আপডেট
২১-০১-২০১৫, ১৫:৫১

দুই জাপানি জিম্মি: জঙ্গিদের বিরুদ্ধে কঠোর হওয়ার আহবান

দুই জাপানি জিম্মি: জঙ্গিদের বিরুদ্ধে কঠোর হওয়ার আহবান
দুই জাপানি জিম্মির বিনিময়ে মুক্তিপণের দাবিকে অগ্রহণযোগ্য বলে জঙ্গিদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি আহবান জানিয়েছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী শিনজো অ্যাবে। দুই বন্দিকে দ্রুত মুক্তি দেয়ার দাবি জানিয়েছেন জাতিসংঘ মহাসচিব। এ পরিস্থিতিতে ইরাকে মোতায়েন মার্কিন সেনাদের আইএস-এর বিরুদ্ধে লড়াই করার অনুমতি দেয়ার জন্য কংগ্রেসের প্রতি আহবান জানিয়েছেন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা।
গত শনিবার মিশরের রাজধানী কায়রোয় জাপানী প্রধানমন্ত্রী শিনজো অ্যাবে ঘোষণা দেন, আইএসের বিরুদ্ধে যুদ্ধরত এবং আক্রান্ত দেশগুলোতে ২৫০ কোটি মার্কিন ডলার অর্থ সহায়তা দেবে তার সরকার।

আর ঠিক চারদিন পর এবার দুই জাপানী জিম্মিকে হত্যার হুমকি দিয়ে মুক্তিপণ দাবি করেছে জঙ্গি গোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট । ইন্টারনেটে একটি ভিডিও বার্তায় এক ব্যাক্তি জঙ্গি গোষ্ঠীটির পক্ষ থেকে জানায়, ৭২ ঘণ্টার মধ্যে জাপান সরকার ২০ কোটি ডলার মুক্তিপণ না দিলে দুই জাপানীকে হত্যা করা হবে।

ভিডিও বার্তায় দেখানো জাপানী নাগরিকেরা হলেন, হারুনা ইউকাওয়া ও কেনজি গোতো। কেনজি গোতো পেশায় সাংবাদিক এবং লেখক। জাপানী একটি সংবাদমাধ্যমের হয়ে তিনি সিরিয়ায় খবর সংগ্রহ করতে গিয়েছিলেন।

ইন্টারনেটে আইএস প্রকাশিত আরেকটি ভিডিওতে দেখা যায় জঙ্গি হিসবে প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে হারুনা ইউকাওয়াকে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করার ছবিও আছে ভিডিওটিতে। প্রায় ৬ মাস আগে ভিডিওটি ধারণ করা বলে দাবি করা হয় আইএস-এর সাইটটিতে।

তবে জঙ্গিদের এই হুমকি কোনোভাবেই মেনে নেয়া যায় না বলে মন্তব্য করে জিম্মিদের বাঁচাতে সর্বশক্তি নিয়োগের অঙ্গীকার করেছেন জাপানের প্রধানমন্ত্রী।


জাপানী প্রধানমন্ত্রী শিনজো অ্যাবে বলেন, 'দুজন নিরপরাধ মানুষকে বন্দি করে এভাবে মুক্তিপণ চাওয়াটা অন্যায়। আমরা এর তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি। পাশাপাশি এও বলছি মধ্যপ্রাচ্যে শান্তি বজায় রাখতে আমরা আমাদের দায়িত্ব পালন করে যাব। আমি মনে করি সন্ত্রাসী আর জঙ্গিদের প্রতি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের আরো কঠোর হওয়া উচিত।'

জাপানী বন্দিদের মুক্তি দিতে জঙ্গিদের প্রতি আহবান জানিয়েছেন জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি মুনও।

জাতিসংঘ মহাসচিবের মুখপাত্র স্টেফান দুজারিক বলেন, 'জাতিসংঘ মহাসচিব বন্দিদের ব্যাপারে অবগত আছেন এবং তিনি কোনো শর্ত ছাড়াই তাদের মুক্তি দিতে আইএসের প্রতি আহবান জানিয়েছেন।'

এদিকে ইরাকে মোতায়েন করা মার্কিন সেনাদের আইএসের বিরুদ্ধে সরাসরি লড়াইয়ে ব্যবহারের উদ্যোগ নিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা। বিষয়টি অনুমোদন দিতে কংগ্রেসে একটি বিল উত্থাপন করেছেন তিনি। পাশাপাশি বিলটি অনুমোদন করতে মঙ্গলবার রাতে কংগ্রেস সদস্যদের প্রতি আহবানও জানান ওবামা। বর্তমানে ইরাকে মার্কিন সেনারা শুধুমাত্র সেখানকার মার্কিন স্থাপনা রক্ষা করতেই নিয়োজিত রয়েছে। এসময় ইরাক ও সিরিয়ায় মার্কিন বিমান হামলা আইএসের যথেষ্ট ক্ষতি করেছে বলেও জানান প্রেসিডেন্ট ওবামা।

তারা প্যারিসের রাস্তা থেকে শুরু করে পাকিস্তানের স্কুল পর্যন্ত সব জায়গাতেই হত্যাযজ্ঞ চালাচ্ছে। তাই এই ভয়াবহ পরিস্থিতিতে আমি আপনাদেরকে ইরাক ও সিরিয়ায় সেনা পাঠাতে বলছি। কারণ সারা বিশ্বের শান্তিপ্রিয় মানুষকে দেখাতে হবে আমরা তাদের পাশে আছি।

এদিকে ইরাকি প্রধানমন্ত্রী হায়দার আল-আবাদি দাবি করেছেন, আনবার শহরে ইরাকি বাহিনীর চালানো এক বিমান হামলায় আইএস প্রধান আবু বকর আল বাগদাদী গুরুতর আহত হয়েছেন। এর আগেও মসুল শহরে বিমান হামলায় বাগদাদী নিহত হন বলে ইরাকি প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় দাবি করেও পরে জানা যায় বাগদাদী বেঁচে আছেন।




DMCA.com Protection Status

এই বিভাগের সকল সংবাদ

Contact Address

Nasir Trade Centre, Level-9,
89, Bir Uttam CR Dutta Road, Dhaka 1205, Bangladesh
Email: somoydigitalsomoynews.tv

Find us on

  Live TV DMCA.com Protection Status
উপরে