প্রশ্নবিদ্ধ নির্বাচন: গণতান্ত্রিক ধারায় ব্যাঘাত ঘটার আশঙ্কা

Update: 2015-05-04 07:19:28, Published: 2015-05-04 07:19:28
city-elect-1-ed


ঢাকা ও চট্টগ্রামের সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মোট ৪৮ জন মেয়র প্রার্থীর মধ্যে জামানত হারিয়েছেন ৪২ জন। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও বিএনপি ব্যতীত সব প্রার্থীই এতে জামানত হারিয়েছেন। তবে, জামানত হারানো প্রার্থীরা বলছেন, নির্বাচনের নামে সরকার প্রহসন করায় তারা কাঙ্ক্ষিত ভোট পাননি।

আর, বিশিষ্টজনরা বলছেন, নির্বাচন সুষ্ঠু না হওয়ায় গণতান্ত্রিক ধারার মধ্যে ব্যাঘাত ঘটছে, এতে বাধাগ্রস্ত হবে গণতান্ত্রিক ধারার এগিয়ে যাওয়ার।

তিন সিটি করপোরেশন নির্বাচনী এলাকার মোট ভোটার প্রায় সাড়ে ২৬ লাখ। নির্বাচনে প্রদত্ত ভোটের মধ্যে এক অষ্টমাংশ ভোট না পেলে প্রার্থীদের জামানত বাজেয়াপ্ত হয়। এই হিসেবে বিএনপি এবং আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী ছাড়া কেউই প্রয়োজনীয় ভোট পাননি।

তবে, নির্বাচনে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরি না হওয়া, গণমাধ্যমের অসহযোগিতা এবং সরকারের আইওয়াশের নির্বাচনের কারণেই প্রার্থীদের কেউই তাদের প্রয়োজনীয় ভোট পায়নি বলে অভিযোগ করেন মেয়র প্রার্থীরা।

মেয়র প্রার্থীরা বলেন, 'আমরা যে এখানে ১০০০ ভোট পেয়েছি তা অলৌকিক, এই মানুষগুলো আমাদের কেন ভোট দিলো আমরা জানি না। এখানে ভোটকেন্দ্রে কোন এজেন্ট ছিল না, সাংবাদিক ছিল না, তাই এইসব ভোট গণনার কী মূল্য আছে। আমরা প্রচারণার সময় মানুষের মাঝে উচ্ছ্বাস দেখেছি, দেখেছি তাদের মাঝে বের হয়ে আসার আকুতি। আমরা প্রজন্মের কথা বুঝতে পারছি, এখন এটাকে নিয়েই আমরা সামনের দিকে এগিয়ে যাবো।'

জনগণ দুই বলয়ের বাইরে এসে তৃতীয় যোগ্য কাউকে নির্বাচিত করতে চাইলেও নির্বাচন প্রক্রিয়ার কারণে প্রতিফলিত হয়নি বলে জানালেন, জামানত বাজেয়াপ্ত হওয়া মেয়র প্রার্থীরা।

২০১৩ সালের পর দেশের রাজনীতিতে যে অস্থিরতা তৈরি হয়েছে, সিটি করপোরেশনের সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমে তা কিছুটা ফিরে আসার সুযোগ তৈরি হলেও সরকার সে সুযোগ হারিয়েছেন। এতে, সংকটে পড়বে গণতন্ত্রের অগ্রযাত্রা এমনটাই বলছেন সংশ্লিষ্টরা।

ঢাবি রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগ চেয়ারম্যান নুরুল আমিন ব্যাপারী বলেন, 'আমরা অবাক হয়ে দেখলাম এটা কী নির্বাচন হলো। দেশের বুদ্ধিজীবীরা এখনও দু'টি বলয়ে বিভক্ত হয়ে আছে।'

অন্যদিকে, সাবেক নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার শাখাওয়াত হোসেন বলেন, 'রাজনীতিতে যারা নতুন আসতে চাচ্ছে তারা এই নির্বাচনে একটা বাজে উদাহরণের সম্মুখীন হলো। এই মেধাহীন পুরোনো মানুষগুলো এখন আর ভবিষ্যৎ রাজনীতির জন্য ভালো নয়,
 
দুই দলীয় বলয় থেকে বেরিয়ে আসতে না পারার কারণে নির্বাচিত করা যাচ্ছে না যোগ্যতম প্রার্থীকে। আর এতে কাঙ্ক্ষিত মাত্রার উন্নয়নও ব্যাহত হচ্ছে। তাই, দুই দলীয় বলয় থেকে বেরিয়ে এসে যোগ্যতম প্রার্থীকে নির্বাচিত করা গেলে গণতান্ত্রিক ধারার উন্নয়নের পাশাপাশি কাঙ্ক্ষিত মানের উন্নয়নও সম্ভব বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।

Update: 2015-05-04 07:19:28, Published: 2015-05-04 07:19:28

আপনার মন্তব্য লিখুন

পাঠকের মন্তব্য ( )


More News
  


আরও সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ



সরাসরি যোগাযোগ

৮৯, বীর উত্তম সি. আর. দত্ত রোড, ঢাকা ১২০৫, বাংলাদেশ।
ফ্যাক্স: +৮৮০২ ৯৬৭০০৫৭, ইমেইল: info@somoynews.tv
উপরে en.Somoynews.tv