আপডেট
১১-০৩-২০১৭, ২৩:১৭

প্রধানমন্ত্রীর উদ্বোধনের অপেক্ষায় চীন থেকে আনা দু'টি সাবমেরিন

submarine
চীন থেকে আনা সাবমেরিন নবযাত্রা ও জয়যাত্রা'র আগামীকাল আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দেশের সমুদ্র সম্পদ ও সীমানা রক্ষায় নৌ-বাহিনীতে সাবমেরিন যুক্ত হওয়ায় সশস্ত্র বাহিনী ত্রিমাত্রিক শক্তিতে রূপান্তরিত হওয়ার পাশাপাশি দেশ রক্ষায় তাদের সক্ষমতা আরও বেড়েছে বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। এছাড়া, সাবমেরিন যুক্ত করার বিষয়টি সব অপশক্তি ও জঙ্গি ঝুঁকি থেকেও দেশ রক্ষায় ইতিবাচক ভূমিকা রাখবে বলে মত তাদের। দেশের স্থল ভাগের চেয়েও দ্বিগুণ বড় সমুদ্র অঞ্চল যুক্ত হয়েছে বাংলাদেশের সীমানায়। এতে দেশের সমুদ্র সম্পদ ও সীমানা রক্ষায় উপযুক্ত সরঞ্জাম নির্ভর নৌবাহিনীর প্রয়োজনীয়তা দেখা দিলেও সক্ষমতার দিক থেকে তারা এখনো অপ্রতুল। এ অবস্থায় সমুদ্র সীমায় তেল অনুসন্ধান কিংবা মৎস্য সম্পদ রক্ষা কার্যক্রম নির্বিঘ্ন করতেই যুক্ত করা হয়েছে অত্যাধুনিক সাবমেরিন। বিশেষজ্ঞদের মতে, নিজ দেশের প্রাকৃতিক সম্পদ ও সীমানা সুরক্ষায় নৌবাহিনীর সক্ষমতা কয়েকগুণ বাড়বে।

সাবেক সহকারী নৌবাহিনী প্রধান রিয়ার অ্যাডমিরাল (অব.) এএসএমএ আউয়াল বলেন, 'আমাদের বহির্বাণিজ্যের সিংহভাগ এটা দিয়ে হয়। যার ফলে কার্যকারিতা ছিলো দ্বিমাত্রিক নৌবাহিনীর। এটা অনেকগুণে বেড় যাবে সাবমেরিন যুক্ত হওয়ার কারণে।

নৌ-বাহিনীর জন্য চীন সরকারের তৈরি করা নবযাত্রা ও জয়যাত্রা নামে ডিজেল ইলেকট্রিক সাবমেরিন দুটি টর্পেডো ও মাইন দ্বারা সুসজ্জিত উল্লেখ করে বিশেষজ্ঞরা বলেন, এটি শত্রুপক্ষের যুদ্ধজাহাজ ও সাবমেরিন আক্রমণে সক্ষম।

নিরাপত্তা বিশ্লেষক মেজর জেনারেল (অব.) আব্দুর রশীদ বলেন, 'বাংলাদেশের স্বার্থ রক্ষার জন্য তো সক্ষমতা অর্জন করতে হবে। যদি ব্যয় আপনি না করেন তাহলে বিদেশি অপশক্তি, জঙ্গিশক্তি আপনার এলাকা দখল করে ফেলবে। ঝুঁকি আর সামর্থ্যের মধ্যে একটা ব্যালেন্স তৈরি করা সেটি হচ্ছে সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ।'

২০১৩ সালের নভেম্বরে চীনের সাথে জি টু জি চুক্তির পর গত বছরের নভেম্বরে সাব মেরিন দুটি বাংলাদেশের কাছে আনুষ্ঠানিকভাবে হস্তান্তর করে চীন।




DMCA.com Protection Status

এই বিভাগের সকল সংবাদ

Contact Address

Nasir Trade Centre, Level-9,
89, Bir Uttam CR Dutta Road, Dhaka 1205, Bangladesh
Email: somoydigitalsomoynews.tv

Find us on

  Live TV DMCA.com Protection Status
উপরে