মানুষের আর্তনাদ কানে আসার পর গলা শুকিয়ে যায় এবং মনে মনে চিন্তা হতে থাকে, ওরাতো ঘরেও আসতে পারে। '

স্বাধীনতার দাবিতে চলমান আন্দোলনকে দমন করতে সে রাতের আক্রমণে সবচেয়ে বেশি মারা যান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে জগন্নাথ হলে থাকা শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।




DMCA.com Protection Status

এই বিভাগের সকল সংবাদ

Contact Address

Nasir Trade Centre, Level-9,
89, Bir Uttam CR Dutta Road, Dhaka 1205, Bangladesh
Email: somoydigitalsomoynews.tv

Find us on

  Live TV DMCA.com Protection Status
উপরে