আপডেট
২১-০১-২০১৫, ১০:৪১
মহানগর সময়

অনলাইন নাশকতার কবলে বন্দরনগরী চট্টগ্রাম

অনলাইন নাশকতার কবলে বন্দরনগরী চট্টগ্রাম
বিএনপি'র নেতৃত্বাধীন ২০ দলের চলমান অবরোধ কর্মসূচিতে অনলাইন নাশকতার কবলে পড়েছে বন্দরনগরী চট্টগ্রাম। পুলিশের ভাষায় যাকে বলা হচ্ছে ডিজিটাল সন্ত্রাস। মোবাইল এসএমএস'এর মাধ্যমে সংগঠিত হয়ে যেমন পেট্রোল বোমা হামলা কিংবা গাড়িতে আগুন দিচ্ছে দুর্বৃত্তরা। তেমনি অজ্ঞাতস্থান থেকে পাঠানো পরিচয়হীন ই- মেইল বার্তায় পালন হচ্ছে লাগাতার হরতাল কর্মসূচি। এ অবস্থায় এ ধরণের মোবাইল এসএমএস এবং ই- মেইল বার্তা প্রেরকদের শনাক্তের চেষ্টা করছে পুলিশ প্রশাসন।

পুলিশি গ্রেফতার এড়াতে গত ৫ জানুয়ারির পর থেকে চট্টগ্রামের ২০ দলীয় জোটের শীর্ষস্থানীয় নেতারা আত্মগোপনে রয়েছেন। নেতাদের সাথে সাধারণ কর্মীদের যোগাযোগ নেই বললেই চলে। এমনকি তাদের ব্যক্তিগত সহকারীরাও কারো সাথে যোগাযোগ রাখছেন না। কিন্তু প্রতিদিনই মোবাইল এসএমএসের মাধ্যমে সংগঠিত হয়ে দুর্বৃত্তরা চালাচ্ছে নাশকতা।

সর্বশেষ অজ্ঞাতনামা একটি ই- মেইল বার্তার মাধ্যমে মঙ্গলবার বৃহত্তর চট্টগ্রামে ৩৬ ঘণ্টার হরতাল ডাকা হয়। অথচ এ হরতাল কে এবং কিভাবে আহ্বান করেছে তা কেউ জানে না। সোমবার বিকেলে বিএনপি সমর্থিত একটি অনলাইনে এ হরতালের বিষয়টি প্রকাশ হওয়ার পর সন্ধ্যায় অজ্ঞাত স্থান থেকে পাঠানো হয় পরিচয়হীন এই ই- মেইল বার্তাটি।

চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার আবদুল জলিল মণ্ডল জানান, 'অজ্ঞাত স্থান থেকে দুষ্কৃতকারীরা মেসেজ দিচ্ছে । এই মেসেজটি পত্রিকা, অনলাইন পোর্টাল বা কোনো টেলিভিশন চ্যানেলে প্রকাশ হচ্ছে। পরে হরতাল পালিত হয়ে যাচ্ছে। এটাও একধরনের অনলাইন সন্ত্রাস।'

চট্টগ্রাম (উত্তর) অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ শহীদউল্লা বলেন, 'এসএমএসের মাধ্যমে এবং অনলাইনে মেসেজ দিয়ে দৃর্বৃত্তরা নাশকতার পরিকল্পনা করে। একই পদ্ধতিতে তারা সংগঠিত হওয়ার চেষ্টা করে। তখন সেই সূত্র ধরে আমরা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করি এবং তাদেরকে আটক করার চেষ্টা করি।'

সাম্প্রতিক সময়ে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের সীতাকুন্ড এবং নগরীতে যে নাশকতা চালানো হয়েছে তার অধিকাংশই মোবাইল এসএমএসের মাধ্যমে সংগঠিত করা হয়েছে বলে নিশ্চিত হয়েছে পুলিশ।


সিএমপি পুলিশ কমিশনার আবদুল জলিল মণ্ডল জানান, 'তারা যেমন অনলাইনে নিজের নাম গোপন রেখে বিভিন্ন মেসেজগুলো পাঠাচ্ছে ঠিক একইভাবে তাদেরকে আটকও করার চেষ্টা চলছে।'

চট্টগ্রাম (উত্তর) অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ শহীদউল্লা বলেন, একই সাথে মেসেজগুলো আমরাও পেয়ে যাচ্ছি এবং এগুলো যাচাই-বাছাই করে এদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করছি।'

এ ধরণের তথ্য সন্ত্রাসের মাধ্যমে নাশকতা সৃষ্টিকে প্রতিহিংসার রাজনীতির বহির্প্রকাশ বলে মনে করেন এ সমাজ বিজ্ঞানী।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, ' কোনো সভ্য সমাজে প্রতিহিংসামূলক রাজনীতির কারণে যে ধরনের সহিংস ঘটনা ঘটছে তা কোনমতেই কাম্য হতে পারে না।'

এদিকে এসএমএসের মাধ্যমে নাশকতার সাথে সম্পৃক্ত বেশকিছু মোবাইল নম্বর পেয়েছে বলে দাবি পুলিশের।




DMCA.com Protection Status

এই বিভাগের সকল সংবাদ

Contact Address

Nasir Trade Centre, Level-9,
89, Bir Uttam CR Dutta Road, Dhaka 1205, Bangladesh
Email: somoydigitalsomoynews.tv

Find us on

  Live TV DMCA.com Protection Status
উপরে